মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

স্বাস্থ্য সেবা কর্মসূচী

 

ইপিআই কর্মসূচীঃ

· কর্মসূচীর নামঃ সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচী

· কর্মসূচী বাসত্মবায়নকারীঃ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা এবং তাহার আওতাধীন সকল স্বাস্থ্য কর্মী।

· অর্থায়ন ও অন্যান্য সহায়তাকারীঃ স্বাস্থ্য ও পঃ কঃ মন্ত্রণালয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ।

-লক্ষ্য ও পদ্ধতিঃ শিশুদের ০৮টি রোগের বিরম্নদ্ধে প্রতিরোধ টিকা প্রদান ও ভিটামিন এ ক্যাপসুল এর মাধ্যমে রাতকানা রোগ  ও অপুষ্টি প্রতিরোধ।  মায়েদের কে টিটি টিকার মাধ্যমে মা এবং নবজাতক শিশুর টিটেনাস প্রতিরোধ ব্যবস্থা। মায়েদের-কে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর মাধ্যমে মায়েদের এবং নবজাতক শিশুদের ভিটামিন এ এর ঘাটতি পুরন। মূল লক্ষ্য হচ্ছে, শিশু ভোগামিত্ম এবং মৃত্যুহার কমানো।
· আওতাভুক্ত সুবিধাভোগী জনগোষ্ঠীঃ ১৫-৪৯ বৎসরের সকল মহিলা এবং ০- ৬০মাস  বয়সী সকল শিশু।

ই ও সি কর্মসূচীঃ

· কর্মসূচীর নাম ঃ  প্রসুতি সেবা

· কর্মসূচী বাস্তবায়নকারী ঃ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা  এবং ই ও সি অমত্মর্ভুক্ত হাসপাতালসমূহের ডাক্তার ও নার্স।

· অর্থায়ন ও অন্যান্য সহায়তাকারী - স্বাস্থ্য ও পঃ কঃ মন্ত্রণালয়, ইউনিসেফ ।

· লক্ষ্য ও পদ্ধতি - নিরাপদ মাতৃত্ব ,বিপদ মুক্ত ডেলিভারী এবং শিশু ও মাতৃ মৃত্যু হার কমানো।

· আওতাভুক্ত সুবিধাভোগী জনগোষ্ঠী - সকল গর্ভবতী মা।

এ আর আই কর্মসূচীঃ

· কর্মসূচীর নাম - এ আর আই।

· কর্মসূচী বাস্তবায়নকারী ঃ তত্বাবধায়ক/ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তাসহ প্রতিষ্ঠানের সকল ডাক্তার,

চিকিৎসা সহকারী, ফার্মাসিষ্ট, নার্স ।

· অর্থায়ন ও অন্যান্য সহায়তাকারী - স্বাস্থ্য ও পঃ কঃ মন্ত্রণালয়, ইউনিসেফ ।

· লক্ষ্যও পদ্ধতি - শিশুদের নিউমোনিয়া এবং শ্বাসনালী প্রদাহ জনিত রোগের চিকিৎসা এবং প্রকোপ কমানো।

· আওতাভুক্ত সুবিধাভোগী জনগোষ্ঠী ঃ সকল শিশু।

 

 

স্বাস্থ্য সেবায় নিম্ন বর্নিত জরুরী তথ্য :-

 

প্রতিদিন একটি আমলকীর ২০টি উপকারিতা

আমলকী হল আমাদের দেহের জন্য সবচাইতে উপকারি ভেষজের মাঝে একটি। এটি আপনি প্রতিদিনই খেতে পারেন এবং এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। বরং আছে দারুণ সব উপকার। প্রতিদিন এক গাদা ভিটামিন ট্যাবলেট না খেয়ে খান একটি করে আমলকী। কিংবা আমলকীর আচার। খেতে পারেন আমলকীর মোরব্বা কিংবা আমলকীর পাউডার ব্যবহার করতে পারেন রান্নায়। এই সামান্য আমলকী আপনার দেহের করবে বিস্ময়কর সব উপহার। কীভাবে জানতে চান? আসুন জানি প্রতিদিন একটি আমলকী খাওয়ার ২০টি উপকারিতা সম্পর্কে।
১)আমলকী চুলের টনিক হিসেবে কাজ করে এবং চুলের পরিচর্যার ক্ষেত্রে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এটি কেবল চুলের গোড়া মজবুত করে তা নয়, এটি চুলের বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে।
২)এটি চুলের খুসকির সমস্যা দূর করে ও পাকা চুল প্রতিরোধ করে।
৩)আমলকীর রস কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাইলসের সমস্যা দূর করতে পারে। এছাড়াও এটি পেটের গোলযোগ ও বদহজম রুখতে সাহায্য করে।
৪)এক গ্লাস দুধ বা পানির মধ্যে আমলকী গুঁড়ো ও সামান্য চিনি মিশিয়ে দিনে দু'বার খেতে পারেন। এ্যাসিডেটের সমস্যা কম রাখতে সাহায্য করবে।
৫)আধা চূর্ণ শুষ্ক ফল এক গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে খেলে হজম সমস্যা কেটে যাবে। খাবারের সঙ্গে আমলকীর আচার হজমে সাহায্য করে।
৬)প্রতিদিন সকালে আমলকীর রসের সঙ্গে মধু মিশে খাওয়া যেতে পারে। এতে ত্বকের কালো দাগ দূর হবে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।
৭)আমলকীর রস দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এছড়াও চোখের বিভিন্ন সমস্যা যেমন চোখের প্রদাহ। চোখ চুলকানি বা পানি পড়ার সমস্যা থেকে রেহাই দেয়।
৮)আমলকী চোখ ভাল রাখার জন্য উপকারী। এতে রয়েছে ফাইটো-কেমিক্যাল যা চোখের সঙ্গে জড়িও ডিজেনারেশন প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।
৯)এছাড়াও প্রতিদিন আমলকির রস খেলে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ দূর হয় এবং দাঁত শক্ত থাকে।
১০) আমলকীর টক ও তেতো মুখে রুচি ও স্বাদ বাড়ায়। রুচি বৃদ্ধি ও খিদে বাড়ানোর জন্য আমলকী গুঁড়োর সঙ্গে সামান্য মধু ও মাখন মিশিয়ে খাওয়ার আগে খেতে পারেন।
১১) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং মানসিক চাপ কমায়।
১২) কফ, বমি, অনিদ্রা, ব্যথা-বেদনায় আমলকী অনেক উপকারী।
১৩) ব্রঙ্কাইটিস ও এ্যাজমার জন্য আমলকীর জুস উপকারী।
১৪) শরীর ঠাণ্ডা রাখে, শরীরের কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে, পেশী মজবুত করে।
১৫) এটি হৃদযন্ত্র, ফুসফুসকে শক্তিশালী করে ও মস্তিষ্কের শক্তিবর্ধন করে। আমলকীর আচার বা মোরব্বা মস্তিষ্ক ও হৃদযন্ত্রের দুর্বলতা দূর করে।
১৬) শরীরের অপ্রয়োজনীয় ফ্যাট ঝরাতে সাহায্য করে।
১৭) লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা বাড়িয়ে তুলে দাঁত ও নখ ভাল রাখে।
১৮) এর এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান ফ্রি র‌্যাডিকালস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। বুড়িয়ে যাওয়া ও সেল ডিজেনারেশনের অন্যতম কারণ এই ফ্রি র‌্যাডিকালস।
১৯) সর্দি-কাশি, পেটের পীড়া ও রক্তশূন্যতা দূরীকরণে বেশ ভালো কাজ করে।
২০) ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। কোলেস্টেরল লেভেলেও কম রাখাতে যথেষ্ট সাহায্য করে।

Photo: প্রতিদিন একটি আমলকীর ২০টি উপকারিতা</p />
<p>আমলকী হল আমাদের দেহের জন্য সবচাইতে উপকারি ভেষজের মাঝে একটি। এটি আপনি প্রতিদিনই খেতে পারেন এবং এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। বরং আছে দারুণ সব উপকার। প্রতিদিন এক গাদা ভিটামিন ট্যাবলেট না খেয়ে খান একটি করে আমলকী। কিংবা আমলকীর আচার। খেতে পারেন আমলকীর মোরব্বা কিংবা আমলকীর পাউডার ব্যবহার করতে পারেন রান্নায়। এই সামান্য আমলকী আপনার দেহের করবে বিস্ময়কর সব উপহার। কীভাবে জানতে চান? আসুন জানি প্রতিদিন একটি আমলকী খাওয়ার ২০টি উপকারিতা সম্পর্কে।<br />
১)আমলকী চুলের টনিক হিসেবে কাজ করে এবং চুলের পরিচর্যার ক্ষেত্রে এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। এটি কেবল চুলের গোড়া মজবুত করে তা নয়, এটি চুলের বৃদ্ধিতেও সাহায্য করে।<br />
২)এটি চুলের খুসকির সমস্যা দূর করে ও পাকা চুল প্রতিরোধ করে।<br />
৩)আমলকীর রস কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাইলসের সমস্যা দূর করতে পারে। এছাড়াও এটি পেটের গোলযোগ ও বদহজম রুখতে সাহায্য করে।<br />
৪)এক গ্লাস দুধ বা পানির মধ্যে আমলকী গুঁড়ো ও সামান্য চিনি মিশিয়ে দিনে দু'বার খেতে পারেন। এ্যাসিডেটের সমস্যা কম রাখতে সাহায্য করবে।<br />
৫)আধা চূর্ণ শুষ্ক ফল এক গ্লাস পানিতে ভিজিয়ে খেলে হজম সমস্যা কেটে যাবে। খাবারের সঙ্গে আমলকীর আচার হজমে সাহায্য করে।<br />
৬)প্রতিদিন সকালে আমলকীর রসের সঙ্গে মধু মিশে খাওয়া যেতে পারে। এতে ত্বকের কালো দাগ দূর হবে ও ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়বে।<br />
৭)আমলকীর রস দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। এছড়াও চোখের বিভিন্ন সমস্যা যেমন চোখের প্রদাহ। চোখ চুলকানি বা পানি পড়ার সমস্যা থেকে রেহাই দেয়।<br />
৮)আমলকী চোখ ভাল রাখার জন্য উপকারী। এতে রয়েছে ফাইটো-কেমিক্যাল যা চোখের সঙ্গে জড়িও ডিজেনারেশন প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে।<br />
৯)এছাড়াও প্রতিদিন আমলকির রস খেলে নিঃশ্বাসের দুর্গন্ধ দূর হয় এবং দাঁত শক্ত থাকে।<br />
১০) আমলকীর টক ও তেতো মুখে রুচি ও স্বাদ বাড়ায়। রুচি বৃদ্ধি ও খিদে বাড়ানোর জন্য আমলকী গুঁড়োর সঙ্গে সামান্য মধু ও মাখন মিশিয়ে খাওয়ার আগে খেতে পারেন।<br />
১১) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং মানসিক চাপ কমায়।<br />
১২) কফ, বমি, অনিদ্রা, ব্যথা-বেদনায় আমলকী অনেক উপকারী।<br />
১৩) ব্রঙ্কাইটিস ও এ্যাজমার জন্য আমলকীর জুস উপকারী।<br />
১৪) শরীর ঠাণ্ডা রাখে, শরীরের কার্যক্ষমতা বাড়িয়ে তোলে, পেশী মজবুত করে।<br />
১৫) এটি হৃদযন্ত্র, ফুসফুসকে শক্তিশালী করে ও মস্তিষ্কের শক্তিবর্ধন করে। আমলকীর আচার বা মোরব্বা মস্তিষ্ক ও হৃদযন্ত্রের দুর্বলতা দূর করে।<br />
১৬) শরীরের অপ্রয়োজনীয় ফ্যাট ঝরাতে সাহায্য করে।<br />
১৭) লোহিত রক্তকণিকার সংখ্যা বাড়িয়ে তুলে দাঁত ও নখ ভাল রাখে।<br />
১৮) এর এ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান ফ্রি র‌্যাডিকালস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। বুড়িয়ে যাওয়া ও সেল ডিজেনারেশনের অন্যতম কারণ এই ফ্রি র‌্যাডিকালস।<br />
১৯) সর্দি-কাশি, পেটের পীড়া ও রক্তশূন্যতা দূরীকরণে বেশ ভালো কাজ করে।<br />
২০) ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে। কোলেস্টেরল লেভেলেও কম রাখাতে যথেষ্ট সাহায্য করে।

গর্ভবতী ও প্রসূতি মায়ের যত্ন

কথায় বলে ‘শিশুর হাসিতে মায়ের খুশি’। আর এই হাসি দেখতে হলে মাকে গর্ভকাল থেকেই থাকতে হবে হাসিখুশি ও দুশ্চিন্তামুক্ত। গর্ভবতী মাকে নিয়মিত ঘুম ও পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে। সর্বোপরি সুস্থ শিশুলাভের জন্য গর্ভবতী মায়ের পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ ও স্বাস্থ্য পরিচর্যা প্রয়োজন। পরিবারের সবারই গর্ভবতী মাকে এ ব্যাপারে সাহায্য ও সহযোগিতা করা উচিত।
গর্ভবতী মায়ের নিজের প্রয়োজনীয় খাবার খাওয়ার পাশাপাশি গর্ভস্থ শিশুর জন্য বাড়তি খাদ্যের প্রয়োজন হয়। তাই গর্ভবতী মা ও তার অনাগত শিশুর সুস্থ জীবনের জন্য গর্ভবতী মায়ের প্রতিদিন পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ করা প্রয়োজন। অজ্ঞতা, কুসংস্কার ও দারিদ্র্যের কারণে আমাদের দেশের অনেক গর্ভবতী মা প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করেন না। মায়ের অপুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ শুধু তার জন্যই ক্ষতিকর নয়, ভ্রুণ এবং নবজাত শিশুর জন্য মারাত্মকভাবে ক্ষতিকর। গর্ভাবস্থায় মা পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ না করার কারণে শিশু ও গর্ভবতী মা উভয়ই অপুষ্টিতে ভোগেন।
আর মা যদি গর্ভাবস্থায় অপুষ্টিতে ভোগেন তাহলে যে শিশু জন্মগ্রহণ করবে তার জন্ম-ওজন স্বাভাবিকের চেয়ে কম হবে, শিশু জন্মগতভাবেই অপুষ্টি নিয়ে জন্মগ্রহণ করবে। এ ধরনের শিশুর মৃত্যুঝুঁকিও বেশি থাকে। পক্ষান্তরে গর্ভকালীন সময়ে মা যদি পুষ্টিকর খাদ্য না খান, তাহলে মায়ের স্বাস্থ্য ভেঙ্গে পড়বে। এ ধরনের মায়েদের গর্ভপাত, অপরিণত ও মৃতশিশু প্রসব এবং প্রসবকালীন মৃত্যুর ঝুঁকিও বেশি থাকে।
গর্ভবতী মায়েদের প্রতিদিন ভাত, মাছ (মলা, ঢেলা ইত্যাদি ছোট মাছ), সম্ভব হলে মাংস, ডিম, দুধ এবং ঘন ডাল, সিমের বিচি প্রভৃতি খেতে হবে। এছাড়া গাঢ় সবুজ ও হলুদ রঙের শাকসবজি ও তাজা ফলমূল, বিশেষত পাকা আম, পেঁপে, কাঁঠাল, পেয়ারা, আনারস, কচুশাক, পুঁইশাক, ডাঁটাশাক, লালশাক, গাজর, টমেটো, মিষ্টি কুমড়া এসব ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খাওয়া উচিত। কারণ ভিটামিন ‘এ’ শরীরে আয়রন (লৌহ) ব্যবহারে সাহায্য করে। আমলকি, পেয়ারা, বাতাবিলেবু, কামরাঙা, পাতি লেবু, কাগজী লেবু, কুল ইত্যাদি খেলে সহজেই ভিটামিন ‘সি’-র অভাব পূরণ হবে। শরীরে আয়রন (লৌহ) শোষিত হওয়ার জন্য ভিটামিন ‘সি’ অত্যন্ত জরুরি। গর্ভবতী মায়েদের জন্য ক্যালসিয়ামও গুরুত্বপূর্ণ।
ক্যালসিয়ামের অভাবে উচ্চ রক্তচাপ, প্রি-একলাম্পশিয়া হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। দুধ, ঘি, মাখন, ডিমের কুসুম, ছোট মাছ (কাঁটাসহ) কলিজা, ডাল, মাংস এবং সবুজ শাকসবজি ও ফলমূল ইত্যাদিতে প্রচুর ক্যালসিয়াম থাকে। কোনো কারণে সব ধরনের পুষ্টিকর খাবার জোগাড় করা সম্ভব না হলেও বাড়িতে তৈরি স্বাভাবিক খাবার যেমন- একটু বেশি ভাত, বেশি পরিমাণ ঘন ডাল, তরকারি এবং পর্যাপ্ত ফলমূল খেলে এই প্রয়োজন মিটবে।
গর্ভাবস্থায় মাকে লৌহসমৃদ্ধ খাবার (যেমন- মাংস, ডিম, কলিজা, ডাল, কাঁচাকলা, কচুশাক, লালশাক, ডাঁটাশাক, পুঁইশাক) এবং অন্যান্য সবুজ শাকসবজি ও টাটকা ফলমূল প্রতিদিন বেশি করে খেতে হবে। গর্ভবতী মায়ের খাদ্যে আয়োডিনযুক্ত লবণ এবং সামুদ্রিক মাছ ও সামুদ্রিক মাছের তেল থাকা উচিত।
প্রচুর শাকসবজি ও তাজা ফলমূল খেলেও আয়োডিনের অভাব পূরণ করা যায়। গর্ভকালীন সময়ে দৈনিক ১৫-২০ গ্লাস বিশুদ্ধ ও আর্সেনিক মুক্ত নিরাপদ পানি পান করা উচিত। এ সময় মায়েদের বারে বারে খেতে হয়।
সন্তান প্রসবের সময় মায়ের শরীরের ওপর অনেক চাপ পড়ে এবং তার দেহের অনেক ক্ষয় হয়। দেহের এ ক্ষয়পূরণ, পুষ্টি সাধন এবং দেহকে সুস্থ-সবল ও নিরোগ রাখার জন্য গর্ভবতী মায়ের মতো প্রসূতি মাকেও বেশি করে পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। এছাড়া শিশুর জন্মের পরই তার খাবার অর্থাৎ মায়ের দুধ তৈরি হওয়ার জন্য মায়ের অতিরিক্ত পুষ্টির প্রয়োজন হয়। জন্মের পর থেকে ছয় মাস বয়স পর্যন্ত শিশুকে শুধু বুকের দুধ খেতে দিতে হবে।
শিশুর জন্য মায়ের শাল দুধ ও বুকের দুধ পৃথিবীর সেরা পুষ্টিকর খাবার। মায়ের দেহ থেকে বুকের দুধের উপাদান তৈরি হয়। সুতরাং প্রসূতি মায়ের নিজের স্বাস্থ্য রা ও বুকের দুধ তৈরি করার জন্য মাকে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি সমৃদ্ধ সব ধরনের খাবার খেতে হবে।
প্রসূতি মহিলাদের নিজের দেহের ক্ষয়পূরণ ও বুকে দুধ উৎপাদনের জন্য প্রোটিনের প্রয়োজনীয়তা বৃদ্ধি পায়। এজন্য প্রসূতি মাকে প্রতিদিন প্রোটিন জাতীয় খাবার যথা-মাছ, মাংস, ডিম, দুধ, ডাল ইত্যাদি বেশি করে খেতে হবে।
সাধারণত প্রসূতি মায়ের বুকে দৈনিক ২০-৩০ আউন্স দুধ তৈরি হয়। ২ গ্রাম খাদ্য প্রোটিন থেকে ১ গ্রাম দুধের প্রোটিন তৈরি হয়। এটি তখনই সম্ভব মায়েরা যদি দৈনিক ১০০ গ্রাম প্রোটিনের মধ্যে কমপে অর্ধেক বা দু-তৃতীয়াংশ প্রাণিজ প্রোটিন যেমন- মাছ, মাংস, ডিম, দুধ ইত্যাদি গ্রহণ করেন। প্রাণিজ প্রোটিন মায়ের দুধের উৎকৃষ্ট উপাদান।
শিশুর শরীর বৃদ্ধি শিশুকালই সবেচেয়ে বেশি হয়। এজন্য প্রচুর প্রোটিন প্রয়োজন। আর এ প্রোটিন শিশু মায়ের বুকের দুধ থেকেই পেয়ে থাকে। ক্যালসিয়াম ও লৌহজাতীয় খাবারও প্রসূতি মাকে বেশি করে খেতে হবে, যাতে দুধের মাধ্যমে এ দুটি উপাদান শিশুর দেহের চাহিদা পূরণ করতে পারে।
ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণের জন্য প্রসূতি মাকে পর্যাপ্ত ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। আর লৌহের চাহিদা পূরনের জন্য মার লৌহসমৃদ্ধ খাবার বেশি করে খাওয়া উচিত। স্তন দানকালে মায়ের প্রথম ছয় মাস অতিরিক্ত ক্যালরি প্রয়োজন। এ ক্যালরি দুধ তৈরি ও নিঃসৃত করার কাজে ব্যয় হয়। সেজন্য বেশি করে ভাত, রুটি ইত্যাদি খাওয়া উচিত। তাছাড়া ভিটামিন ‘এ’, ‘বি-১’ (থায়ামিন), বি-২ (রাইবোফেবিন) এবং ভিটামিন ‘সি’র চাহিদা পূরণের জন্য প্রসূতি মাকে প্রতিদিন চাহিদার অতিরক্তি শাক-সবজি ও মৌসুমী ফলমূল খেতে হবে।
প্রসূতি মা যখন শিশুকে বুকের দুধ খাওয়ান, তখন তার শরীর থেকে প্রতিদিন অনেক পানি বের হয়ে যায়। এ ঘাটতি পুষিয়ে নেয়ার জন্য তাকে প্রচুর পানি পান করতে হবে, তাহলে দুধের প্রবাহ সহজ হয়। এছাড়া রসালো ফলমূল এবং বেশি করে ঝোল দিয়ে রান্না করা মাছের তরকারিও বেশ উপকারী।
বাচ্চা প্রতিদিন যে পরিমাণে মায়ের দুধ খায় অন্তত সেই পরিমাণ পানি জাতীয় খাবার প্রসূতি মায়ের শরীরে ফিরিয়ে দেয়া উচিত। শিশু জন্মের পর কমপক্ষে ছয় সপ্তাহ প্রসূতি মাকে ভারী কোনও কাজ করতে দেওয়া যাবে না। এ সময় মা যাতে পরিপূর্ণ বিশ্রাম পান সেদিকে পরিবারের সবার দৃষ্টি দিতে হবে। প্রসূতি মায়ের পরিমিত বিশ্রাম যেমন মায়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখে, তেমনি শিশুর স্বাস্থ্য ভালো রাখতেও সাহায্য করে।

শিশুর সঠিক খাবার

খাদ্য মানুষের একটি মৌলিক চাহিদা এবং অধিকার। তবে কোন খাবারের কী গুণ, কোন খাবার কতটুকু খাওয়া উচিত, কোনটা অতি প্রয়োজনীয়, কোনটা নিষিদ্ধ। না জানার ফলে নানারকম ঘাটতি বা বাড়তি বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। জন্মের পর থেকে শিশুকে সঠিক ও সুষম খাবারের অভ্যস্ত করতে হবে। কীভাবে বুঝবেন শিশু পর্যাপ্ত দুধ পাচ্ছে শিশু যদি ২৪ ঘণ্টায় ৬ বার প্রস্রাব করে তবে এটা নিশ্চিত যে সে পর্যাপ্ত বুকের দুধ পাচ্ছে। এর ফলে শিশু পরিতৃপ্ত থাকবে এবং ধীরে ধীরে তার ওজন বাড়তে থাকবে। জন্মের পরে প্রথম ১৫/২০ দিন শিশুর ওজন সাধারণত একটু কমে তারপর বাড়তে শুরু করে। শিশু কাঁদলেই যে, সে দুধ পাচ্ছে না এটা মনে করার কোনও কারণ নেই। ছয় মাস থেকে এক বছর বয়সী শিশু ছয় মাসের পর থেকে শুধু মায়ের দুধ শিশুর পুষ্টি চাহিদা পূরণ করতে পারে না। শিশুর ওজন প্রথম ৬ মাসে জন্ম ওজনের দ্বিগুণ হয়, এক বছরে তিনগুণ এবং দুই বছরে প্রায় চারগুণ হয়। শিশুকে কোনও নতুন খাবার খাওয়ার অভ্যাস করতে হলে অন্তত দুই মাস সময় প্রয়োজন। এসময়ে খুব সহজেই পরিবারের খাবার থেকে তার পুষ্টি চাহিদা মেটে। পরিবারের খাবার অর্থাৎ চাল, ডাল, বিভিন্ন ধরনের সবজি, মাছ, মাংস, সয়াবিন, ফলমূল থেকে শিশুর উপযোগী করে খাবার তৈরি করা যায়। প্রথমে শিশুকে ফলের রস যেমনÑ কমলা, আনার, মালটার রস দিয়ে বাইরের খাবার শুরু করতে হয়। এতে অভ্যস্ত হলে শিশুকে সুজি/চালের গুঁড়ার হালুয়া খাওয়াতে হবে। তারপর আস্তে আস্তে খিচুড়ি শুরু করতে হবে। সাত মাস থেকে খাবারের রুটিন সারাদিনে যতবার সম্ভব বুকের দুধ খাওয়াতে হবে দিনে কমপক্ষে ১ বার ফলের রস অথবা ফল (কলা/কমলা ইত্যাদি) খাওয়াতে হবে। বাচ্চার চাহিদামতো দিনে (দুপুরে ও রাতে) ২বার খিচুড়ি খাওয়াতে হবে। বাচ্চাকে ১/২ বার সুজি/চালের হালুয়া খাওয়াতে হবে।

সাত/আট মাস বয়স থেকে একটু একটু ডিম সিদ্ধ বা পোচ করে খাওয়ানো যাবে। এছাড়া শিশুকে পরিবারের সবার সঙ্গে খাবারের টেবিলে বসাতে হবে এবং পরিবারের রান্না খাবার থেকে একটু একটু খাবার মুখে দিয়ে অভ্যস্ত করতে হবে যাতে এক বছর বয়সের পর থেকে সে পুরোপুরিভাবে সবার জন্য রান্না করা খাবার খেতে পারে। এক থেকে তিন বছরের খাবার শিশুর জন্য দুই বছর পর্যন্ত মায়ের দুধ সর্বোৎকৃষ্ট দুধ। তাই দুই বছরের পর থেকে তাকে বাইরের দুধ দেয়া যেতে পারে। প্রতিদিন ২-৩ গ্লাস দুধ শিশুর চাহিদা অনুযায়ী প্রয়োজনমতো চিনি দিয়ে খাওয়াতে হবে। দুধ ছাড়াও খিচুড়ি, হালুয়া, আটার রুটি, মৌসুমী ফল শিশুর খাবার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং আস্তে আস্তে পরিবারের সবার জন্য রান্না করা খাবারে তাকে অভ্যস্ত করতে হবে। যেমনÑ সকালে নাস্তার টেবিলে পরিবারের সবাই যা খায় সেগুলো তাকে অল্প অল্প করে মুখে দিতে হবে। আবার দুপুরে সবাই যখন খেতে বসবে তখন তা থেকে একটু একটু মুখে দিতে হবে। যাতে সে ধীরে ধীরে বিভিন্ন ধরনের খাবারের স্বাদ গ্রহণ করতে পারে এবং পরিবারের খাবারে অভ্যস্ত হতে পারে। চার থেকে ছয় বছরের খাবার সব শিশুর পুষ্টি চাহিদা একরকম হয় না। ছেলেমেয়ে, শারীরিক গঠন, বয়স ভেদে একই বয়সী শিশুদের মধ্যে পুষ্টি চাহিদা ভিন্ন হতে পারে। যেহেতু শিশুরা চার বছর বয়স থেকে স্কুলে যায়, সেহেতু তাদের টিফিনসহ প্রতিদিনের খাবারের একঘেয়েমি দূর করে খাবারে নতুনত্ব আনতে হবে। প্রতিদিন সকালে আলুভাজি-রুটি না দিয়ে কোন দিন বিভিন্ন ধরনের সবজির মিশ্রণে নিরামিষ ও রুটি, জেলি/জ্যাম দিয়ে রুটি, ডিম দিয়ে রুটি অথবা পাউরুটি টোস্ট করে বা সুজি-দিয়ে রুটি ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের খাবার স্বাস্থ্য সম্মতভাবে বাচ্চাদের খাবার উপযোগী করে পরিবেশন করা যেতে পারে। সাত থেকে নয় বছর বয়সের খাবার এ বয়সের ছেলেমেয়েরা নিয়মিত স্কুলে যায়, খেলাধুলা এবং পড়াশোনা করে। তাই তাদের খাদ্যের চাহিদাও ৪-৫ বছরের ছেলেমেয়েদের চেয়ে বেশি হয় এবং তাদের শারীরিক ও মানসিক বৃদ্ধির জন্য উপযুক্ত খাবার একান্ত প্রয়োজন। এ বয়সে বাচ্চাদের বাইরের খাবার অর্থাৎ বিভিন্ন ধরনের চিপ্স, জ্যুস, ফাস্ট ফুড খাওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। এধরনের প্রবণতা বন্ধ করা উচিত। দোকানে যে সব খাবার পাওয়া যায় সেগুলো বাসায় স্বাস্থ্যসম্মতভাবে তৈরি করা যায়। বাচ্চাদের বুঝাতে হবে যে, বাইরের খাবার খাওয়া শরীরের জন্য ঠিক নয়। শিশুদের কোমল মন, সুতরাং সুন্দর করে বুঝিয়ে বললে তারা বুঝতে পারবে। তাদের খাবার অবশ্যই বৈচিত্র্যময় হতে হবে যাতে তারা খাবার খাওয়ার জন্য আকর্ষণ অনুভব করে। দশ থেকে পনের বছর বয়সী ছেলেমেয়েদের খাবার শিশুদের বৃদ্ধির প্রক্রিয়া দুই বছর বয়স পর্যন্ত সর্বাপেক্ষা দ্রুত হয়। এরপর বৃদ্ধির হার কিছুটা কমে আসে এবং আবার ১০-১১ বছর বয়স থেকে বৃদ্ধির হার বেড়ে যায়। মেয়েদের ১১-১৩ বছর বয়সে এবং ছেলেদের ১৩-১৫ বছর বয়সে এই বৃদ্ধি সর্বাপেক্ষা দ্রুত হয়ে থাকে। এরপর আবার বৃদ্ধির হার কিছুটা কমে যায়। তবে ছেলেমেয়েদের বৃদ্ধির সাধারণ নিয়ম কিছুটা নির্ভর করে বংশগত ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা যেমনÑ পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা, খেলাধুলা, মুক্ত বাতাস ইত্যাদির ওপর। আর বাকিটা নির্ভর করে সুষম ও পর্যাপ্ত খাদ্যের ওপর। বৃদ্ধির হার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে তাদের খাবার চাহিদাও বাড়তে থাকে। তাই খাবারের ব্যাপারে বিশেষ যতœবান হতে হবে। শিশু খেতে চায় নাÑ কী করবেন ২-৫ বছর বয়সে পৌঁছে স্বাভাবিক নিয়মে যখন শিশুর খিদে আগের চেয়ে কমে যায় তা অনেক মা-বাবাকে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত করে তোলে। শিশু যদি ওজনে ও উচ্চতায় ঠিক থাকে, স্বাভাবিকভাবে বাড়ে, তবে খাবার সে প্রয়োজন অনুযায়ী গ্রহণ করছেÑ কথাটি জানিয়ে এসময় মা-বাবাকে আশ্বস্ত করতে হবে। মা-বাবার উচিত এনিয়ে অহেতুক মাথা না ঘামানো। বরং শিশুর বয়স বিবেচনায় রেখে খাবার সময়ের অন্তর, স্থান ইত্যাদি চিন্তায় এনে সবসময় ক্যালরিসম্পন্ন পুষ্টিকর খাবার শিশুকে জোগানো হচ্ছে কি না সে বিষয়টির প্রতি মা-বাবাকে মনোযোগী হতে হবে। ঠিক কতটা পরিমাণ খাবার শিশু খাবে সেটি তার দায়িত্ব, সে নিজে তা নিয়ন্ত্রণ করুক। একজন শিশু সাধারণত তার শরীরের চাহিদা অনুযায়ী খিদে থাকা, না থাকার উপর নির্ভর করে খাবার পরিমাণ নির্ধারণ করে। কোনো শিশুর দৈনিক আহারের পরিমাণে বেশ বড় রকমের গরমিল লক্ষ্য করা যায়, কিন্তু পুরো সপ্তাহ মিলে তার গোটা খাবারের পরিমাণ প্রায়ই ঠিক থাকে। মা-বাবার উচিত যে সময়ে বা সপ্তাহের যে দিনগুলোতে সে খাবারে আগ্রহ দেখাচ্ছে, সে সময় উচ্চক্যালরিসম্পন্ন খাবার পরিবেশন করা, শিশুকে যখন তখন চিপস্, চকলেট, ড্রিংকস খেতে না দেয়া। শাকসবজি, ডাল, চাল, ডিম এসব খাবার একটু বেশি পরিমাণ সরিষা বা সয়াবিন দিয়ে রান্না করে শিশুর খাবার সহজেই উচ্চক্যালরিসম্পন্ন করা যায়। কিন্তু তা না করে সম্পর্ণ না বুঝে খাওয়ার জন্য মা-বাবা ও অভিভাবকদের অতিনিয়ন্ত্রণ ও বাড়াবাড়ি শিশুকে তার খাবার গ্রহণের প্রাকৃতিক নিয়মে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় অভ্যস্ত হতে বাধা সৃষ্টি করে। তার ফল হয় মারাÍক। হয়তো শিশু মোটেও খেতে চায় না, মা-বাবা খাবারের প্লেট হাতে নেয়া মাত্র তা দেখে সে পেছনের দিকে সরে যেতে থাকে বা অতিরিক্ত খাদ্য গ্রহণের কারণে স্থূল শরীরের অধিকারী হয়। শিশুর খাদ্য সম্পর্কিত কুসংস্কার শিশুরাই দেশের ভবিষ্যৎ। পুষ্টি চাহিদার কথা বিবেচনা না করে নানা রকম কুসংস্কারের বশবর্তী হয়ে প্রয়োজনীয় খাবার থেকে তাদের বঞ্চিত করে অপুষ্ট, দুর্বল, অসুস্থ শিশুতে পরিণত করা হয়। অনেক সময় দেখা যায়, এক বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত শিশুকে দুধ ছাড়া অন্য কোনও ধরনের খাবার দেয়া হয় না। মায়েরা মনে করেন সে অন্য কোনও খাবার হজম করতে পারবে না। আবার অনেকে শিশুকে ডাল খেতে দেন না, পেট খারাপ হবে বলে। এছাড়া অনেকে মনে করেন গুড়, চিনি, কলা, মিষ্টি আলু খেলে শিশুর কৃমি হবে। তাই এসব তাদের খেতে দেয়া হয় না। আসলে এসব খাবার থেকে কোনভাবেই কৃমি হয় না। ময়লা, নোংরা, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে ও অপরিষ্কার ময়লা হাতে শিশুদের খাওয়ালে শিশুরা কৃমি দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। কলা খাওয়ালে শিশুর ঠাণ্ডা এবং সর্দি লাগতে পারে, ডিম খেলে পেট খারাপ হতে পারে এরকম কথাও শোনা যায়। আবার অনেক সময় দেখা যায় শিশুদের পেটের অসুখ হলে শুধু ডাবের পানি বা বার্লি খেতে দেয়া হয়। এগুলো সবই খাবার সম্বন্ধে ভ্রান্ত ধারণা। এ ধরনের কুসংস্কার ও ভ্রান্ত ধারণা দূর করে শিশুদের সব ধরনের খাবার খাওয়াতে হবে।

 

শিশুর কৃমিরোগ হলে প্রতিরোধে কি করবেন?

কৃমিরোগ একটি জনস্বাস্থ্যজনিত সমস্যা। বাংলাদেশের মতো ঘনবসতিপূর্ণ দেশে শিশুরাই সাধারণত কৃমিরোগে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। আমাদের দেশের শতকরা ৯০ জন শিশু কেঁচো কৃমিতে আক্রান্ত হয়ে থাকে।
কৃমি থাকলে শিশুর পেট ব্যথা, পেট ফাঁপা, পেট ফুলে ওঠা, পেট খারাপ, বদহজম, বমিভাব, ক্ষুধামন্দা ইত্যাদি নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। সবশেষে শিশু চরম অপুষ্টিতে ভুগতে থাকবে।
সে জন্য কৃমিরোগ প্রতিরোধে আমাদের কিছু নিয়ম মেনে চলা উচিত।
১) মল বা পায়খানা থেকেই কৃমিরোগ ছড়ায়। তাই আমাদের নিয়মিত পায়খানার জন্য ব্যবহৃত স্থানকে নির্দিষ্ট ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।
২) মলত্যাগের পর অর্থাৎ পায়খানা থেকে বের হয়ে হাত সাবান বা ছাই দিয়ে ধুতে হবে।
৩) খাওয়ার আগে অবশ্যই হাত ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে।
৪) যে কোনো খাবার তৈরি ও পরিবেশনের আগে হাত সাবান দিয়ে ধোয়া উচিত।
৫) ফলমূল ভালো করে ধুয়ে তারপর খাওয়া উচিত। শিশুদের হাতে পাকা কলা দিলে তা পানি দিয়ে ধুয়ে-মুছে তারপর দেয়া উচিত।
৬) সব ধরনের খাবারই ঢেকে রাখা উচিত। বাইরের খোলা খাবার খাওয়া ঠিক নয়।
৭) শিশুর হাত-পায়ের নখ কেটে রাখা উচিত।
৮) শিশুকে খালি পায়ে রাস্তায় বা বাইরে ঘোরাঘুরি ও খেলতে দেবেন না। তাতে কৃমি সংক্রমণ সহজেই হতে পারে।
৯) শিশুকে সব সময় গোসল করানো এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।
১০) গরু-ছাগল বা যে কোনো ধরনের মাংস ভালোভাবে সেদ্ধ করে খেতে হবে।
১১) সব সময় ফোটানো পানি খেতে হবে।
১২) পরিবারের সবাইকে শিশুর সঙ্গে একটা করে কৃমির ওষুধ খাওয়াতে হবে।

Photo: শিশুর কৃমিরোগ হলে প্রতিরোধে কি করবেন?</p />
<p>কৃমিরোগ একটি জনস্বাস্থ্যজনিত সমস্যা। বাংলাদেশের মতো ঘনবসতিপূর্ণ দেশে শিশুরাই সাধারণত কৃমিরোগে বেশি আক্রান্ত হয়ে থাকে। আমাদের দেশের শতকরা ৯০ জন শিশু কেঁচো কৃমিতে আক্রান্ত হয়ে থাকে।<br />
কৃমি থাকলে শিশুর পেট ব্যথা, পেট ফাঁপা, পেট ফুলে ওঠা, পেট খারাপ, বদহজম, বমিভাব, ক্ষুধামন্দা ইত্যাদি নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে। সবশেষে শিশু চরম অপুষ্টিতে ভুগতে থাকবে।<br />
সে জন্য কৃমিরোগ প্রতিরোধে আমাদের কিছু নিয়ম মেনে চলা উচিত।<br />
১) মল বা পায়খানা থেকেই কৃমিরোগ ছড়ায়। তাই আমাদের নিয়মিত পায়খানার জন্য ব্যবহৃত স্থানকে নির্দিষ্ট ও পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।<br />
২) মলত্যাগের পর অর্থাৎ পায়খানা থেকে বের হয়ে হাত সাবান বা ছাই দিয়ে ধুতে হবে।<br />
৩) খাওয়ার আগে অবশ্যই হাত ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে।<br />
৪) যে কোনো খাবার তৈরি ও পরিবেশনের আগে হাত সাবান দিয়ে ধোয়া উচিত।<br />
৫) ফলমূল ভালো করে ধুয়ে তারপর খাওয়া উচিত। শিশুদের হাতে পাকা কলা দিলে তা পানি দিয়ে ধুয়ে-মুছে তারপর দেয়া উচিত।<br />
৬) সব ধরনের খাবারই ঢেকে রাখা উচিত। বাইরের খোলা খাবার খাওয়া ঠিক নয়।<br />
৭) শিশুর হাত-পায়ের নখ কেটে রাখা উচিত।<br />
৮) শিশুকে খালি পায়ে রাস্তায় বা বাইরে ঘোরাঘুরি ও খেলতে দেবেন না। তাতে কৃমি সংক্রমণ সহজেই হতে পারে।<br />
৯) শিশুকে সব সময় গোসল করানো এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।<br />
১০) গরু-ছাগল বা যে কোনো ধরনের মাংস ভালোভাবে সেদ্ধ করে খেতে হবে।<br />
১১) সব সময় ফোটানো পানি খেতে হবে।<br />
১২) পরিবারের সবাইকে শিশুর সঙ্গে একটা করে কৃমির ওষুধ খাওয়াতে হবে।

 

ঘুম কার কত ঘণ্টা প্রয়োজন

ঘুমিয়ে পড়া ও জেগে ওঠা চলে চক্রাকারে। এ দুটি বিষয় ঘুম নিয়ন্ত্রণে একসঙ্গে জুটি বেঁধে উচ্চ কুশলতায় কাজ করে, যার কাজ হলো ঘুম পাড়িয়ে দেওয়া, আবার ঘুম থেকে জাগিয়ে তোলা। একটি ‘এস’ ও অন্যটি ‘সি’ প্রক্রিয়া। প্রক্রিয়া ‘এস’ ঘুমের পরিমাণ ও তীব্রতা নির্ধারণ করে। এডিনোসাইনও এ জাতীয় ঘুম নিয়ন্ত্রণকারী রাসায়নিক পদার্থ, যাদের বলা হয় সমনোজেন। এগুলোর ভারসাম্য পূর্ণ হওয়ার সঙ্গে ঘুমের বিষয় জড়িত। ২-১২ মাস বয়স ও শিশু বয়সে এসব দ্রুত বাড়ার কারণে শিশু দিনে বেশিণ জেগে থাকতে পারে না, ঘুমে ঢলে পড়ে। প্রক্রিয়া ‘সি’ ২৪ ঘণ্টাব্যাপী ঘুমানোর সময়কাল ও ঘুম-জাগরণের প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করে। এর প্রধান ঘড়িটা মগজের ভেনট্রাল হাইপোথ্যালামাস অংশের ‘এসসিএন’ নিউকিয়াসে বসে থেকে হৃদযন্ত্র, রক্ত সরবরাহ তন্ত্র, হরমোন, কিডনি ও ফুসফুসে ছড়ায় এবং এগুলোকে প্রভাবিত ও বশীভূত করে কর্মযজ্ঞ সাজায়। ‘সিকারডিয়ান’ ঘড়ি আসলে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময়ের কাঁটা ধরে সাজানো থাকে। তাই এর মধ্যে থেকে কাজ করার জন্য তাকে প্রাকৃতিক পরিবেশের দ্বারস্থ হতে হয়, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ‘আলো-আঁধারি’ পরিবেশ।
ঘনঘোর নিদ্রা : গভীর ঘুমের দু’টি সময় আছে, বেলা তিনটা থেকে বিকেল পাঁচটা এবং রাতের শেষ প্রহর তিনটা থেকে ভোর পাঁচটা। তেমনিভাবে সতর্ক জেগে থাকার সবচেয়ে ভালো সময় হলো দুটো, একটা মধ্যদুপুর , অন্যটা বিকেল। অর্থাৎ চোখজুড়ে প্রচণ্ড ঘুমস্রোত নেমে আসার পূর্বণ, যার অন্য নাম ‘দ্বিতীয় ঘুমঝড়’।
ঘুমের নীতিমালা : ঘুমের শারীরবৃত্তের আরেকটা নীতিমালা হলো কম ঘুমের খেসারত সুদ-আসলে মিটিয়ে নেওয়া। ঘুমে ব্যাঘাত জমতে জমতে ঘুমের মূল্যে ঋণ করে চলে দীর্ঘদিন, যা পরবর্তী সময় অবশ্যই ফেরত পেতে চায় স্ব-উদ্যোগে বিভিন্ন পদপে নিয়ে। যেমন, দিবানিদ্রায় কাতর করে দিয়ে, দিনের মনোযোগ বিলুপ্ত করে, কয়েক সেকেন্ডের জন্য হলেও ুদ্র ঘুম ঢেউয়ে ভাসিয়ে নিয়ে গিয়ে। সর্বদা ঘুমে আচ্ছন্নভাব, নিরতিশয় কান্তি, ঘন ঘন হাই ওঠা, বিগড়ানো মেজাজ, হতাশ ভাব, মানসিক অবস্থার সদা পরিবর্তন, ক্রুদ্ধতা, শিরঃপীড়া, মাংশপেশীতে ব্যথা, লেখাপড়ায় খারাপ করা, স্কুলে ক্রমাগত পিছিয়ে পড়া। এসব উপসর্গ তৈরি হয় ভালোমতো ঘুমাতে না পারায়।
ঘুমের বৈশিষ্ট্য : নবজাতক (০-২ মাস) : নবজাতক ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ১০ থেকে ১৯ ঘণ্টা ঘুমাবে, অপরিণত শিশু খানিকটা বেশি। বুকের দুধ পানের শিশু একনাগাড়ে এক থেকে তিন ঘণ্টা ঘুমায়। অন্যদিকে, ফর্মুলার শিশু দুই থেকে পাঁচ ঘণ্টা একনাগাড়ে ঘুমায়। এক থেকে দুই ঘণ্টা জেগে থাকার বিরতি থাকে মাঝখানে। দিন-রাতে সমান হারে ঘুমায় বিশেষত প্রথম সপ্তাহ। পরে সাধারণত রাতে সাড়ে আট ঘণ্টা এবং দিনে সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার মতো ঘুমায়। এ সময়ে বাচ্চার ঘুমানো নিয়ে মা-বাবার ধারণার সঙ্গে পূর্ব পরিচয় না থাকায় অনেক অনুযোগ তৈরি হয়। তবে অতিরিক্ত কান্না, অস্থিরতা, নবজাতকের পেটব্যথা, জি-ই রিফাক্স, ফর্মুলা খাবারের প্রতিক্রিয়ায় ঘুম নাও হতে পারে। শিশুকে ঘুমের সময় যেন পিঠের ওপর শোয়ানো হয়, শক্ত ম্যাট্রেসে ও নরম বিছানায় নয়। বালিশ বা কমফোর্টারস ব্যবহার নিষেধ। অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন শিশুর বুক ও মাথা ঢাকা না থাকে।
কোলের শিশু (২-১২ মাস) : মোট ঘুমের পরিমাণ ২৪ ঘণ্টায় ১২ থেকে ১৩ ঘণ্টার মতো। রাতে নয় থেকে ১০ ঘণ্টা এবং দিনে তিন-চার ঘণ্টার মতো। ঘুমে হাত-পা কামড়ানো, মাথা দোলানো-এ সব ভালো ঘুম না হওয়ার উপসর্গ বলে স্বীকৃত। ছয় সপ্তাহ থেকে তিন মাস বয়সের শিশু ঘুমের ব্যাপ্তি দখলে নিতে পারে।
টলটলিয়ে হাঁটতে পারা শিশু (১-৩ বছর) : মোট দৈনিক ঘুম ১১ থেকে ১৩ ঘণ্টা। দিনের বেলায় দুবারের ঘুমের চাহিদা কমে ১৮ মাস বয়সে একবারে পরিণত হয়। অনিদ্রার ছাপ ফুটে ওঠে উপসর্গে। শিশুর বুদ্ধিবৃত্তি বিকাশে, ভাষা ও বাকশক্তি অর্জনে সুনিদ্রা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাতে ঘুমের সময় ভয় পায়।
স্কুল-পূর্ব বয়স (৩-৫ বছর) : রাতে নয় থেকে ১০ ঘণ্টা ঘুমায়। দিনে আর নাও ঘুমাতে পারে। অনিদ্রার ফলস্বরূপ ঘুমে হাঁটা, ঘুমাতঙ্ক এসব লণ দেখা যায়। অনিদ্রা রোগ দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে।
শৈশব (৬-১২ বছর) : নয় থেকে ১১ ঘণ্টার দৈনিক ঘুম। ভালো ঘুম না হলে ঘুমে শ্বাসরোধ লণ মেলে। টিভি, কম্পিউটার, ভিডিও গেমস ঘুম হরণের প্রধান কারণ। স্কুল ফলাফলে এর প্রভাব পড়ে।
কৈশর-যৌবন (১২ বছরের বেশি বয়সে) : গড় ঘুম সময় দৈনিক সাত থেকে নয় ঘণ্টা। অনিদ্রার স্বরূপ অতিমাত্রায় ঘুমিয়ে পড়ার প্রবণতা ‘নারকোলেপসিতে’ প্রকাশ পায়। রাতে দেরিতে ঘুমানো, সপ্তাহ শেষে বন্ধের দিনে তা পুষিয়ে নেওয়া-এসব অস্বাভাবিক চিত্র তৈরি হয়। ফলাফল ভালো হয় না।
আরেক ব্যাখ্যায় বলা হয়, বিজ্ঞানীরা ঘুমকে প্রধানত ২টি ভাগে ভাগ করেছেন। প্রথমটি ‘নন র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট ঘুম’ এবং দ্বিতীয়টি ‘র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট ঘুম’। নন-রেম ঘুমকে আরো ৪ পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে চোখ জড়িয়ে আসে, ক্রমেই ঘুম হতে থাকে। দ্বিতীয় পর্যায়ে গাঢ় ঘুম হয়। তারপর তৃতীয় গভীর ঘুম, এবং চতুর্থ গভীরতম ঘুম হয়। এভাবে প্রথম ভাগের চারটি স্তর পেরিয়ে পাতায় ঢাকা অেিগালক নড়াচড়া না করলে তাকেই বলে ‘নন-রেম ঘুম’। অপরদিকে এটি যদি দ্রুত নড়াচড়া করে তবে তাকে বলে ‘রেম ঘুম’।
গবেষক ল করেছেন যে, ননরেম নিদ্রার সময় মস্তিষ্ক তরঙ্গ ক্রমে ধীর গতি হয়, ঘুমন্ত মানুষটি স্থির থাকে, অেিগালক নড়াচড়া করে না, শ্বাস-প্রশ্বাস ধীর গতিতে চলে, অনেকেই এই সময় নাক ডাকতে থাকে। চতুর্থ পর্যায়ে ঘুম গভীরতম হয় এবং তখন বৈজ্ঞানিক ক্রিয়াকাণ্ডও চলে সবচেয়ে ধীর গতিতে। আবার অন্যদিকে রেম ঘুম সবচেয়ে হালকা। এখানে অেিগালক নড়াচড়া করে শ্বাস-প্রশ্বাসে ছন্দ থাকে, মগজে রক্ত চলাচল বাড়ে। অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও নড়াচড়া করে। আশ্চর্যের ব্যাপার এই ঘুমের পর্যায়গুলো চলে চক্রাকারে। যেমন, শুরুতেই ননরেম ঘুমের ১ম, ২য়, ৩য় ও চতুর্থ পর্যায় বা ধাপ এভাবে চলে ৯০ মিনিট। এরপর শুরু হয় রেম ঘুম যা ৫Ñ২০ মিনিট মাত্র থাকে। আবার শুরু হয় ৯০ মিনিটের পর্যায়, তারপর ৫Ñ২০ মিনিটের চক্র চলতে থাকে সারা রাত ব্যাপী।
সুস্বাস্থ্যের অধিকারী একজন মানুষ গড়ে দৈনিক ৮ ঘণ্টা ঘুমালে পন্ডিত দেখেছেন যে, এর মধ্যে ৬ ঘণ্টা চলে ননরেম ঘুম এবং ২ ঘণ্টা চলে রেম ঘুম। কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদেরকে গবেষকগণ গড়ে দৈনিক ৮ ঘণ্টা ঘুমানোর পরামর্শ দিয়েছেন। ঘুমের প্রয়োজনীয়তা বয়স বাড়ার সাথে সাথে কমতে থাকে এবং ৫০ বছর পর ননরেম ঘুমের ৪র্থ পর্যায় অর্থাৎ গভীরতম ঘুম থেকে অনেকেই বঞ্চিত হন। তাতে কোনো অসুবিধা নেই। ননরেম ঘুমকে বলা হয় ‘গভীরতম ঘুম’ অথবা ‘স্বপ্নহীন ঘুম’। এ সময় স্বপ্ন থেকে ঘুমন্ত ব্যক্তিকে ডেকে তোলা সহজ। অপরদিকে রেম ঘুম স্তরে ঘুমটা খুব গভীর হয় না। অথচ এ সময় খুব সহজে ঘুমন্ত ব্যক্তিকে ডেকে তোলা যায় না। এ সময় মানুষ স্বপ্ন দেখে এবং সকাল বেলায় তা মনে থাকে। তাই রেম ঘুমকে বলা হয় ‘স্বপ্নময় ঘুম’।

Photo: ঘুম কার কত ঘণ্টা প্রয়োজন</p />
<p>ঘুমিয়ে পড়া ও জেগে ওঠা চলে চক্রাকারে। এ দুটি বিষয় ঘুম নিয়ন্ত্রণে একসঙ্গে জুটি বেঁধে উচ্চ কুশলতায় কাজ করে, যার কাজ হলো ঘুম পাড়িয়ে দেওয়া, আবার ঘুম থেকে জাগিয়ে তোলা। একটি ‘এস’ ও অন্যটি ‘সি’ প্রক্রিয়া। প্রক্রিয়া ‘এস’ ঘুমের পরিমাণ ও তীব্রতা নির্ধারণ করে। এডিনোসাইনও এ জাতীয় ঘুম নিয়ন্ত্রণকারী রাসায়নিক পদার্থ, যাদের বলা হয় সমনোজেন। এগুলোর ভারসাম্য পূর্ণ হওয়ার সঙ্গে ঘুমের বিষয় জড়িত। ২-১২ মাস বয়স ও শিশু বয়সে এসব দ্রুত বাড়ার কারণে শিশু দিনে বেশিণ জেগে থাকতে পারে না, ঘুমে ঢলে পড়ে। প্রক্রিয়া ‘সি’ ২৪ ঘণ্টাব্যাপী ঘুমানোর সময়কাল ও ঘুম-জাগরণের প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করে। এর প্রধান ঘড়িটা মগজের ভেনট্রাল হাইপোথ্যালামাস অংশের ‘এসসিএন’ নিউকিয়াসে বসে থেকে হৃদযন্ত্র, রক্ত সরবরাহ তন্ত্র, হরমোন, কিডনি ও ফুসফুসে ছড়ায় এবং এগুলোকে প্রভাবিত ও বশীভূত করে কর্মযজ্ঞ সাজায়। ‘সিকারডিয়ান’ ঘড়ি আসলে ২৪ ঘণ্টারও বেশি সময়ের কাঁটা ধরে সাজানো থাকে। তাই এর মধ্যে থেকে কাজ করার জন্য তাকে প্রাকৃতিক পরিবেশের দ্বারস্থ হতে হয়, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ‘আলো-আঁধারি’ পরিবেশ।<br />
ঘনঘোর নিদ্রা : গভীর ঘুমের দু’টি সময় আছে, বেলা তিনটা থেকে বিকেল পাঁচটা এবং রাতের শেষ প্রহর তিনটা থেকে ভোর পাঁচটা। তেমনিভাবে সতর্ক জেগে থাকার সবচেয়ে ভালো সময় হলো দুটো, একটা মধ্যদুপুর , অন্যটা বিকেল। অর্থাৎ চোখজুড়ে প্রচণ্ড ঘুমস্রোত নেমে আসার পূর্বণ, যার অন্য নাম ‘দ্বিতীয় ঘুমঝড়’।<br />
ঘুমের নীতিমালা : ঘুমের শারীরবৃত্তের আরেকটা নীতিমালা হলো কম ঘুমের খেসারত সুদ-আসলে মিটিয়ে নেওয়া। ঘুমে ব্যাঘাত জমতে জমতে ঘুমের মূল্যে ঋণ করে চলে দীর্ঘদিন, যা পরবর্তী সময় অবশ্যই ফেরত পেতে চায় স্ব-উদ্যোগে বিভিন্ন পদপে নিয়ে। যেমন, দিবানিদ্রায় কাতর করে দিয়ে, দিনের মনোযোগ বিলুপ্ত করে, কয়েক সেকেন্ডের জন্য হলেও ুদ্র ঘুম ঢেউয়ে ভাসিয়ে নিয়ে গিয়ে। সর্বদা ঘুমে আচ্ছন্নভাব, নিরতিশয় কান্তি, ঘন ঘন হাই ওঠা, বিগড়ানো মেজাজ, হতাশ ভাব, মানসিক অবস্থার সদা পরিবর্তন, ক্রুদ্ধতা, শিরঃপীড়া, মাংশপেশীতে ব্যথা, লেখাপড়ায় খারাপ করা, স্কুলে ক্রমাগত পিছিয়ে পড়া। এসব উপসর্গ তৈরি হয় ভালোমতো ঘুমাতে না পারায়।<br />
ঘুমের বৈশিষ্ট্য : নবজাতক (০-২ মাস) : নবজাতক ২৪ ঘণ্টায় প্রায় ১০ থেকে ১৯ ঘণ্টা ঘুমাবে, অপরিণত শিশু খানিকটা বেশি। বুকের দুধ পানের শিশু একনাগাড়ে এক থেকে তিন ঘণ্টা ঘুমায়। অন্যদিকে, ফর্মুলার শিশু দুই থেকে পাঁচ ঘণ্টা একনাগাড়ে ঘুমায়। এক থেকে দুই ঘণ্টা জেগে থাকার বিরতি থাকে মাঝখানে। দিন-রাতে সমান হারে ঘুমায় বিশেষত প্রথম সপ্তাহ। পরে সাধারণত রাতে সাড়ে আট ঘণ্টা এবং দিনে সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার মতো ঘুমায়। এ সময়ে বাচ্চার ঘুমানো নিয়ে মা-বাবার ধারণার সঙ্গে পূর্ব পরিচয় না থাকায় অনেক অনুযোগ তৈরি হয়। তবে অতিরিক্ত কান্না, অস্থিরতা, নবজাতকের পেটব্যথা, জি-ই রিফাক্স, ফর্মুলা খাবারের প্রতিক্রিয়ায় ঘুম নাও হতে পারে। শিশুকে ঘুমের সময় যেন পিঠের ওপর শোয়ানো হয়, শক্ত ম্যাট্রেসে ও নরম বিছানায় নয়। বালিশ বা কমফোর্টারস ব্যবহার নিষেধ। অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যেন শিশুর বুক ও মাথা ঢাকা না থাকে।<br />
কোলের শিশু (২-১২ মাস) : মোট ঘুমের পরিমাণ ২৪ ঘণ্টায় ১২ থেকে ১৩ ঘণ্টার মতো। রাতে নয় থেকে ১০ ঘণ্টা এবং দিনে তিন-চার ঘণ্টার মতো। ঘুমে হাত-পা কামড়ানো, মাথা দোলানো-এ সব ভালো ঘুম না হওয়ার উপসর্গ বলে স্বীকৃত। ছয় সপ্তাহ থেকে তিন মাস বয়সের শিশু ঘুমের ব্যাপ্তি দখলে নিতে পারে।<br />
টলটলিয়ে হাঁটতে পারা শিশু (১-৩ বছর) : মোট দৈনিক ঘুম ১১ থেকে ১৩ ঘণ্টা। দিনের বেলায় দুবারের ঘুমের চাহিদা কমে ১৮ মাস বয়সে একবারে পরিণত হয়। অনিদ্রার ছাপ ফুটে ওঠে উপসর্গে। শিশুর বুদ্ধিবৃত্তি বিকাশে, ভাষা ও বাকশক্তি অর্জনে সুনিদ্রা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রাতে ঘুমের সময় ভয় পায়।<br />
স্কুল-পূর্ব বয়স (৩-৫ বছর) : রাতে নয় থেকে ১০ ঘণ্টা ঘুমায়। দিনে আর নাও ঘুমাতে পারে।  অনিদ্রার ফলস্বরূপ ঘুমে হাঁটা, ঘুমাতঙ্ক এসব লণ দেখা যায়। অনিদ্রা রোগ দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে।<br />
শৈশব (৬-১২ বছর) : নয় থেকে ১১ ঘণ্টার দৈনিক ঘুম। ভালো ঘুম না হলে ঘুমে শ্বাসরোধ লণ মেলে। টিভি, কম্পিউটার, ভিডিও গেমস ঘুম হরণের প্রধান কারণ। স্কুল ফলাফলে এর প্রভাব পড়ে।<br />
কৈশর-যৌবন (১২ বছরের বেশি বয়সে) : গড় ঘুম সময় দৈনিক সাত থেকে নয় ঘণ্টা। অনিদ্রার স্বরূপ অতিমাত্রায় ঘুমিয়ে পড়ার প্রবণতা ‘নারকোলেপসিতে’ প্রকাশ পায়। রাতে দেরিতে ঘুমানো, সপ্তাহ শেষে বন্ধের দিনে তা পুষিয়ে নেওয়া-এসব অস্বাভাবিক চিত্র তৈরি হয়। ফলাফল ভালো হয় না।<br />
আরেক ব্যাখ্যায় বলা হয়, বিজ্ঞানীরা ঘুমকে প্রধানত ২টি ভাগে ভাগ করেছেন। প্রথমটি ‘নন র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট ঘুম’ এবং দ্বিতীয়টি ‘র‌্যাপিড আই মুভমেন্ট ঘুম’। নন-রেম ঘুমকে আরো ৪ পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। প্রথম পর্যায়ে চোখ জড়িয়ে আসে, ক্রমেই ঘুম হতে থাকে। দ্বিতীয় পর্যায়ে গাঢ় ঘুম হয়। তারপর তৃতীয় গভীর ঘুম, এবং চতুর্থ গভীরতম ঘুম হয়। এভাবে প্রথম ভাগের চারটি স্তর পেরিয়ে পাতায় ঢাকা অেিগালক নড়াচড়া না করলে তাকেই বলে ‘নন-রেম ঘুম’। অপরদিকে এটি যদি দ্রুত নড়াচড়া করে তবে তাকে বলে ‘রেম ঘুম’।<br />
গবেষক ল করেছেন যে, ননরেম নিদ্রার সময় মস্তিষ্ক তরঙ্গ ক্রমে ধীর গতি হয়, ঘুমন্ত মানুষটি স্থির থাকে, অেিগালক নড়াচড়া করে না, শ্বাস-প্রশ্বাস ধীর গতিতে চলে, অনেকেই এই সময় নাক ডাকতে থাকে। চতুর্থ পর্যায়ে ঘুম গভীরতম হয় এবং তখন বৈজ্ঞানিক ক্রিয়াকাণ্ডও চলে সবচেয়ে ধীর গতিতে। আবার অন্যদিকে রেম ঘুম সবচেয়ে হালকা। এখানে অেিগালক নড়াচড়া করে শ্বাস-প্রশ্বাসে ছন্দ থাকে, মগজে রক্ত চলাচল বাড়ে। অঙ্গ-প্রত্যঙ্গও নড়াচড়া করে। আশ্চর্যের ব্যাপার এই ঘুমের পর্যায়গুলো চলে চক্রাকারে। যেমন, শুরুতেই ননরেম ঘুমের ১ম, ২য়, ৩য় ও চতুর্থ পর্যায় বা ধাপ এভাবে চলে ৯০ মিনিট। এরপর শুরু হয় রেম ঘুম যা ৫Ñ২০ মিনিট মাত্র থাকে। আবার শুরু হয় ৯০ মিনিটের পর্যায়, তারপর ৫Ñ২০ মিনিটের চক্র চলতে থাকে সারা রাত ব্যাপী।<br />
সুস্বাস্থ্যের অধিকারী একজন মানুষ গড়ে দৈনিক ৮ ঘণ্টা ঘুমালে পন্ডিত দেখেছেন যে, এর মধ্যে ৬ ঘণ্টা চলে ননরেম ঘুম এবং ২ ঘণ্টা চলে রেম ঘুম। কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদেরকে গবেষকগণ গড়ে দৈনিক ৮ ঘণ্টা ঘুমানোর পরামর্শ দিয়েছেন। ঘুমের প্রয়োজনীয়তা বয়স বাড়ার সাথে সাথে কমতে থাকে এবং ৫০ বছর পর ননরেম ঘুমের ৪র্থ পর্যায় অর্থাৎ গভীরতম ঘুম থেকে অনেকেই বঞ্চিত হন। তাতে কোনো অসুবিধা নেই। ননরেম ঘুমকে বলা হয় ‘গভীরতম ঘুম’ অথবা ‘স্বপ্নহীন ঘুম’। এ সময় স্বপ্ন থেকে ঘুমন্ত ব্যক্তিকে ডেকে তোলা সহজ। অপরদিকে রেম ঘুম স্তরে ঘুমটা খুব গভীর হয় না। অথচ এ সময় খুব সহজে ঘুমন্ত ব্যক্তিকে ডেকে তোলা যায় না। এ সময় মানুষ স্বপ্ন দেখে এবং সকাল বেলায় তা মনে থাকে। তাই রেম ঘুমকে বলা হয় ‘স্বপ্নময় ঘুম’।

 

মধুতে আছে ১৮১ উপকারী ভেষজ


সেই প্রাচীনকাল থেকে ঠান্ডা-কাশি সারাতে কবিরাজ-বদ্যিরা মধু ব্যবহার করে আসছেন। আমাদের দেশে শিশুদের ঠান্ডা লাগলে মধু, তুলসীর রস, আদার রস ইত্যাদির মিশ্রণ একটি উপকারী ওষুধ হিসেবে ব্যবহূত হয়। কিন্তু আসলেই মধু কাশি কমাতে সহায়ক কি না তা নিয়ে বিজ্ঞানভিত্তিক গবেষণা কখনো করা হয়নি।
২০১২ সালে এ নিয়ে একটি বৃহৎ গবেষণার পর সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও আমেরিকান পেডিয়াট্রিক সোসাইটি শিশুদের কাশি প্রশমনে মধু ব্যবহার করার পক্ষে মত দিয়েছে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, মধুতে অন্তত ১৮১ রকমের উপকারী ভেষজ উপাদান রয়েছে। এর অনেকগুলোই অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও জীবাণুরোধী বলে সংক্রমণ ঠেকাতে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।
মধু গেলার পর পরই গলা ও শ্বাসতন্ত্রের ঝিল্লির ওপর একটি জীবাণুরোধী আবরণ তৈরি করে। এতে জীবাণুর আক্রমণ থেকে ঝিল্লি বাঁচে। তাছাড়া গলার অনুভূতিবাহক স্নায়ুর কাজকর্মের ওপরও প্রভাব বিস্তার করে, ফলে খুসখুসে কাশি ও অস্বস্তিভাব থেকে রেহাই দেয়। জীবাণুরোধক উপাদান থাকার জন্য অনেক আগে থেকেই শল্য চিকিৎসকেরা ঘা বা ক্ষতস্থানের ড্রেসিংয়ে মধু ব্যবহার করে আসছেন। তবে কাশি প্রশমনে মধু ব্যবহার করার সময় দুটি বিষয়ের দিকে খেয়াল রাখা উচিত। এক. এক বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য এই পরামর্শ প্রণিধানযোগ্য নয়; দুই. মধু ঠিকভাবে সংরক্ষণ না করা হলে এ থেকে বটুলিনাম বিষক্রিয়া হতে পারে।

সূত্র- এবিসি হেলথ।

Photo: মধুতে আছে ১৮১ উপকারী ভেষজ</p />
<p>সেই প্রাচীনকাল থেকে ঠান্ডা-কাশি সারাতে কবিরাজ-বদ্যিরা মধু ব্যবহার করে আসছেন। আমাদের দেশে শিশুদের ঠান্ডা লাগলে মধু, তুলসীর রস, আদার রস ইত্যাদির মিশ্রণ একটি উপকারী ওষুধ হিসেবে ব্যবহূত হয়। কিন্তু আসলেই মধু কাশি কমাতে সহায়ক কি না তা নিয়ে বিজ্ঞানভিত্তিক গবেষণা কখনো করা হয়নি।<br />
২০১২ সালে এ নিয়ে একটি বৃহৎ গবেষণার পর সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও আমেরিকান পেডিয়াট্রিক সোসাইটি শিশুদের কাশি প্রশমনে মধু ব্যবহার করার পক্ষে মত দিয়েছে। বিজ্ঞানীরা বলছেন, মধুতে অন্তত ১৮১ রকমের উপকারী ভেষজ উপাদান রয়েছে। এর অনেকগুলোই অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ও জীবাণুরোধী বলে সংক্রমণ ঠেকাতে ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে।<br />
মধু গেলার পর পরই গলা ও শ্বাসতন্ত্রের ঝিল্লির ওপর একটি জীবাণুরোধী আবরণ তৈরি করে। এতে জীবাণুর আক্রমণ থেকে ঝিল্লি বাঁচে। তাছাড়া গলার অনুভূতিবাহক স্নায়ুর কাজকর্মের ওপরও প্রভাব বিস্তার করে, ফলে খুসখুসে কাশি ও অস্বস্তিভাব থেকে রেহাই দেয়। জীবাণুরোধক উপাদান থাকার জন্য অনেক আগে থেকেই শল্য চিকিৎসকেরা ঘা বা ক্ষতস্থানের ড্রেসিংয়ে মধু ব্যবহার করে আসছেন। তবে কাশি প্রশমনে মধু ব্যবহার করার সময় দুটি বিষয়ের দিকে খেয়াল রাখা উচিত। এক. এক বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য এই পরামর্শ প্রণিধানযোগ্য নয়; দুই. মধু ঠিকভাবে সংরক্ষণ না করা হলে এ থেকে বটুলিনাম বিষক্রিয়া হতে পারে। </p>
<p>সূত্র- এবিসি হেলথ।

 

দিনের ঘুম শিশুদের মেধাবী করতে সাহায্য করে

সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, দিনে ঘুম পাড়লে শিশুদের মেধার বিকাশ ঘটে।
শিশুদের দুপুরের ঘুমের অভ্যাস করা খুব ভালো। যতক্ষণ ঘুমাতে পারে ততই ভালো। এটি শিশুর মেধা ও স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য চমৎকার কাজ করে। বিশেষ করে যেসব শিশু এখনও স্কুলে যাওয়া শুরু করেনি, তাদের জন্য এ ঘুম খুবই দরকারি।
যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস আমহার্স্টের গবেষকরা দেখেছেন, স্কুলে যাওয়ার আগে বাসায় শিশুদের শিক্ষণের যে প্রক্রিয়াটা মা-বাবার কাছ থেকে শুরু হয়, তা ভালোভাবে মাথায় ধারণ করতে হলে বিকেলের ঘুমটা তাদের চাই-ই।
ওই গবেষণার অংশ হিসেবে শিশুদের সকাল বেলাটায় কিছু জিনিস শেখানো হয়। এটা ছিল অনেকটা ‘মনে রাখা-মনে রাখা’ খেলার মতো। এতে শিশুদের কিছু ছবি দেখানো হয়। তারপর বলা হয়, এগুলোর মধ্যে কী ধরনের পার্থক্য আছে এবং সেগুলো ঠিক কোথায়, তা মনে রাখতে। অংশগ্রহণকারী শিশুদের দুই ভাগে ভাগ করা হয়। এক ভাগ দিনের বেলায় ঘুমানোর সুযোগ পাওয়া আর বাকিদের দিনে ঘুমাতে দেওয়া হয়নি।
এতে বেশির ভাগ বিষয় ভুলে যাওয়াদের মধ্যে আগের দিন বিকেলে ঘুমোয়নি, এমন শিশুর সংখ্যাই বেশি। তাদের মধ্যে ৩৫ ভাগই ঠিকঠাক মতো মনে রাখতে পারেনি। আর যারা দিনের বেলা ঘুমিয়েছে, তাদের মধ্যে ঠিকঠাক মনে রাখতে পেরেছে এর সংখ্যা ৭৫ শতাংশ।
সম্প্রত ন্যাশনাল একাডেমী অব সায়েন্স সাময়িকী প্রসিডিংসে প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণার ফল। আর তাই গবেষকরা মত দিয়েছেন শিশুদের দিনের বেলায় ঘুম পাড়ানোর জন্য। নিয়মিত ঘুম পাড়লে শিশুদের মেধার বিকাশ যেমন ঘটবে, তেমনি সুস্থ্য সুন্দর জীবন যাপনে অভ্যস্ত হবে- এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

Photo: দিনের ঘুম শিশুদের মেধাবী করতে সাহায্য করে</p />
<p>সম্প্রতি এক গবেষণায় দেখা গেছে, দিনে ঘুম পাড়লে শিশুদের মেধার বিকাশ ঘটে।<br />
শিশুদের দুপুরের ঘুমের অভ্যাস করা খুব ভালো। যতক্ষণ ঘুমাতে পারে ততই ভালো। এটি শিশুর মেধা ও স্মৃতিশক্তি বাড়ানোর জন্য চমৎকার কাজ করে। বিশেষ করে যেসব শিশু এখনও স্কুলে যাওয়া শুরু করেনি, তাদের জন্য এ ঘুম খুবই দরকারি।<br />
যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস আমহার্স্টের গবেষকরা দেখেছেন, স্কুলে যাওয়ার আগে বাসায় শিশুদের শিক্ষণের যে প্রক্রিয়াটা মা-বাবার কাছ থেকে শুরু হয়, তা ভালোভাবে মাথায় ধারণ করতে হলে বিকেলের ঘুমটা তাদের চাই-ই।<br />
ওই গবেষণার অংশ হিসেবে শিশুদের সকাল বেলাটায় কিছু জিনিস শেখানো হয়। এটা ছিল অনেকটা ‘মনে রাখা-মনে রাখা’ খেলার মতো। এতে শিশুদের কিছু ছবি দেখানো হয়। তারপর বলা হয়, এগুলোর মধ্যে কী ধরনের পার্থক্য আছে এবং সেগুলো ঠিক কোথায়, তা মনে রাখতে। অংশগ্রহণকারী শিশুদের দুই ভাগে ভাগ করা হয়। এক ভাগ দিনের বেলায় ঘুমানোর সুযোগ পাওয়া আর বাকিদের দিনে ঘুমাতে দেওয়া হয়নি।<br />
এতে বেশির ভাগ বিষয় ভুলে যাওয়াদের মধ্যে আগের দিন বিকেলে ঘুমোয়নি, এমন শিশুর সংখ্যাই বেশি। তাদের মধ্যে ৩৫ ভাগই ঠিকঠাক মতো মনে রাখতে পারেনি। আর যারা দিনের বেলা ঘুমিয়েছে, তাদের মধ্যে ঠিকঠাক মনে রাখতে পেরেছে এর সংখ্যা ৭৫ শতাংশ।<br />
সম্প্রত ন্যাশনাল একাডেমী অব সায়েন্স সাময়িকী প্রসিডিংসে প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণার ফল। আর তাই গবেষকরা মত দিয়েছেন শিশুদের দিনের বেলায় ঘুম পাড়ানোর জন্য। নিয়মিত ঘুম পাড়লে শিশুদের মেধার বিকাশ যেমন ঘটবে, তেমনি সুস্থ্য সুন্দর জীবন যাপনে অভ্যস্ত হবে- এমনটাই আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

 

এনার্জি ড্রিঙ্ক কেড়ে নিচ্ছে আপনার হৃদয়ের সুখ!

একটু পরিশ্রম করে, যেমন ধরুন, অফিস থেকে হেঁটে আসলেন বাসায় কিংবা জিম করার পর অথবা হঠাৎই মনে হলো শরীরটা দুর্বল লাগছে; আর তখনই এক বোতল এনার্জি ড্রিঙ্ক ঢেলে দিলেন গলায়। পান করে ভাবলেন, শরীরে বেশ এনার্জি পাওয়া গেলো। এখন নিমিষেই নেমে পড়তে পারেন ছায়া ধরার খেলায় কিংবা ভাবতে পারেন তৈলাক্ত বাঁশ বেয়ে উপরে উঠতে আর ক্লান্তি নেই। অথবা এও ভাবতে পারেন যে, এনার্জি ড্রিঙ্ক পানের পর আপনি রকস্টার হয়ে যাবেন। নয়তো আপনার শরীরে আসবে এতো শক্তি, এতো শক্তি, যে কোন কিছুইতেই হয়রান হবেন না। চটকদার বিজ্ঞাপনে আপনাকে ভুলিয়ে ধীরে অভ্যস্ত করে ফেলা হচ্ছে এনার্জি ড্রিঙ্কে। অথচ এই সব এনার্জি ড্রিঙ্ক কতোটা স্বাস্থের জন্য উপকারী ভেবে দেখেছেন কি?
সম্প্রতি এই বিষয়ের উপর বিস্তর গবেষণা করে স্পেনের ইউরোপিয়ান সোসাইটি অব কার্ডিওলজি কংগ্রেসে গবেষণাপত্র জমা দিয়েছেন অধ্যাপক ড্যানিয়েল। গবেষণাপত্রে তিনি উল্লেখ করেছেন, শরীরে ইনস্ট্যান্ট এনার্জি বাড়াতে এইসব এনার্জি ড্রিঙ্ক খুবই জনপ্রিয়, এবং অনেকেই বোতল বোতল এনার্জি ড্রিঙ্ক পান করছেন আর ভাবছেন শরীরের উপকার হচ্ছে, কিন্তু সত্য এই, ব্যাপারটা মোটেও সেরকম রয়। বরং এটি পান করে আমরা নিজেরাই ক্ষতি করে ফেলছি আমাদের হার্টের। এনার্জি ড্রিঙ্ক পানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসাবে এনজিনা , অনিয়মিত হৃদস্পন্দন, স্নায়বিক দুর্বলতা সহ নানা সমস্যা ডেনে আনছি আমাদের শরীরে। এবং এর ফলে অকস্মাৎ মৃত্যু হওয়াটাও অস্বাভাবিক কিছু না।

এখন নিশ্চয়ই জানতে চাইবেন, কেন এমনটা হয়? তাই তো?
আচ্ছা বলছি, শুনুন। এইসব এনার্জি ড্রিঙ্কের অধিকাংশে মেশানো থাকে ক্যাফেইন। আর ক্যাফেইন কার্ডিয়াক কোষে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ দেয় বাড়িয়ে। যার কারণে হার্টের অক্সিজেন গ্রহণ করার ক্ষমতা যায় কমে। যার কারণে আপনার হার্টবিটের সমস্যা হবে। আর এ রোগের নাম অ্যারিথমিয়া। অধ্যাপক ড্যানিয়েল আরো জানিয়েছেন, নিয়মিত এনার্জি ড্রিঙ্ক গ্রহণকারীদের শতকরা ৭৪ জন সাইকিয়াট্রিক, ৫৭ জন নিউরোলজিক্যাল, ১৩ জন এনজিনা এবং ৩ জন হাইপারটেনশনের মতো রোগের শিকার হয়েছেন। সাথে আছে ক্যাফাইনো সিনড্রোম।
এখন আপনিই বুঝুন, এনার্জি ড্রিঙ্ক আপনার এনার্জি কতোটা বাড়াচ্ছে! নাকি বারোটা বাজাচ্ছে আপনার হার্টের, মানে হৃদয়ের?

Photo: এনার্জি ড্রিঙ্ক কেড়ে নিচ্ছে আপনার হৃদয়ের সুখ!</p />
<p>একটু পরিশ্রম করে, যেমন ধরুন, অফিস থেকে হেঁটে আসলেন বাসায় কিংবা জিম করার পর অথবা হঠাৎই মনে হলো শরীরটা দুর্বল লাগছে; আর তখনই এক বোতল এনার্জি ড্রিঙ্ক ঢেলে দিলেন গলায়। পান করে ভাবলেন, শরীরে বেশ এনার্জি পাওয়া গেলো। এখন নিমিষেই নেমে পড়তে পারেন ছায়া ধরার খেলায় কিংবা ভাবতে পারেন তৈলাক্ত বাঁশ বেয়ে উপরে উঠতে আর ক্লান্তি নেই। অথবা এও ভাবতে পারেন যে, এনার্জি ড্রিঙ্ক পানের পর আপনি রকস্টার হয়ে যাবেন। নয়তো আপনার শরীরে আসবে এতো শক্তি, এতো শক্তি, যে কোন কিছুইতেই হয়রান হবেন না। চটকদার বিজ্ঞাপনে আপনাকে ভুলিয়ে ধীরে অভ্যস্ত করে ফেলা হচ্ছে এনার্জি ড্রিঙ্কে। অথচ এই সব এনার্জি ড্রিঙ্ক কতোটা স্বাস্থের জন্য উপকারী ভেবে দেখেছেন কি?<br />
সম্প্রতি এই বিষয়ের উপর বিস্তর গবেষণা করে স্পেনের ইউরোপিয়ান সোসাইটি অব কার্ডিওলজি কংগ্রেসে গবেষণাপত্র জমা দিয়েছেন অধ্যাপক ড্যানিয়েল। গবেষণাপত্রে তিনি উল্লেখ করেছেন, শরীরে ইনস্ট্যান্ট এনার্জি বাড়াতে এইসব এনার্জি ড্রিঙ্ক খুবই জনপ্রিয়, এবং অনেকেই বোতল বোতল এনার্জি ড্রিঙ্ক পান করছেন আর ভাবছেন শরীরের উপকার হচ্ছে, কিন্তু সত্য এই, ব্যাপারটা মোটেও সেরকম রয়। বরং এটি পান করে আমরা নিজেরাই ক্ষতি করে ফেলছি আমাদের হার্টের। এনার্জি ড্রিঙ্ক পানের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসাবে এনজিনা , অনিয়মিত হৃদস্পন্দন, স্নায়বিক দুর্বলতা সহ নানা সমস্যা ডেনে আনছি আমাদের শরীরে। এবং এর ফলে অকস্মাৎ মৃত্যু হওয়াটাও অস্বাভাবিক কিছু না।</p>
<p>এখন নিশ্চয়ই জানতে চাইবেন, কেন এমনটা হয়? তাই তো?<br />
আচ্ছা বলছি, শুনুন। এইসব এনার্জি ড্রিঙ্কের অধিকাংশে মেশানো থাকে ক্যাফেইন। আর ক্যাফেইন কার্ডিয়াক কোষে ক্যালসিয়ামের পরিমাণ দেয় বাড়িয়ে। যার কারণে হার্টের অক্সিজেন গ্রহণ করার ক্ষমতা যায় কমে। যার কারণে আপনার হার্টবিটের সমস্যা হবে। আর এ রোগের নাম অ্যারিথমিয়া। অধ্যাপক ড্যানিয়েল আরো জানিয়েছেন, নিয়মিত এনার্জি ড্রিঙ্ক গ্রহণকারীদের শতকরা ৭৪ জন সাইকিয়াট্রিক, ৫৭ জন নিউরোলজিক্যাল, ১৩ জন এনজিনা এবং ৩ জন হাইপারটেনশনের মতো রোগের শিকার হয়েছেন। সাথে আছে ক্যাফাইনো সিনড্রোম।<br />
এখন আপনিই বুঝুন, এনার্জি ড্রিঙ্ক আপনার এনার্জি কতোটা বাড়াচ্ছে! নাকি বারোটা বাজাচ্ছে আপনার হার্টের, মানে হৃদয়ের?

 

শরীরের যে ৫টি স্থানের ব্যথাকে অবহেলা করবেন না ভুল করেও!

আমাদের শরীরের নানান স্থানে মাঝে মাঝে টুকটাক ব্যথা হয়। কখনো কম কখনো বেশি এসব ব্যথাকে অধিকাংশ সময়েই আমরা কোনো গুরুত্ব দেই না। অথচ এসব ব্যথাই হতে পারে অনেক বড় কোনো সমস্যার প্রাথমিক লক্ষণ! ডেকে আনতে পারে মৃত্যু পর্যন্ত! তাই এসব ব্যাথাকে সব সময়ে অবহেলা করা কিংবা ঘরোয়া চিকিৎসা করা একেবারেই উচিত নয়। তাই জেনে নেয়া উচিত কোন কোন ধরণের ব্যথাকে হেলাফেলা না করে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত সে সম্পর্কে। জেনে নিন কিছু শারীরিক ব্যথা সম্পর্কে যেগুলো অবহেলা করা একেবারেই উচিত নয়।

যে দাঁত ব্যথায় ঘুম ভেঙে যায়
আপনার যদি দাঁত ব্যাথার মাত্রা এতোটাই বৃদ্ধি পায় যে মাঝ রাতে গভীর ঘুমও দাঁত ব্যথার কারণে ভেঙে যায়, তাহলে আপনার দ্রুত দাঁতের ডাক্তার দেখানো উচিত। দাঁতের ছিদ্রের মাধ্যমে ইনফেকশন মাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়ার কারণে এই ধরণের দাঁত ব্যথা হতে পারে আপনার।
হঠাৎ মাথায় অসহ্য ব্যথা
হঠাৎ করে যদি মাথায় অস্বাভাবিক ব্যথা ওঠে এবং মাথার ব্যথায় আপনি চোখে ঘোলা দেখতে আরম্ভ করেন তাহলে বিষয়টিকে অবহেলা করা একেবারেই উচিত হবে না। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, কোনো আঘাত, টিউমার ইত্যাদি কারণে এধরণের অস্বাভাবিক ব্যথা হতে পারে আপনার মাথায়। তাই এই পরিস্থিতিতে জরুরীভিত্তিতে ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে যান।
তল পেটের ডান দিকের ব্যথা
এধরণের ব্যথা যদি আপনার ২৪ ঘন্টার বেশি সময় পর্যন্ত থাকে এবং কিছুটা নড়াচড়া করে ব্যাথার স্থান তাহলে এটা হতে পারে অ্যাপেন্ডিসাইটিসের লক্ষণ। এই অবস্থায় আপনাকে জরুরী ভিত্তিতে অপারেশন করাতে হতে পারে। তাই এধরণের ব্যথায় জরুরিভিত্তিতে ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত।
পিঠের মাঝামাঝি স্থানে ব্যথা এবং জ্বর
আপনার পিঠের মধ্যভাগের ব্যথা, জ্বর এবং ক্লান্তিকে একদমই অবহেলা করবেন না। কারণ এগুলো হতে পারে কিডনি সমস্যার লক্ষণ। কিডনিতে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ এবং ইউরিন ইনফেকশনের জন্য এধরণের ব্যাথা হতে পারে আপনার।
মাসিকের সময়ে অস্বাভাবিক পেট ব্যাথা
মাসিকের সময়ে যদি অস্বাভাবিক পেটে ব্যথা থাকে এবং সেই ব্যথা সহজে না কমে তাহলে এটাকে অবহেলা করবেন না। কারণ নানান ধরণের গাইনি সমস্যার কারণে মাসিকে তীব্র ব্যথা হতে পারে। তাই এই পরিস্থিতিতে ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়ার চেষ্টা করুন দ্রুত।

Photo: শরীরের যে ৫টি স্থানের ব্যথাকে অবহেলা করবেন না ভুল করেও!</p />
<p>আমাদের শরীরের নানান স্থানে মাঝে মাঝে টুকটাক ব্যথা হয়। কখনো কম কখনো বেশি এসব ব্যথাকে অধিকাংশ সময়েই আমরা কোনো গুরুত্ব দেই না। অথচ এসব ব্যথাই হতে পারে অনেক বড় কোনো সমস্যার প্রাথমিক লক্ষণ! ডেকে আনতে পারে মৃত্যু পর্যন্ত! তাই এসব ব্যাথাকে সব সময়ে অবহেলা করা কিংবা ঘরোয়া চিকিৎসা করা একেবারেই উচিত নয়। তাই জেনে নেয়া উচিত কোন কোন ধরণের ব্যথাকে হেলাফেলা না করে চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত সে সম্পর্কে। জেনে নিন কিছু শারীরিক ব্যথা সম্পর্কে যেগুলো অবহেলা করা একেবারেই উচিত নয়।</p>
<p>যে দাঁত ব্যথায় ঘুম ভেঙে যায়<br />
আপনার যদি দাঁত ব্যাথার মাত্রা এতোটাই বৃদ্ধি পায় যে মাঝ রাতে গভীর ঘুমও দাঁত ব্যথার কারণে ভেঙে যায়, তাহলে আপনার দ্রুত দাঁতের ডাক্তার দেখানো উচিত। দাঁতের ছিদ্রের মাধ্যমে ইনফেকশন মাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়ার কারণে এই ধরণের দাঁত ব্যথা হতে পারে আপনার।<br />
হঠাৎ মাথায় অসহ্য ব্যথা<br />
হঠাৎ করে যদি মাথায় অস্বাভাবিক ব্যথা ওঠে এবং মাথার ব্যথায় আপনি চোখে ঘোলা দেখতে আরম্ভ করেন তাহলে বিষয়টিকে অবহেলা করা একেবারেই উচিত হবে না। মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ, কোনো আঘাত, টিউমার ইত্যাদি কারণে এধরণের অস্বাভাবিক ব্যথা হতে পারে আপনার মাথায়। তাই এই পরিস্থিতিতে জরুরীভিত্তিতে ডাক্তারের শরণাপন্ন হয়ে যান।<br />
তল পেটের ডান দিকের ব্যথা<br />
এধরণের ব্যথা যদি আপনার ২৪ ঘন্টার বেশি সময় পর্যন্ত থাকে এবং কিছুটা নড়াচড়া করে ব্যাথার স্থান তাহলে এটা হতে পারে অ্যাপেন্ডিসাইটিসের লক্ষণ। এই অবস্থায় আপনাকে জরুরী ভিত্তিতে অপারেশন করাতে হতে পারে। তাই এধরণের ব্যথায় জরুরিভিত্তিতে ডাক্তারের কাছে যাওয়া উচিত।<br />
পিঠের মাঝামাঝি স্থানে ব্যথা এবং জ্বর<br />
আপনার পিঠের মধ্যভাগের ব্যথা, জ্বর এবং ক্লান্তিকে একদমই অবহেলা করবেন না। কারণ এগুলো হতে পারে কিডনি সমস্যার লক্ষণ। কিডনিতে ব্যাকটেরিয়ার আক্রমণ এবং ইউরিন ইনফেকশনের জন্য এধরণের ব্যাথা হতে পারে আপনার।<br />
মাসিকের সময়ে অস্বাভাবিক পেট ব্যাথা<br />
মাসিকের সময়ে যদি অস্বাভাবিক পেটে ব্যথা থাকে এবং সেই ব্যথা সহজে না কমে তাহলে এটাকে অবহেলা করবেন না। কারণ নানান ধরণের গাইনি সমস্যার কারণে মাসিকে তীব্র ব্যথা হতে পারে। তাই এই পরিস্থিতিতে ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়ার চেষ্টা করুন দ্রুত।

 

৯টি ভয়ংকর সত্যি, যা আপনাকে ডাক্তাররা জানান না!

অনেক সময় কোনো ওষুধ একটি রোগ সারিয়ে তুললে, সেই ওষুধই অন্য একটি অসুখকে আমন্ত্রণ জানিয়ে রাখে। এমনকি এক্স রে রশ্মিও আমাদের শরীরে ক্যান্সারের মতো মারণ রোগের জন্ম দেয়।

ওষুধের প্রভাবে কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে

১. ওষুধে ডায়াবিটিস বাড়তে পারে:সাধারণত ইনসুলিনের অভাবে ডায়াবিটিস হয়। কিন্তু খুব কম লোকই জানেন যে, বেশ কয়েকটি ওষুধের প্রভাবে ডায়াবিটিস হতে পারে। অ্যান্টি ডিপ্রেসেন্ট, ঘুমের ওষুধ, কাফ সিরাপ এবং বাচ্চাদের এডিএইচডি (অতিসক্রিয়তা) ওষুধ থেকে মধুমেহ বাড়তে পারে। এই ওষুধের প্রভাবে শরীরে ইনসুলিন কমে যায়, যার ফলে ব্যক্তি মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হয়।

২. কোনো কারণ ছাড়াই লাগানো হয় কয়েকটি ভ্যাক্সিন: বেশ কয়েকটি ভ্যাক্সিন ফ্লু ভাইরাস ছড়াতে সাহায্য করে, যেমন- ডিটিএপি, যা বাচ্চাদের দেওয়া হয়। তবে বি পারটিউসিসের মতো সাধারণ রোগের মোকাবিলায় এই ভ্যাক্সিন দেয়া হয়। কিন্তু ডিটিএপি ভ্যাক্সিন ফুসফুসের ইনফেকশানকে আমন্ত্রণ জানায়, যা ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ শক্তিকে দুর্বল করে দেয়।

৩. ক্যান্সার সব সময় ক্যান্সার নয়: স্ত্রী-পুরুষ উভয়েরই ক্যান্সার হতে পারে। কিন্তু অধিকাংশ চিকিৎসকই স্তন ক্যান্সার চিনতে পারেন না। অনেক সময় স্তনে কোনো গাঁঠ বা জমাট অংশ দেখে, ক্যান্সার মনে করে তার চিকিত্‍‌সা করা হয়। যা বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে ক্যান্সার হয় না। উদাহরণ স্বরূপ- হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি শুধু এই আশঙ্কায় ম্যাসেকটমি করান, যে তার শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী জিন পাওয়া গিয়েছে।

৪. ওষুধেও ক্যান্সার হয়: রক্তচাপের ওষুধে ক্যান্সার সৃষ্টির সম্ভাবনা তিন গুণ বৃদ্ধি পায়। কারণ, রক্তচাপের ওষুধ শরীরে ক্যালসিয়াম চ্যানেল ব্লকারের সংখ্যা বাড়িয়ে দেয়, যার ফলে শরীরে কোষের মৃত্যু বেড়ে যায়। যার ফলে মৃত কোষ ক্যান্সারের সৃষ্টিতে একত্রিত হয়।

৫. অ্যাসপিরিন নিলে শরীরে ইন্টারনাল ব্লিডিংয়ের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়: হার্ট অ্যাটাক বা রক্ত জমাট বাঁধা আটকাতে যে অ্যাসপিরিন দেওয়া হয়, তা ইন্টারনাল ব্লিডিংয়ের আশঙ্কা প্রায় ১০০ গুণ বাড়িয়ে দেয়। অ্যাসপিরিনের প্রভাবে শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ দুর্বল হয়ে যায় এবং রক্ত পড়তে শুরু করে। একটি সমীক্ষায় পাওয়া গিয়েছে, যে রোগীরা দৈনিক অ্যাসপিরিন খান, তাদের মধ্যে প্রায় ১০ হাজার রোগীর ইন্টারনাল ব্লিডিং হয়।

৬. এক্স-রে থেকে ক্যান্সার হয়: আপনারা কি জানেন, এক্স রে-র র্যা ডিয়োঅ্যাক্টিভ রশ্মি ক্যান্সার জন্ম দেয়। একটি সাধারণ এক্স রে-র ফলে শরীরের যে ক্ষতি হয়, তা সেরে উঠতে অন্তত এক বছর সময় লাগে।

৭. বুকে জ্বালার ওষুধ অন্ত্রের আলসারকে আমন্ত্রণ জানায়: অনেক সময় খাবার বা জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ব্যক্তির পেটের অসুখ হয়। এর ফলে বুকে জ্বালাও হতে পারে। এর জন্য চিকিত্‍‌সকরা অ্যান্টি-গ্যাসট্রিক ওষুধ দিয়ে থাকেন। এই ওষুধের ফলে অন্ত্রের আলসারের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। পাশাপাশি হাড় ক্ষয় পেতে শুরু করে, শরীরে ভিটামিন বি-১২ অ্যাবজর্ব করার ক্ষমতা কমে যায়। কিছু ওষুধ অসুখ সারিয়ে তুলতে পারে না, তবে তাদের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শরীরে পক্ষে খুব ক্ষতিকারক।

৮. ওষুধ এবং ল্যাব টেস্টে কমিশন পান চিকিত্‍‌সকরা: ওষুধে অনেক কমিশন পান চিকিত্‍‌সকরা। আবার কোনও বিশেষ ল্যাবরেটরিতে চিকিত্‍‌সকরা টেস্ট করানোর কথা বলেন, সেখান থেকেও ভালো কমিশন পান তারা।

৯. সর্দির কোনও ওষুধ নেই: নাকের ভেতরের অংশ ফুলে গেলে সর্দি হয়। এখনো চিকিত্‍‌সা বিজ্ঞান এর কারণ খুঁজে বার করতে পারেনি। এর কোনো কার্যকরী চিকিত্‍‌সাও খুঁজে বার করা যায়নি। সর্দি হলে চিকিত্‍‌সকরা অ্যান্টি-বায়োটিকস প্রেসক্রাইব করে থাকেন। কিন্তু বেশ কয়েকটি গবেষণায় জানা গিয়েছে, ৪-৭ দিনের মধ্যে সর্দি নিজেই ঠিক হয়ে যায়। সর্দিতে ওষুধের কোনো প্রভাবই পড়ে না।

– ওয়েবসাইট।

Photo: ৯টি ভয়ংকর সত্যি, যা আপনাকে ডাক্তাররা জানান না!</p />
<p>অনেক সময় কোনো ওষুধ একটি রোগ সারিয়ে তুললে, সেই ওষুধই অন্য একটি অসুখকে আমন্ত্রণ জানিয়ে রাখে। এমনকি এক্স রে রশ্মিও আমাদের শরীরে ক্যান্সারের মতো মারণ রোগের জন্ম দেয়।</p>
<p>ওষুধের প্রভাবে কী কী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে</p>
<p>১. ওষুধে ডায়াবিটিস বাড়তে পারে:সাধারণত ইনসুলিনের অভাবে ডায়াবিটিস হয়। কিন্তু খুব কম লোকই জানেন যে, বেশ কয়েকটি ওষুধের প্রভাবে ডায়াবিটিস হতে পারে। অ্যান্টি ডিপ্রেসেন্ট, ঘুমের ওষুধ, কাফ সিরাপ এবং বাচ্চাদের এডিএইচডি (অতিসক্রিয়তা) ওষুধ থেকে মধুমেহ বাড়তে পারে। এই ওষুধের প্রভাবে শরীরে ইনসুলিন কমে যায়, যার ফলে ব্যক্তি মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হয়।</p>
<p>২. কোনো কারণ ছাড়াই লাগানো হয় কয়েকটি ভ্যাক্সিন: বেশ কয়েকটি ভ্যাক্সিন ফ্লু ভাইরাস ছড়াতে সাহায্য করে, যেমন- ডিটিএপি, যা বাচ্চাদের দেওয়া হয়। তবে বি পারটিউসিসের মতো সাধারণ রোগের মোকাবিলায় এই ভ্যাক্সিন দেয়া হয়। কিন্তু ডিটিএপি ভ্যাক্সিন ফুসফুসের ইনফেকশানকে আমন্ত্রণ জানায়, যা ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ শক্তিকে দুর্বল করে দেয়।</p>
<p>৩. ক্যান্সার সব সময় ক্যান্সার নয়: স্ত্রী-পুরুষ উভয়েরই ক্যান্সার হতে পারে। কিন্তু অধিকাংশ চিকিৎসকই স্তন ক্যান্সার চিনতে পারেন না। অনেক সময় স্তনে কোনো গাঁঠ বা জমাট অংশ দেখে, ক্যান্সার মনে করে তার চিকিত্‍‌সা করা হয়। যা বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে ক্যান্সার হয় না। উদাহরণ স্বরূপ- হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি শুধু এই আশঙ্কায় ম্যাসেকটমি করান, যে তার শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী জিন পাওয়া গিয়েছে।</p>
<p>৪. ওষুধেও ক্যান্সার হয়: রক্তচাপের ওষুধে ক্যান্সার সৃষ্টির সম্ভাবনা তিন গুণ বৃদ্ধি পায়। কারণ, রক্তচাপের ওষুধ শরীরে ক্যালসিয়াম চ্যানেল ব্লকারের সংখ্যা বাড়িয়ে দেয়, যার ফলে শরীরে কোষের মৃত্যু বেড়ে যায়। যার ফলে মৃত কোষ ক্যান্সারের সৃষ্টিতে একত্রিত হয়।</p>
<p>৫. অ্যাসপিরিন নিলে শরীরে ইন্টারনাল ব্লিডিংয়ের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়: হার্ট অ্যাটাক বা রক্ত জমাট বাঁধা আটকাতে যে অ্যাসপিরিন দেওয়া হয়, তা ইন্টারনাল ব্লিডিংয়ের আশঙ্কা প্রায় ১০০ গুণ বাড়িয়ে দেয়। অ্যাসপিরিনের প্রভাবে শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ দুর্বল হয়ে যায় এবং রক্ত পড়তে শুরু করে। একটি সমীক্ষায় পাওয়া গিয়েছে, যে রোগীরা দৈনিক অ্যাসপিরিন খান, তাদের মধ্যে প্রায় ১০ হাজার রোগীর ইন্টারনাল ব্লিডিং হয়।</p>
<p>৬. এক্স-রে থেকে ক্যান্সার হয়: আপনারা কি জানেন, এক্স রে-র র্যা ডিয়োঅ্যাক্টিভ রশ্মি ক্যান্সার জন্ম দেয়। একটি সাধারণ এক্স রে-র ফলে শরীরের যে ক্ষতি হয়, তা সেরে উঠতে অন্তত এক বছর সময় লাগে।</p>
<p>৭. বুকে জ্বালার ওষুধ অন্ত্রের আলসারকে আমন্ত্রণ জানায়: অনেক সময় খাবার বা জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে ব্যক্তির পেটের অসুখ হয়। এর ফলে বুকে জ্বালাও হতে পারে। এর জন্য চিকিত্‍‌সকরা অ্যান্টি-গ্যাসট্রিক ওষুধ দিয়ে থাকেন। এই ওষুধের ফলে অন্ত্রের আলসারের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। পাশাপাশি হাড় ক্ষয় পেতে শুরু করে, শরীরে ভিটামিন বি-১২ অ্যাবজর্ব করার ক্ষমতা কমে যায়। কিছু ওষুধ অসুখ সারিয়ে তুলতে পারে না, তবে তাদের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শরীরে পক্ষে খুব ক্ষতিকারক।</p>
<p>৮. ওষুধ এবং ল্যাব টেস্টে কমিশন পান চিকিত্‍‌সকরা: ওষুধে অনেক কমিশন পান চিকিত্‍‌সকরা। আবার কোনও বিশেষ ল্যাবরেটরিতে চিকিত্‍‌সকরা টেস্ট করানোর কথা বলেন, সেখান থেকেও ভালো কমিশন পান তারা।</p>
<p>৯. সর্দির কোনও ওষুধ নেই: নাকের ভেতরের অংশ ফুলে গেলে সর্দি হয়। এখনো চিকিত্‍‌সা বিজ্ঞান এর কারণ খুঁজে বার করতে পারেনি। এর কোনো কার্যকরী চিকিত্‍‌সাও খুঁজে বার করা যায়নি। সর্দি হলে চিকিত্‍‌সকরা অ্যান্টি-বায়োটিকস প্রেসক্রাইব করে থাকেন। কিন্তু বেশ কয়েকটি গবেষণায় জানা গিয়েছে, ৪-৭ দিনের মধ্যে সর্দি নিজেই ঠিক হয়ে যায়। সর্দিতে ওষুধের কোনো প্রভাবই পড়ে না।</p>
<p>– ওয়েবসাইট।

 

প্রোস্টেট গ্রন্থির ক্যান্সার আটকায় পেঁপে


পাকলে ফল, কাচা তো সবুজ। এই হলো পেঁপের ম্যাজিক। পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণের হজমকারী এনজাইম পেপেন বিদ্যমান। পাতায় অ্যালকালয়েড, গ্লুকোসাইড এবং ফলে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন আছে। কাঁচা অবস্থায় সুস্বাদু না হলেও নিরামিষ হিসাবে কাঁচা পেঁপের ব্যবহার খুবই প্রচলিত। আর পুষ্টিগুণ বিবেচনায় পেঁপে একটি মূল্যবান ফল। এর বৈজ্ঞানিক নাম Carica Papaya. মেক্সিকো এবং সেন্ট্রাল আমেরিকায় এর জন্ম হলেও নিজ গুণে পেঁপে এখন সারাবিশ্বেই সমাদৃত। এর অনেক রোগ নিরাময় ক্ষমতা আছে। হজমকারী হিসাবে পেঁপে খুবই জনপ্রিয়। পেঁপেতে পেপেইন (Papain) নামে প্রাপ্ত উপাদান প্রোটিনকে হজম করে সহজেই এবং সমগ্র পরিপাকতন্ত্রকে পরিষ্কার করে। ওজন কমাতে পেঁপে বেশ সহায়ক। পাকা পেঁপে অর্শরোগ ও কোষ্ঠকাঠিন্য রোগে হিতকর। পেঁপেকে বলা হয় পুষ্টি উপাদানের ‘রাজভাণ্ডার’।

গবেষকদের মতে লাইকোপিন ক্যান্সার প্রতিরোধী। পুষ্টি বিবেচনায় পেঁপে অনেক ফলের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। কমলার চেয়ে পেঁপেতে ৩৩% ভিটামিন ‘সি’ এবং ৫০% বেশি পটাশিয়াম রয়েছে। অন্যদিকে আপেলের চেয়ে পেঁপেতে তেরগুণ বেশি ভিটামিন ‘সি’ এবং দ্বিগুণ পরিমাণ বেশি পটাশিয়াম বিদ্যমান। আপেল ও কমলার চেয়ে পেঁপেতে ভিটামিন ‘ই’-এর পরিমাণও চারগুণ বেশি।
পেঁপে পুরুষের প্রোস্টেট গ্রন্থির ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। কানসাস স্টেট ইউনির্ভাসিটির এক গবেষণা তথ্যে জানা যায়, ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ পাকা পেঁপে ধূমপানের কুফল এড়াতে সাহায্য করে। ফুসফুসের রোগের ঝুঁকি কমাতে ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ খাবার খুবই প্রয়োজন।

শরীরের মেদ ঝরাতে যাঁরা তৎপর, তাঁদের খাদ্যতালিকায় পেঁপে রাখুন। একদিকে যেমন কম ক্যালরি আছে, অন্যদিকে থাকা আঁশ পেট ভরা রাখতে সাহায্য করে। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে সবজি হিসেবে পেঁপে অনন্য।চোখ ভালো রাখতে, এর ভিটামিন-এ চোখ ভালো রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া বয়সজনিত ক্ষীণদৃষ্টি রোগ প্রতিরোধেও পেঁপের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। এবাদেও, পেঁপের মধ্যে থাকা উপাদানগুলো বয়সের ছাপ লুকিয়ে ফেলতে খুব দক্ষ। নিয়মিত পেঁপে খেলে ত্বকে বলিরেখা পড়ার প্রবণতা ধীর হয়ে।

উপাদান পরিমাণ
প্রোটিন ০.৬ গ্রাম
ফ্যাট ০.১ গ্রাম
মিনারেল ০.৫ গ্রাম
ফাইবার ০.৮ গ্রাম
কার্বোহাইড্রেড ৭.২ গ্রাম
খাদ্যশক্তি ৩২ কিলোক্যালরি
ভিটামিন সি ৫৭ মিলিগ্রাম
সোডিয়াম ৬.০ মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম ৬৯ মিলিগ্রাম
আয়রন ০.৫ মিলিগ্রাম


– ওয়েবসাইট।

Photo: প্রোস্টেট গ্রন্থির ক্যান্সার আটকায় পেঁপে</p />
<p>পাকলে ফল, কাচা তো সবুজ। এই হলো পেঁপের ম্যাজিক। পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণের হজমকারী এনজাইম পেপেন বিদ্যমান। পাতায় অ্যালকালয়েড, গ্লুকোসাইড এবং ফলে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন আছে। কাঁচা অবস্থায় সুস্বাদু না হলেও নিরামিষ হিসাবে কাঁচা পেঁপের ব্যবহার খুবই প্রচলিত। আর পুষ্টিগুণ বিবেচনায় পেঁপে একটি মূল্যবান ফল। এর বৈজ্ঞানিক নাম Carica Papaya. মেক্সিকো এবং সেন্ট্রাল আমেরিকায় এর জন্ম হলেও নিজ গুণে পেঁপে এখন সারাবিশ্বেই সমাদৃত। এর অনেক রোগ নিরাময় ক্ষমতা আছে। হজমকারী হিসাবে পেঁপে খুবই জনপ্রিয়। পেঁপেতে পেপেইন (Papain) নামে প্রাপ্ত উপাদান প্রোটিনকে হজম করে সহজেই এবং সমগ্র পরিপাকতন্ত্রকে পরিষ্কার করে। ওজন কমাতে পেঁপে বেশ সহায়ক। পাকা পেঁপে অর্শরোগ ও কোষ্ঠকাঠিন্য রোগে হিতকর।  পেঁপেকে বলা হয় পুষ্টি উপাদানের ‘রাজভাণ্ডার’।</p>
<p>গবেষকদের মতে লাইকোপিন ক্যান্সার প্রতিরোধী। পুষ্টি বিবেচনায় পেঁপে অনেক ফলের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে। কমলার চেয়ে পেঁপেতে ৩৩% ভিটামিন ‘সি’ এবং ৫০% বেশি পটাশিয়াম রয়েছে। অন্যদিকে আপেলের চেয়ে পেঁপেতে তেরগুণ বেশি ভিটামিন ‘সি’ এবং দ্বিগুণ পরিমাণ বেশি পটাশিয়াম বিদ্যমান। আপেল ও কমলার চেয়ে পেঁপেতে ভিটামিন ‘ই’-এর পরিমাণও চারগুণ বেশি।<br />
পেঁপে পুরুষের প্রোস্টেট গ্রন্থির ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। কানসাস স্টেট ইউনির্ভাসিটির এক গবেষণা তথ্যে জানা যায়, ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ পাকা পেঁপে ধূমপানের কুফল এড়াতে সাহায্য করে। ফুসফুসের রোগের ঝুঁকি কমাতে ভিটামিন ‘এ’ সমৃদ্ধ খাবার খুবই প্রয়োজন।</p>
<p>শরীরের মেদ ঝরাতে যাঁরা তৎপর, তাঁদের খাদ্যতালিকায় পেঁপে রাখুন। একদিকে যেমন কম ক্যালরি আছে, অন্যদিকে থাকা আঁশ পেট ভরা রাখতে সাহায্য করে। তাই ওজন নিয়ন্ত্রণে সবজি হিসেবে পেঁপে অনন্য।চোখ ভালো রাখতে, এর ভিটামিন-এ চোখ ভালো রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়া বয়সজনিত ক্ষীণদৃষ্টি রোগ প্রতিরোধেও পেঁপের ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। এবাদেও, পেঁপের মধ্যে থাকা উপাদানগুলো বয়সের ছাপ লুকিয়ে ফেলতে খুব দক্ষ। নিয়মিত পেঁপে খেলে ত্বকে বলিরেখা পড়ার প্রবণতা ধীর হয়ে।</p>
<p>উপাদান    পরিমাণ<br />
প্রোটিন    ০.৬ গ্রাম<br />
ফ্যাট    ০.১ গ্রাম<br />
মিনারেল    ০.৫ গ্রাম<br />
ফাইবার    ০.৮ গ্রাম<br />
কার্বোহাইড্রেড    ৭.২ গ্রাম<br />
খাদ্যশক্তি    ৩২ কিলোক্যালরি<br />
ভিটামিন সি    ৫৭ মিলিগ্রাম<br />
সোডিয়াম    ৬.০ মিলিগ্রাম<br />
পটাসিয়াম    ৬৯ মিলিগ্রাম<br />
আয়রন    ০.৫ মিলিগ্রাম</p>
<p>– ওয়েবসাইট।

 

চোখের সুস্থতায় মেনে চলুন এই ৫ টি নিয়ম

আমাদের কিছু বাজে অভ্যাসের মধ্যে অন্যতম বাজে অভ্যাসটি হচ্ছে চোখ সম্পর্কে উদাসীনতা। চোখের সুস্থতায় আমরা একেবারে প্রয়োজন না হলে কিছু করতে চাই না। খুব জরুরী দরকার হলে চোখের ডাক্তারের কাছে যাই। অনেকেই চোখের যে কোনো সমস্যাকে পাওয়ারের সমস্যা বলে ভুল করেন এবং ভাবেন চশমাই একমাত্র সমাধান যা অনেক বড় একটি ভুল।
চোখ আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর মধ্যে একটি। একবার ভেবে দেখেছেন কি যারা অন্ধ তাদের পৃথিবীটা কেমন? তাদের কষ্ট উপলব্ধি করার ক্ষমতা আমাদের কখনো হবে না। কিন্তু আপনি যদি চোখের ব্যাপারে অবহেলা করেন এবং উদাসীন থাকেন তাহলে তা আপনাকে নিয়ে যেতে পারে অন্ধত্বের দিকে। তাই চোখের সুস্থতায় মেনে চলুন কিছু জরুরী নিয়ম। দেহের পাশাপাশি চোখদুটোকেও রাখুন সুস্থ।

চোখের ব্যায়াম করুন
দিনে কিছুটা সময় কাজের ফাঁকে বের করে নিয়ে ব্যায়াম করুন চোখের জন্য। চোখের পলক ঘন ঘন ফেলুন। কাজের ফাঁকে ২ মিনিট চোখ বন্ধ করে থাকুন। চোখ ঘুরিয়ে উপর নিচ ডানে বামে তাকান। দুই হাতের তালু ঘষে তালু গরম করে নিয়ে চোখ ঢাকুন হাতের তালুতে। চোখকে কাজের ফাঁকে বিশ্রাম দিন।
চোখের জন্য আলো বাতাসের প্রয়োজনীয়তা
চোখের জন্য সঠিক পরিমাণে আলো বাতাসের প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। যদিও আমাদের পরিবেশের দূষণের কারণে দূষিত বাতাসের কারণে আমরা অনেক সমস্যায় পড়ে থাকি। কিন্তু তারপরেও সকালের শুভ্র আলো এবং ঠাণ্ডা বাতাস চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ভালো। তাই সকালে উঠে ঠাণ্ডা বাতাস এবং আলোতে থাকার চেষ্টা করুন।
সঠিক খাবার খান
চোখের জন্য ভালো খাবার অবশ্যই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখবেন। স্বাদের কথা একেবারেই ভুলে যান। চোখের সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে এমন খাবার থেকে দূরে থাকবেন না। ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার, মাছ, শাকসবজি এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান নিয়মিত। ভাজাপোড়া এবং তৈলাক্ত খাবার কম খাবেন।

নিয়মিত চেকআপ করান
সমস্যায় পড়ে ডাক্তারের কাছে না গিয়ে বছরে ২ বার সাধারণ চেকআপের জন্য ডাক্তারের কাছে যান। এতে করে যদি চোখে কোনো সমস্যা থেকে থাকে তাহলে তা প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়বে এবং আপনি বড় কোনো অসুস্থতা থেকে মুক্তি পাবেন।
কম্পিউটার, টেলিভিশন এবং মোবাইলের ব্যবহার কম করুন
প্রযুক্তি আমাদেরকে অনেক কিছুই দিয়েছে কিন্তু এই প্রযুক্তির কারণে আমরা অনেক কিছু হারাচ্ছিও। আমরা সকলেই জানি অতিরিক্ত কম্পিউটার, টেলিভিশন এবং মোবাইল ফোনের ব্যবহার আমাদের চোখের জন্য অনেক ক্ষতিকর। কিন্তু কেউ বাধ্য হয়ে এবং কেউ ইচ্ছে করেই এই জিনিসটি মানি না। ক্ষতিকর রেডিয়েশনের হাত থেকে চোখ বাঁচাতে যতোটা সম্ভব কম ব্যবহার করুন এইসকল জিনিস। আর আপনি যদি বাধ্য হয়ে থাকেন তবে একটানা কাজ করবেন না বা টিভি দেখবেন না।

Photo: চোখের সুস্থতায় মেনে চলুন এই ৫ টি নিয়ম</p />
<p>আমাদের কিছু বাজে অভ্যাসের মধ্যে অন্যতম বাজে অভ্যাসটি হচ্ছে চোখ সম্পর্কে উদাসীনতা। চোখের সুস্থতায় আমরা একেবারে প্রয়োজন না হলে কিছু করতে চাই না। খুব জরুরী দরকার হলে চোখের ডাক্তারের কাছে যাই। অনেকেই চোখের যে কোনো সমস্যাকে পাওয়ারের সমস্যা বলে ভুল করেন এবং ভাবেন চশমাই একমাত্র সমাধান যা অনেক বড় একটি ভুল।<br />
চোখ আমাদের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর মধ্যে একটি। একবার ভেবে দেখেছেন কি যারা অন্ধ তাদের পৃথিবীটা কেমন? তাদের কষ্ট উপলব্ধি করার ক্ষমতা আমাদের কখনো হবে না। কিন্তু আপনি যদি চোখের ব্যাপারে অবহেলা করেন এবং উদাসীন থাকেন তাহলে তা আপনাকে নিয়ে যেতে পারে অন্ধত্বের দিকে। তাই চোখের সুস্থতায় মেনে চলুন কিছু জরুরী নিয়ম। দেহের পাশাপাশি চোখদুটোকেও রাখুন সুস্থ।</p>
<p>চোখের ব্যায়াম করুন<br />
দিনে কিছুটা সময় কাজের ফাঁকে বের করে নিয়ে ব্যায়াম করুন চোখের জন্য। চোখের পলক ঘন ঘন ফেলুন। কাজের ফাঁকে ২ মিনিট চোখ বন্ধ করে থাকুন। চোখ ঘুরিয়ে উপর নিচ ডানে বামে তাকান। দুই হাতের তালু ঘষে তালু গরম করে নিয়ে চোখ ঢাকুন হাতের তালুতে। চোখকে কাজের ফাঁকে বিশ্রাম দিন।<br />
চোখের জন্য আলো বাতাসের প্রয়োজনীয়তা<br />
চোখের জন্য সঠিক পরিমাণে আলো বাতাসের প্রয়োজনীয়তা অনেক বেশি। যদিও আমাদের পরিবেশের দূষণের কারণে দূষিত বাতাসের কারণে আমরা অনেক সমস্যায় পড়ে থাকি। কিন্তু তারপরেও সকালের শুভ্র আলো এবং ঠাণ্ডা বাতাস চোখের স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ভালো। তাই সকালে উঠে ঠাণ্ডা বাতাস এবং আলোতে থাকার চেষ্টা করুন।<br />
সঠিক খাবার খান<br />
চোখের জন্য ভালো খাবার অবশ্যই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখবেন। স্বাদের কথা একেবারেই ভুলে যান। চোখের সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে এমন খাবার থেকে দূরে থাকবেন না। ভিটামিন এ সমৃদ্ধ খাবার, মাছ, শাকসবজি এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার খান নিয়মিত। ভাজাপোড়া এবং তৈলাক্ত খাবার কম খাবেন।</p>
<p>নিয়মিত চেকআপ করান<br />
সমস্যায় পড়ে ডাক্তারের কাছে না গিয়ে বছরে ২ বার সাধারণ চেকআপের জন্য ডাক্তারের কাছে যান। এতে করে যদি চোখে কোনো সমস্যা থেকে থাকে তাহলে তা প্রাথমিক পর্যায়ে ধরা পড়বে এবং আপনি বড় কোনো অসুস্থতা থেকে মুক্তি পাবেন।<br />
কম্পিউটার, টেলিভিশন এবং মোবাইলের ব্যবহার কম করুন<br />
প্রযুক্তি আমাদেরকে অনেক কিছুই দিয়েছে কিন্তু এই প্রযুক্তির কারণে আমরা অনেক কিছু হারাচ্ছিও। আমরা সকলেই জানি অতিরিক্ত কম্পিউটার, টেলিভিশন এবং মোবাইল ফোনের ব্যবহার আমাদের চোখের জন্য অনেক ক্ষতিকর। কিন্তু কেউ বাধ্য হয়ে এবং কেউ ইচ্ছে করেই এই জিনিসটি মানি না। ক্ষতিকর রেডিয়েশনের হাত থেকে চোখ বাঁচাতে যতোটা সম্ভব কম ব্যবহার করুন এইসকল জিনিস। আর আপনি যদি বাধ্য হয়ে থাকেন তবে একটানা কাজ করবেন না বা টিভি দেখবেন না।

 

ফেলনা ফলের খোসার অজানা অসাধারণ সব ব্যবহার

ফলমূল খাওয়ার পর আমরা এর খোসাগুলো কি করি? সবারই একই উত্তর আসবে ফেলে দিই। আমাদের চোখে, আপাত দৃষ্টিতে এই ফলের খোসার আসলেই তেমন কোনো কাজ নেই। এই ফেলনা ফলের খোসার জায়গা হয় ময়লার ঝুড়িতে।
কিন্তু এই ফেলনা ফলমূলের খোসার রয়েছে অনেক বিস্ময়কর ব্যবহার। আমরা অনেকেই জানি না এই ফেলে দেয়া ফলের খোসাগুলো আমাদের কতোটা কাজে আসতে পারে। চলুন আজকে জেনে নেয়া যাক ফেলনা ফলের খোসার এমনই সব অজানা ব্যবহার সম্পর্কে যা আপনাকে অবাক করে দেবে।

দাঁত সাদা করতে ও মুখের গন্ধ দূর করে কমলার খোসা
সবচাইতে ভালো ও প্রাকৃতিক উপায়ে দাঁতের হলদে ভাব দূর করতে কমলার খোসা ব্যবহার করা হয়। কমলার খোসার ভেতরের দিকে একটু পানি ছিটিয়ে দিয়ে তা দিয়ে দাঁত ঘষে নিন। দাঁতের হলদে ভাব দূর হবে নিমিষেই। এছাড়াও আপনি চাইলে কমলার তাজা খোসা বেটে নিয়ে পেস্টের মতো ব্যবহার করতে পারেন। ১ টুকরো কমলার খোসা চিবিয়ে নিলে মুখের দুর্গন্ধ দূর হবে নিমেষেই।
ফ্রিজ, বক্স ও বোতলের ভেতরের গন্ধ দূর করতে লেবুর খোসা
মাঝে মাঝে ফ্রিজের ভেতরে, বন্ধ করে রাখা খালি বক্স এবং বোতলে খুব বাজে গন্ধ হয়ে যায়। এর থেকে মুক্তি পেতে ব্যবহার করুন লেবুর খোসা। সামান্য পানিতে লেবুর খোসা ভিজিয়ে রেখে দিন ফিজের কোনায়। দেখবেন সব গন্ধ শুষে নেবে।
ত্বকের উজ্জলতা বাড়াতে আপেলের খোসা
রোদে ঘোরাঘুরি করলে সব চাইতে বেশি ক্ষতি হয় ত্বকের। বিশেষ করে পায়ের ত্বকের। এই সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে আপেলের খোসা ব্যবহার করতে পারেন। ফেলনা আপেলের খোসা দিয়ে পায়ের পাতা ঘষে নিন। দেখবেন কালচে ভাব দূর হয়ে উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে ত্বক।
দেহের গন্ধ সুন্দর করতে কমলার খোসা
অনেকেরই ঘেমে গেলে গা থেকে বাজে গন্ধ বের হয়। এই সমস্যা থেকে রেহাই দেবে কমলার খোসা। প্রতিদিনের গোসলের পানিতে কমলার খোসা ভিজিয়ে রাখুন এবং গা ঘষে নিন কমার খোসা দিয়ে। দেখবেন ঘেমে গেলে গায়ে বাজে গন্ধ হবে না।

পোকামাকড় বা মশার কামড়ের জ্বলুনি থেকে মুক্তি পেতে কলার খোসা
মশা বা পোকামাকড়ের কামড়ের জ্বলুনি থেকে তাৎক্ষণিক রক্ষা পেতে চাইলে কলার খোসার ভেতরের দিকটা ঘষে নিন চামড়ার ওপরে। দেখবেন জ্বলুনি একেবারেই কমে গিয়েছে।
আলমারির বাজে গন্ধ দূর করতে শুকনো লেবুর খোসা
আলমারিতে কাপড় রেখে দিলে স্যাঁতস্যাঁতে একটি গন্ধ হয়ে যায়। এতে কাপড়ে গন্ধ একেবারে বসে যায় যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় না। এই সমস্যার সমাধান চাইলে ব্যবহার করতে পারেন শুকনো লেবু কিংবা কমলার খোসা। আলমারিতে বা ড্রয়ারে রেখে দিন। দেখবেন কাপড়ে স্যাঁতস্যাঁতে গন্ধ হবে না।

Photo: ফেলনা ফলের খোসার অজানা অসাধারণ সব ব্যবহার</p />
<p>ফলমূল খাওয়ার পর আমরা এর খোসাগুলো কি করি? সবারই একই উত্তর আসবে ফেলে দিই। আমাদের চোখে, আপাত দৃষ্টিতে এই ফলের খোসার আসলেই তেমন কোনো কাজ নেই। এই ফেলনা ফলের খোসার জায়গা হয় ময়লার ঝুড়িতে।<br />
কিন্তু এই ফেলনা ফলমূলের খোসার রয়েছে অনেক বিস্ময়কর ব্যবহার। আমরা অনেকেই জানি না এই ফেলে দেয়া ফলের খোসাগুলো আমাদের কতোটা কাজে আসতে পারে। চলুন আজকে জেনে নেয়া যাক ফেলনা ফলের খোসার এমনই সব অজানা ব্যবহার সম্পর্কে যা আপনাকে অবাক করে দেবে।</p>
<p>দাঁত সাদা করতে ও মুখের গন্ধ দূর করে কমলার খোসা<br />
সবচাইতে ভালো ও প্রাকৃতিক উপায়ে দাঁতের হলদে ভাব দূর করতে কমলার খোসা ব্যবহার করা হয়। কমলার খোসার ভেতরের দিকে একটু পানি ছিটিয়ে দিয়ে তা দিয়ে দাঁত ঘষে নিন। দাঁতের হলদে ভাব দূর হবে নিমিষেই। এছাড়াও আপনি চাইলে কমলার তাজা খোসা বেটে নিয়ে পেস্টের মতো ব্যবহার করতে পারেন। ১ টুকরো কমলার খোসা চিবিয়ে নিলে মুখের দুর্গন্ধ দূর হবে নিমেষেই।<br />
ফ্রিজ, বক্স ও বোতলের ভেতরের গন্ধ দূর করতে লেবুর খোসা<br />
মাঝে মাঝে ফ্রিজের ভেতরে, বন্ধ করে রাখা খালি বক্স এবং বোতলে খুব বাজে গন্ধ হয়ে যায়। এর থেকে মুক্তি পেতে ব্যবহার করুন লেবুর খোসা। সামান্য পানিতে লেবুর খোসা ভিজিয়ে রেখে দিন ফিজের কোনায়। দেখবেন সব গন্ধ শুষে নেবে।<br />
ত্বকের উজ্জলতা বাড়াতে আপেলের খোসা<br />
রোদে ঘোরাঘুরি করলে সব চাইতে বেশি ক্ষতি হয় ত্বকের। বিশেষ করে পায়ের ত্বকের। এই সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে আপেলের খোসা ব্যবহার করতে পারেন। ফেলনা আপেলের খোসা দিয়ে পায়ের পাতা ঘষে নিন। দেখবেন কালচে ভাব দূর হয়ে উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে ত্বক।<br />
দেহের গন্ধ সুন্দর করতে কমলার খোসা<br />
অনেকেরই ঘেমে গেলে গা থেকে বাজে গন্ধ বের হয়। এই সমস্যা থেকে রেহাই দেবে কমলার খোসা। প্রতিদিনের গোসলের পানিতে কমলার খোসা ভিজিয়ে রাখুন এবং গা ঘষে নিন কমার খোসা দিয়ে। দেখবেন ঘেমে গেলে গায়ে বাজে গন্ধ হবে না।</p>
<p>পোকামাকড় বা মশার কামড়ের জ্বলুনি থেকে মুক্তি পেতে কলার খোসা<br />
মশা বা পোকামাকড়ের কামড়ের জ্বলুনি থেকে তাৎক্ষণিক রক্ষা পেতে চাইলে কলার খোসার ভেতরের দিকটা ঘষে নিন চামড়ার ওপরে। দেখবেন জ্বলুনি একেবারেই কমে গিয়েছে।<br />
আলমারির বাজে গন্ধ দূর করতে শুকনো লেবুর খোসা<br />
আলমারিতে কাপড় রেখে দিলে স্যাঁতস্যাঁতে একটি গন্ধ হয়ে যায়। এতে কাপড়ে গন্ধ একেবারে বসে যায় যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায় না। এই সমস্যার সমাধান চাইলে ব্যবহার করতে পারেন শুকনো লেবু কিংবা কমলার খোসা। আলমারিতে বা ড্রয়ারে রেখে দিন। দেখবেন কাপড়ে স্যাঁতস্যাঁতে গন্ধ হবে না।

 

লাল আটার রুটি কতটুকু স্বাস্থ্যকর?

লাল আটার রুটির চেয়ে আমরা ইদানিং রিফাইন করা ময়দার রুটি খেতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। কিন্তু বেশ কিছু গবেষণায় উঠে এসেছে যে রিফাইন করা ময়দা বিভিন্ন ধাপে আমাদের খাওয়ার উপযুক্ত হয় বলে এর স্বাস্থ্যকর গুণ অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়। অপরপক্ষে লাল আটার রুটিতে ভিটামিন এবং মিনারেলের মাত্রা সঠিক পরিমাণে থাকে বলে তা আমাদের জন্য বেশ স্বাস্থ্যকর।
খাদ্য উপাদান :
সাধারণত পুষ্টিকর খাবারে ৫ ধরনের উপাদান থাকে। শক্তি উৎপাদক শর্করা, প্রোটিন, প্রয়োজনীয় ফ্যাট, ভিটামিন এবং মিনারেল। যেকোনো ধরনের শস্যদানাতে এই উপাদানগুলো থাকে যেগুলো আমাদের দেহে জ্বালানি হিসেবে কাজ করে অর্থাৎ শক্তি জুগিয়ে থাকে এবং কাজ করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। বিভিন্ন ফলমূল এবং শাকসবজিতেও প্রয়োজনীয় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও মিনারেল থাকে যা আমাদের শরীরের জন্য বেশ উপকারি। সব ধরনের গমের আটা এবং সাদা ময়দাতেও, সাদা ভাত বা বাদামি ভাতেও প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজনীয় ম্যাগনেশিয়াম, সেলেনিয়াম এবং ম্যাঙ্গানিজ থাকে।

গমের আটা স্বাস্থ্যসম্মত ও খুবই পুষ্টিকর। কেননা গমের বাইরের লাল বা বাদামি আবরণে অনেক পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে। এই আবরণ ম্যাগনেশিয়াম নামক খাদ্য উপাদানে ভরপুর। কিন্তু খেতে সুস্বাদু হলেও রিফাইন বা পরিশোধিত সাদা আটার পুষ্টিগুণ অনেক কম। অত্যধিক পরিশোধনের ফলে দেহের জন্য উপকারী কিছু ভিটামিন ও মিনারেল নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া ময়দায় আঁশের পরিমাণ কম, এর গ্লাইসেমিক সূচকও বেশি।
লাল আটার রুটির উপকারিতা :
গবেষণায় দেখা গেছে, লাল আটার অদ্রবণীয় খাদ্য আঁশ রক্তের কলেস্টোরেল কমাতে সাহায্য করে। এই আটায় লিগনান নামক এক ধরনের উপাদান রয়েছে, যা ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। লাল আটার অদ্রবণীয় খাদ্য আঁশ ডায়াবেটিস রোগের জন্য উপকারী। কারণ এটি রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। হৃদযন্ত্রের জন্যও উপকারী। প্রচুর ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট থাকায় দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। লাল আটা ওজন কমাতে সহায়তা করে। কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর করে।
পুষ্টিগত পার্থক্য :
সাদা আটার রুটি ও বাদামি আটার রুটির মধ্যে পুষ্টিগত কিছু পার্থক্য রয়েছে। যেমন ৩৮গ্রাম সাদা আটার রুটিতে ৮৭ ক্যালোরি, ফ্যাট ৭, কার্বোহাইড্রেট ১৬.০ গ্রাম, খাদ্য আশঁ ১.৫ গ্রাম এবং প্রোটিন ৩.৪ গ্রাম পক্ষান্তরে ৪৬ গ্রাম বাদামি আটার রুটিতে ১২৮ ক্যালোরি, ফ্যাট ২.৫গ্রাম ,কার্বোহাইড্রেট ৯০.১ গ্রাম,খাদ্য আশঁ ২.৮ গ্রাম এবং প্রোটিন ১৫.৫গ্রাম। সুতরাং দেখা যায় সাদা আটার রুটি থেকে বাদামি আটার রুটির মধ্যে পুষ্টিগুন অনেক বেশি।
বাদামি অন্যান্য খাবার :
বাদামি যেকোনো খাবারই অন্যান্য সাদা খাবারের তুলনায় অনেক বেশি উপকারি। যেমন ধরুন সাদা চিনির চেয়ে বাদামি চিনি, সাদা ডিমের চেয়ে বাদামি ডিম। এক গ্রাম সাদা চিনিতে যতটুকু না ক্যালরি পাওয়া যায় তার চেয়ে বেশি ক্যালরি পাওয়া যায় বাদামি চিনিতে। এছাড়া সাদা চিনির তুলনায় বাদামি চিনিতে একটু বেশি পরিমাণে মিনারেলও পাওয়া যায়। তবে সাদা বা বাদামি রঙের ডিমের ক্ষেত্রে বিষয়টি একটু ভিন্ন। এর পুষ্টিগুণ নির্ভর করে মুরগির ডিম পাড়ার উপরে। স্বাভাবিকভাবেই রিফাইন করা যেকোনো খাদ্যের পুষ্টিগুণ রিফাইনমুক্ত খাবারের চেয়ে কম।

Photo: লাল আটার রুটি কতটুকু স্বাস্থ্যকর?</p />
<p>লাল আটার রুটির চেয়ে আমরা ইদানিং রিফাইন করা ময়দার রুটি খেতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। কিন্তু বেশ কিছু গবেষণায় উঠে এসেছে যে রিফাইন করা ময়দা বিভিন্ন ধাপে আমাদের খাওয়ার উপযুক্ত হয় বলে এর স্বাস্থ্যকর গুণ অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়। অপরপক্ষে লাল আটার রুটিতে ভিটামিন এবং মিনারেলের মাত্রা সঠিক পরিমাণে থাকে বলে তা আমাদের জন্য বেশ স্বাস্থ্যকর।<br />
খাদ্য উপাদান :<br />
সাধারণত পুষ্টিকর খাবারে ৫ ধরনের উপাদান থাকে। শক্তি উৎপাদক শর্করা, প্রোটিন, প্রয়োজনীয় ফ্যাট, ভিটামিন এবং মিনারেল। যেকোনো ধরনের শস্যদানাতে এই উপাদানগুলো থাকে যেগুলো আমাদের দেহে জ্বালানি হিসেবে কাজ করে অর্থাৎ শক্তি জুগিয়ে থাকে এবং কাজ করার ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। বিভিন্ন ফলমূল এবং শাকসবজিতেও প্রয়োজনীয় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও মিনারেল থাকে যা আমাদের শরীরের জন্য বেশ উপকারি। সব ধরনের গমের আটা এবং সাদা ময়দাতেও, সাদা ভাত বা বাদামি ভাতেও প্রচুর পরিমাণে প্রয়োজনীয় ম্যাগনেশিয়াম, সেলেনিয়াম এবং ম্যাঙ্গানিজ থাকে।</p>
<p>গমের আটা স্বাস্থ্যসম্মত ও খুবই পুষ্টিকর। কেননা গমের বাইরের লাল বা বাদামি আবরণে অনেক পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে। এই আবরণ ম্যাগনেশিয়াম নামক খাদ্য উপাদানে ভরপুর। কিন্তু খেতে সুস্বাদু হলেও রিফাইন বা পরিশোধিত সাদা আটার পুষ্টিগুণ অনেক কম। অত্যধিক পরিশোধনের ফলে দেহের জন্য উপকারী কিছু ভিটামিন ও মিনারেল নষ্ট হয়ে যায়। এছাড়া ময়দায় আঁশের পরিমাণ কম, এর গ্লাইসেমিক সূচকও বেশি।<br />
লাল আটার রুটির উপকারিতা :<br />
গবেষণায় দেখা গেছে, লাল আটার অদ্রবণীয় খাদ্য আঁশ রক্তের কলেস্টোরেল কমাতে সাহায্য করে। এই আটায় লিগনান নামক এক ধরনের উপাদান রয়েছে, যা ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। লাল আটার অদ্রবণীয় খাদ্য আঁশ ডায়াবেটিস রোগের জন্য উপকারী। কারণ এটি রক্তের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। হৃদযন্ত্রের জন্যও উপকারী। প্রচুর ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট থাকায় দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। লাল আটা ওজন কমাতে সহায়তা করে। কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর করে।<br />
পুষ্টিগত পার্থক্য :<br />
সাদা আটার রুটি ও বাদামি আটার রুটির মধ্যে পুষ্টিগত কিছু পার্থক্য রয়েছে। যেমন ৩৮গ্রাম সাদা আটার রুটিতে ৮৭ ক্যালোরি, ফ্যাট ৭, কার্বোহাইড্রেট ১৬.০ গ্রাম, খাদ্য আশঁ ১.৫ গ্রাম এবং প্রোটিন ৩.৪ গ্রাম পক্ষান্তরে ৪৬ গ্রাম বাদামি আটার রুটিতে ১২৮ ক্যালোরি, ফ্যাট ২.৫গ্রাম ,কার্বোহাইড্রেট ৯০.১ গ্রাম,খাদ্য আশঁ ২.৮ গ্রাম এবং প্রোটিন ১৫.৫গ্রাম। সুতরাং দেখা যায় সাদা আটার রুটি থেকে বাদামি আটার রুটির মধ্যে পুষ্টিগুন অনেক বেশি।<br />
বাদামি অন্যান্য খাবার :<br />
বাদামি যেকোনো খাবারই অন্যান্য সাদা খাবারের তুলনায় অনেক বেশি উপকারি। যেমন ধরুন সাদা চিনির চেয়ে বাদামি চিনি, সাদা ডিমের চেয়ে বাদামি ডিম। এক গ্রাম সাদা চিনিতে যতটুকু না ক্যালরি পাওয়া যায় তার চেয়ে বেশি ক্যালরি পাওয়া যায় বাদামি চিনিতে। এছাড়া সাদা চিনির তুলনায় বাদামি চিনিতে একটু বেশি পরিমাণে মিনারেলও পাওয়া যায়। তবে সাদা বা বাদামি রঙের ডিমের ক্ষেত্রে বিষয়টি একটু ভিন্ন। এর পুষ্টিগুণ নির্ভর করে মুরগির ডিম পাড়ার উপরে। স্বাভাবিকভাবেই রিফাইন করা যেকোনো খাদ্যের পুষ্টিগুণ রিফাইনমুক্ত খাবারের চেয়ে কম।

 

স্বপ্ন সম্পর্কে মজার কিছু অজানা তথ্য

মানুষ স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসে, তবে দুঃস্বপ্ন নয়। স্বপ্ন দেখা বা না দেখার বিষয়টি অবশ্য মানুষের নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতার একেবারেই বাইরে। স্বপ্ন দেখার পুরো বিষয়টিই নির্ভর করে মস্তিষ্কের উপর। আর তাই ঘুমিয়ে গেলে কেমন স্বপ্ন দেখবো সেটা আগে থেকে ধারণা করা বা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না। আর তাই চিরকালই স্বপ্ন একটি রহস্যময় বিষয় হিসেবেই মানুষের মাঝে ঘুরপাক খেয়েছে। নানান রকমের কুসংস্কারও তৈরি হয়েছে রহস্যময় এই স্বপ্নকে ঘিরে। স্বপ্ন সম্পর্কে আছে নানান রকমের মজার অজানা তথ্য। জেনে নিন তেমনই কিছু মজার অজানা তথ্য সম্পর্কে।

১) শিশুরা স্বপ্ন দেখার ক্ষেত্রে সবচাইতে এগিয়ে আছে। দিনের ৭০% সময় শিশুরা ঘুমিয়েই কাটিয়ে দেয়। আর এই সময়ের ৫০% সময়েই শিশুরা স্বপ্ন দেখে কাটায়। আর এসব স্বপ্ন শিশুদের মস্তিষ্কের বৃদ্ধি জন্য ইতিবাচক ভূমিকা রাখে।
২) ১৯৮২ সাল পর্যন্ত সবাই জানতো যে পৃথিবীর সব মানুষই স্বপ্ন দেখে। স্বপ্ন ছাড়া মানুষ হতেই পারে না বলেই ধারণা করতেন সব গবেষকরা। কিন্তু খুব অদ্ভুত একটি বিষয় ঘটে ১৯৮২ তে। ইউভাল নামের এক ব্যক্তি যুদ্ধে মাথায় ব্যাথা পান। এরপর ডাক্তারের কাছে মস্তিষ্ক পরীক্ষা করান। গবেষকরা লক্ষ্য করেন যে ইউভাল ঘুমের সময় স্বপ্ন দেখেন না। এভাবে দিনের পর দিন তার ঘুম পরীক্ষা করে কোনো স্বপ্নের হদিস পান নি গবেষকরা। তখন তারা বলেন যে স্বপ্ন না দেখলে ইউভালের স্মৃতিশক্তির উপর বিরূপ প্রভাব পড়বে এবং স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ব্যাঘাত ঘটবে। কিন্তু তখন থেকে আজ অবধি ইউভাল বেশ ভালোই আছেন। তিনি একজন প্রসিদ্ধ আইনজীবি, একজন চিত্রকর এবং সুখী মানুষ।
৩) আমাদের জীবনের তিনভাগের একভাগ সময় আমরা ঘুমিয়ে কাটাই। আর প্রতিদিন এর ঘুমের মাঝে আমরা গড়ে ৫টি স্বপ্ন দেখি। প্রতিদিন ঘুমানোর সময়ে আমরা মোট ৯০ মিনিট স্বপ্ন দেখেই কাটিয়ে দেই।
৪) ঘুমানোর সময়ে আমাদের শরীরের সকল কার্যক্রম ধীর হয়ে যায়। আমাদের মস্তিষ্ক একদমই ধীর গতিতে কাজ করে, মাংসপেশি শিথিল হয়ে বিশ্বাম গ্রহণ করে, শ্বাস প্রশ্বাস ধীর হয়ে যায়। কিন্তু স্বপ্ন দেখার সময়ে শরীরের কার্যপ্রক্রিয়া প্রায় জেগে থাকার মতই সচল থাকে। বিশেষ করে মস্তিষ্ক ও শ্বাসপ্রশ্বাস জেগে থাকার মতোই স্বাভাবিক থাকে স্বপ্ন দেখার সময়।

৫) গবেষকদের মতে স্বপ্ন হলো স্মৃতির সব কিছুকে একটি টেবিলে ওলট পালট করে ঢেলে নতুন করে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখার মতো একটি বিষয়। সারাদিন যা কিছু ঘটে তার মাঝে থেকে বিশেষ কিছু স্মৃতিকে গুছিয়ে রাখতে সহায়তা করে স্বপ্ন। আর তাই যারা বেশি স্বপ্ন দেখেন তাদের স্মৃতিশক্তিও অপেক্ষাকৃত ভালো থাকে অন্যদের চাইতে।
৬) পৃথিবীর অধিকাংশ মানুষ যেই স্বপ্নটি সবচাইতে বেশি দেখে থাকেন তা হলো হঠাৎ পড়ে যাওয়ার স্বপ্ন। এমন স্বপ্ন দেখে নিশ্চয়ই আপনিও চমকে ঘুম থেকে উঠে গেছেন অনেকবার? এছাড়াও আরো কিছু সাধারণ স্বপ্ন আছে যেগুলো প্রায় সব মানুষই বিভিন্ন সময় দেখে থাকেন। এক নজরে দেখে নিন তালিকাটি।
পরীক্ষায় ফেল করা
অনেক মানুষের সামনে নগ্ন থাকা
প্লেন ক্র্যাশ করা
পানিতে ডুবে যাওয়া
বোবায় ধরা
কিডন্যাপ হওয়া
সেক্সুয়াল এক্সপেরিয়েন্স
প্রাকৃতিক দূর্যোগ
দাঁত পড়ে যাওয়া
সন্ত্রাসের স্বীকার হওয়া
বাস, ট্রেন অথবা প্লেন মিস করা
কোনো বাড়িতে একটি অপরিচিত রুম আবিষ্কার করা
টাকা খুঁজে পাওয়া অথবা টাকা হারিয়ে যাওয়া
অতীত বা বর্তমানের কোনো ব্যক্তি
গর্ভধারণ বা সন্তানকে দেখা
একদমই অপরিচিত কোনো মানুষের অস্তিত্ব

Photo: স্বপ্ন সম্পর্কে মজার কিছু অজানা তথ্য</p />
<p>মানুষ স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসে, তবে দুঃস্বপ্ন নয়। স্বপ্ন দেখা বা না দেখার বিষয়টি অবশ্য মানুষের নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতার একেবারেই বাইরে। স্বপ্ন দেখার পুরো বিষয়টিই নির্ভর করে মস্তিষ্কের উপর। আর তাই ঘুমিয়ে গেলে কেমন স্বপ্ন দেখবো সেটা আগে থেকে ধারণা করা বা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয় না। আর তাই চিরকালই স্বপ্ন একটি রহস্যময় বিষয় হিসেবেই মানুষের মাঝে ঘুরপাক খেয়েছে। নানান রকমের কুসংস্কারও তৈরি হয়েছে রহস্যময় এই স্বপ্নকে ঘিরে। স্বপ্ন সম্পর্কে আছে নানান রকমের মজার অজানা তথ্য। জেনে নিন তেমনই কিছু মজার অজানা তথ্য সম্পর্কে।</p>
<p>১) শিশুরা স্বপ্ন দেখার ক্ষেত্রে সবচাইতে এগিয়ে আছে। দিনের ৭০% সময় শিশুরা ঘুমিয়েই কাটিয়ে দেয়। আর এই সময়ের ৫০% সময়েই শিশুরা স্বপ্ন দেখে কাটায়। আর এসব স্বপ্ন শিশুদের মস্তিষ্কের বৃদ্ধি জন্য ইতিবাচক ভূমিকা রাখে।<br />
২) ১৯৮২ সাল পর্যন্ত সবাই জানতো যে পৃথিবীর সব মানুষই স্বপ্ন দেখে। স্বপ্ন ছাড়া মানুষ হতেই পারে না বলেই ধারণা করতেন সব গবেষকরা। কিন্তু খুব অদ্ভুত একটি বিষয় ঘটে ১৯৮২ তে। ইউভাল নামের এক ব্যক্তি যুদ্ধে মাথায় ব্যাথা পান। এরপর ডাক্তারের কাছে মস্তিষ্ক পরীক্ষা করান। গবেষকরা লক্ষ্য করেন যে ইউভাল ঘুমের সময় স্বপ্ন দেখেন না। এভাবে দিনের পর দিন তার ঘুম পরীক্ষা করে কোনো স্বপ্নের হদিস পান নি গবেষকরা। তখন তারা বলেন যে স্বপ্ন না দেখলে ইউভালের স্মৃতিশক্তির উপর বিরূপ প্রভাব পড়বে এবং স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ব্যাঘাত ঘটবে। কিন্তু তখন থেকে আজ অবধি ইউভাল বেশ ভালোই আছেন। তিনি একজন প্রসিদ্ধ আইনজীবি, একজন চিত্রকর এবং সুখী মানুষ।<br />
৩) আমাদের জীবনের তিনভাগের একভাগ সময় আমরা ঘুমিয়ে কাটাই। আর প্রতিদিন এর ঘুমের মাঝে আমরা গড়ে ৫টি স্বপ্ন দেখি। প্রতিদিন ঘুমানোর সময়ে আমরা মোট ৯০ মিনিট স্বপ্ন দেখেই কাটিয়ে দেই।<br />
৪) ঘুমানোর সময়ে আমাদের শরীরের সকল কার্যক্রম ধীর হয়ে যায়। আমাদের মস্তিষ্ক একদমই ধীর গতিতে কাজ করে, মাংসপেশি শিথিল হয়ে বিশ্বাম গ্রহণ করে, শ্বাস প্রশ্বাস ধীর হয়ে যায়। কিন্তু স্বপ্ন দেখার সময়ে শরীরের কার্যপ্রক্রিয়া প্রায় জেগে থাকার মতই সচল থাকে। বিশেষ করে মস্তিষ্ক ও শ্বাসপ্রশ্বাস জেগে থাকার মতোই স্বাভাবিক থাকে স্বপ্ন দেখার সময়।</p>
<p>৫) গবেষকদের মতে স্বপ্ন হলো স্মৃতির সব কিছুকে একটি টেবিলে ওলট পালট করে ঢেলে নতুন করে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখার মতো একটি বিষয়। সারাদিন যা কিছু ঘটে তার মাঝে থেকে বিশেষ কিছু স্মৃতিকে গুছিয়ে রাখতে সহায়তা করে স্বপ্ন। আর তাই যারা বেশি স্বপ্ন দেখেন তাদের স্মৃতিশক্তিও অপেক্ষাকৃত ভালো থাকে অন্যদের চাইতে।<br />
৬) পৃথিবীর অধিকাংশ মানুষ যেই স্বপ্নটি সবচাইতে বেশি দেখে থাকেন তা হলো হঠাৎ পড়ে যাওয়ার স্বপ্ন। এমন স্বপ্ন দেখে নিশ্চয়ই আপনিও চমকে ঘুম থেকে উঠে গেছেন অনেকবার? এছাড়াও আরো কিছু সাধারণ স্বপ্ন আছে যেগুলো প্রায় সব মানুষই বিভিন্ন সময় দেখে থাকেন। এক নজরে দেখে নিন তালিকাটি।<br />
 পরীক্ষায় ফেল করা<br />
 অনেক মানুষের সামনে নগ্ন থাকা<br />
 প্লেন ক্র্যাশ করা<br />
 পানিতে ডুবে যাওয়া<br />
 বোবায় ধরা<br />
 কিডন্যাপ হওয়া<br />
 সেক্সুয়াল এক্সপেরিয়েন্স<br />
 প্রাকৃতিক দূর্যোগ<br />
 দাঁত পড়ে যাওয়া<br />
 সন্ত্রাসের স্বীকার হওয়া<br />
 বাস, ট্রেন অথবা প্লেন মিস করা<br />
 কোনো বাড়িতে একটি অপরিচিত রুম আবিষ্কার করা<br />
 টাকা খুঁজে পাওয়া অথবা টাকা হারিয়ে যাওয়া<br />
 অতীত বা বর্তমানের কোনো ব্যক্তি<br />
 গর্ভধারণ বা সন্তানকে দেখা<br />
 একদমই অপরিচিত কোনো মানুষের অস্তিত্ব

 

বেল ফলের উপকারিতা

বেল এই ঋতুর ফলগুলোর মধ্যে অন্যতম। পাইলস, অ্যানাল ফিস্টুলা, হেমোরয়েড রোগ রয়েছে, বেল এমন রোগীদের জন্য উপকারী ফল। বেল বলতে কতবেল নয়, বড় সাইজের বেলকে বোঝানো হয়েছে।

ভিটামিন ‘সি’ এবং ‘এ’-র পর্যাপ্ত পরিমাণ রয়েছে এই ফলে। বেলের ভিটামিন ‘সি’ দেহের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাকে করে শক্তিশালী। বেলের বীজগুলো পিচ্ছিল ধরনের। এমন হওয়ার জন্য এই ফল পাকস্থলীতে উপকারী পরিবেশ তৈরি করে, খাবার সঠিকভাবে হজম হয়, পরিণামে দূর হয় কোষ্ঠকাঠিন্য।

দীর্ঘ বছরের কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে ক্ষতিকর নানা রকম অসুখ তৈরি হয়। নিয়মিত বেল খেলে এ সমস্যা দূর হয়। এই ফলে ন্যাচারাল ফাইবার বা আঁশের পরিমাণও অনেক বেশি। আঁশযুক্ত শাকসবজি বা ফল হজমশক্তি বাড়িয়ে, গ্যাস-এসিডিটির পরিমাণ কমায়, দূর করে কোষ্ঠকাঠিন্য। ফলে হজমে সমস্যা দূর হয়।

বেল ত্বকের ব্রণ ভালো করে। তবে শুধু বেল খেলে চলবে না, ব্রণ ভালো হওয়ার জন্য খেতে হবে প্রচুর পানি, পুষ্টিকর খাবার, সেই সঙ্গে প্রয়োজন ত্বকের পরিচর্যা। বেলের ভিটামিন ‘এ’ চোখের বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলোকে পুষ্টি জোগায়।

যারা নিয়মিত বেল খায়, তাদের কোলন ক্যানসার , গ্লুকোমা, জেরোসিস, জেরোপথ্যালমিয়া হওয়ার প্রবণতা থাকে তুলনামূলকভাবে কম।

Photo: বেল ফলের উপকারিতা</p />
<p>বেল এই ঋতুর ফলগুলোর মধ্যে অন্যতম। পাইলস, অ্যানাল ফিস্টুলা, হেমোরয়েড রোগ রয়েছে, বেল এমন রোগীদের জন্য উপকারী ফল। বেল বলতে কতবেল নয়, বড় সাইজের বেলকে বোঝানো হয়েছে। </p>
<p>ভিটামিন ‘সি’ এবং ‘এ’-র পর্যাপ্ত পরিমাণ রয়েছে এই ফলে। বেলের ভিটামিন ‘সি’ দেহের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতাকে করে শক্তিশালী। বেলের বীজগুলো পিচ্ছিল ধরনের। এমন হওয়ার জন্য এই ফল পাকস্থলীতে উপকারী পরিবেশ তৈরি করে, খাবার সঠিকভাবে হজম হয়, পরিণামে দূর হয় কোষ্ঠকাঠিন্য। </p>
<p>দীর্ঘ বছরের কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে ক্ষতিকর নানা রকম অসুখ তৈরি হয়। নিয়মিত বেল খেলে এ সমস্যা দূর হয়। এই ফলে ন্যাচারাল ফাইবার বা আঁশের পরিমাণও অনেক বেশি। আঁশযুক্ত শাকসবজি বা ফল হজমশক্তি বাড়িয়ে, গ্যাস-এসিডিটির পরিমাণ কমায়, দূর করে কোষ্ঠকাঠিন্য। ফলে হজমে সমস্যা দূর হয়। </p>
<p>বেল ত্বকের ব্রণ ভালো করে। তবে শুধু বেল খেলে চলবে না, ব্রণ ভালো হওয়ার জন্য খেতে হবে প্রচুর পানি, পুষ্টিকর খাবার, সেই সঙ্গে প্রয়োজন ত্বকের পরিচর্যা। বেলের ভিটামিন ‘এ’ চোখের বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলোকে পুষ্টি জোগায়। </p>
<p>যারা নিয়মিত বেল খায়, তাদের কোলন ক্যানসার , গ্লুকোমা, জেরোসিস, জেরোপথ্যালমিয়া হওয়ার প্রবণতা থাকে তুলনামূলকভাবে কম।

 

রংধনু খাবার খাও সুস্থ থাকো : পুষ্টিবিদদের অভিমত

রংধনু খাবার আবার কী জিনিস- এ প্রশ্ন মনে জাগা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। আমরা সবাই জানি, সাতটি রঙের সমন্বয়ে রংধনু সৃষ্টি হয়। একইভাবে আমাদের প্রতিদিনের খাবারের মেন্যুতে নানা রঙের খাবার রাখার প্রতি ইঙ্গিত করে রংধনু খাবারের কথা বলছেন পুষ্টিবিদরা। অবশ্যই কৃত্রিম রঙসমৃদ্ধ কোনো খাবারের কথা বোঝাতে চাননি পুষ্টবিদরা। তারা ফল-মূল ও শাক-সবজির কথাই বুঝিয়েছেন। অর্থাত নানা রকম ফল-মুল ও শাক-সবজিযুক্ত খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

আমরা সবাই জানি, শাক-সবজি, ফল-মুল বেশি করে খেলে স্বাস্থ্য ভাল থাকে। আর এর কারণ হলো, এসব খাবারে রোগ প্রতিরোধ করার মতো বিশেষ উপাদান আছে। এমনকি কোনো কোনো রোগের আক্রমণ বিলম্বিতও করতে পারে এসব খাবার। ফল-মুল, শাক-সবজিতে যেসব ভিটামিন থাকে সেগলো হলো- ভিটামিন সি, ক্যারোটেনয়েডস নামের কিছু উপাদান (এসব উপাদানের কোনো কোনোটি দেহে ভিটামিন এ'তে রূপান্তরিত হয়) ভিটামিন কে, রিবোফ্লোবিন এবং ফলিক এসিড।

এছাড়া, শাক-সবজি, ফল-মুলে আঁশ ও পানি বেশি থাকে। কিন্তু ক্যালোরি থাকে কম পরিমাণে। শাক-সবজিতে ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামও থাকে। অন্যদিকে চর্বি ও সোডিয়াম থাকে কম; ফলে এসব খাবার হৃদযন্ত্র সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। সম্প্রতি জানা গেছে, শাক-সবজি, ফল-মুলে ফাইটোকেমিক্যালস নামের কিছু উপাদান আছে। এসব উপাদানের একাধারে বিজারন ক্ষমতার পাশাপাশি প্রদাহ ও ব্যাকরেটিয়া প্রতিরোধক ক্ষমতা আছে। এছাড়া, ফাইটোকেমিক্যালস নামের উপাদানগুলো দেহের প্রতিরক্ষা শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। সব মিলিয়ে এসব উপাদানের কল্যাণে সুস্থ ও আরামদায়ক জীবন-যাপন করা সম্ভব। শাক-সবজি ও ফল-মুলে হাজারো রকমের ফাইটোকেমিক্যালস থাকে। একইভাবে লেবু, কমলালেবু, আপেল, সবুজপাতাসমৃদ্ধ শাক-সবজি, হলুদ ক্যাপসিক্যাম, পেঁয়াজ ও ব্রুকলিতে পাওয়া যায় ফ্লাভোনোলস। নারিনজেনিন পাওয়া যায় সব লেবু জাতীয় ফল ও লাল আঙ্গুরে। এ উপাদান রক্তে কোলেস্টেরল এবং গ্লুকোজের মাত্রা কমায়। আমের মতো হলুদ ফল, সবুজ পাতাসমৃদ্ধ সবজি এবং গাজরে রয়েছে বেটা ক্যারোটিন। এটি দেহে প্রবেশের পর ভিটামিন এ'তে রূপান্তরিত হয় এবং ক্যান্সার প্রতিহত করতে সহায়তা করে।

এছাড়া, ফলমূল ও শাক-সবজির অন্যান্য সুফলের মধ্যে রয়েছে এগুলো টাইপ-টু ডায়াবেটিস বিলম্বিত করে এবং খাদ্যনালী ও পাকস্থলীর ক্যান্সার প্রতিহত করে। এগুলো মুখগহ্বর ও ফুসফুসের ক্যান্সারও প্রতিহত করতে সহায়তা করে বলে মনে হয়। কাঁচা ফল-মূলসমৃদ্ধ খাবার মস্তিস্কে অ্যামাইলয়েড প্ল্যাক হতে দেয় না। এ ধরনের প্ল্যাক থেকে অ্যালজাইমার রোগ দেখা দেয়। এ ছাড়া, চোখের ছানিও প্রতিহত করে ফল-মূল ও শাক-সবজি। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার প্রাকৃতিক পদ্ধতি হলো সবুজ শাক-সবজিসহ আঁশজাতীয় সবজি খাওয়া। যারা উচ্চ রক্তচাপে ভোগেন তারা ফল-মূল ও শাক-সবজি বেশি করে খেলে উপকার পাবেন। ডায়েটারি অ্যাপ্রোচেস টু স্টপ হাইপারটেশন বা ডিএএসএইচ পরিকল্পনার আওতায় যখন রক্তচাপ কমানোর চেষ্টা করা হয় তখন উদারভাবে ফল-মূল ও শাক-সবজি খাওয়ার কথা বলা হয়। এবার প্রশ্ন উঠতে পারে, সুফল পেতে হলে একজন মানুষের দৈনিক কী পরিমাণ শাক-সবজি ও ফল-মূল খাওয়া উচিত? ভারতের ন্যাশনাল হেলথ অ্যান্ড মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল বা এনএইচএমআরসি'র সুপারিশ অনুযায়ী, একজন পূর্ণ বয়সী মানুষের দৈনিক পাঁচ রকমের শাক-সবজি এবং দুই রকমের ফল খাওয়া উচিত। তবে আলুকে এ হিসেবের মধ্যে ধরা হয়নি

Photo: রংধনু খাবার খাও সুস্থ থাকো : পুষ্টিবিদদের অভিমত</p />
<p>রংধনু খাবার আবার কী জিনিস- এ প্রশ্ন মনে জাগা খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। আমরা সবাই জানি, সাতটি রঙের সমন্বয়ে রংধনু সৃষ্টি হয়। একইভাবে আমাদের প্রতিদিনের খাবারের মেন্যুতে নানা রঙের খাবার রাখার প্রতি ইঙ্গিত করে রংধনু খাবারের কথা বলছেন পুষ্টিবিদরা। অবশ্যই কৃত্রিম রঙসমৃদ্ধ কোনো খাবারের কথা বোঝাতে চাননি পুষ্টবিদরা। তারা ফল-মূল ও শাক-সবজির কথাই বুঝিয়েছেন। অর্থাত নানা রকম ফল-মুল ও শাক-সবজিযুক্ত খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। </p>
<p>আমরা সবাই জানি, শাক-সবজি, ফল-মুল বেশি করে খেলে স্বাস্থ্য ভাল থাকে। আর এর কারণ হলো, এসব খাবারে রোগ প্রতিরোধ করার মতো বিশেষ উপাদান আছে। এমনকি কোনো কোনো রোগের আক্রমণ বিলম্বিতও করতে পারে এসব খাবার। ফল-মুল, শাক-সবজিতে যেসব ভিটামিন থাকে সেগলো হলো- ভিটামিন সি, ক্যারোটেনয়েডস নামের কিছু উপাদান (এসব উপাদানের কোনো কোনোটি দেহে ভিটামিন এ'তে রূপান্তরিত হয়) ভিটামিন কে, রিবোফ্লোবিন এবং ফলিক এসিড। </p>
<p>এছাড়া, শাক-সবজি, ফল-মুলে আঁশ ও পানি বেশি থাকে। কিন্তু ক্যালোরি থাকে কম পরিমাণে। শাক-সবজিতে ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়ামও থাকে। অন্যদিকে চর্বি ও সোডিয়াম থাকে কম; ফলে এসব খাবার হৃদযন্ত্র সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। সম্প্রতি জানা গেছে, শাক-সবজি, ফল-মুলে ফাইটোকেমিক্যালস নামের কিছু উপাদান আছে। এসব উপাদানের একাধারে বিজারন ক্ষমতার পাশাপাশি প্রদাহ ও ব্যাকরেটিয়া প্রতিরোধক ক্ষমতা আছে। এছাড়া, ফাইটোকেমিক্যালস নামের উপাদানগুলো দেহের প্রতিরক্ষা শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। সব মিলিয়ে এসব উপাদানের কল্যাণে সুস্থ ও আরামদায়ক জীবন-যাপন করা সম্ভব। শাক-সবজি ও ফল-মুলে হাজারো রকমের ফাইটোকেমিক্যালস থাকে। একইভাবে লেবু, কমলালেবু, আপেল, সবুজপাতাসমৃদ্ধ শাক-সবজি, হলুদ ক্যাপসিক্যাম, পেঁয়াজ ও ব্রুকলিতে পাওয়া যায় ফ্লাভোনোলস। নারিনজেনিন পাওয়া যায় সব লেবু জাতীয় ফল ও লাল আঙ্গুরে। এ উপাদান রক্তে কোলেস্টেরল এবং গ্লুকোজের মাত্রা কমায়। আমের মতো হলুদ ফল, সবুজ পাতাসমৃদ্ধ সবজি এবং গাজরে রয়েছে বেটা ক্যারোটিন। এটি দেহে প্রবেশের পর ভিটামিন এ'তে রূপান্তরিত হয় এবং ক্যান্সার প্রতিহত করতে সহায়তা করে। </p>
<p>এছাড়া, ফলমূল ও শাক-সবজির অন্যান্য সুফলের মধ্যে রয়েছে এগুলো টাইপ-টু ডায়াবেটিস বিলম্বিত করে এবং খাদ্যনালী ও পাকস্থলীর ক্যান্সার প্রতিহত করে। এগুলো মুখগহ্বর ও ফুসফুসের ক্যান্সারও প্রতিহত করতে সহায়তা করে বলে মনে হয়। কাঁচা ফল-মূলসমৃদ্ধ খাবার মস্তিস্কে অ্যামাইলয়েড প্ল্যাক হতে দেয় না। এ ধরনের প্ল্যাক থেকে অ্যালজাইমার রোগ দেখা দেয়। এ ছাড়া, চোখের ছানিও প্রতিহত করে ফল-মূল ও শাক-সবজি। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার প্রাকৃতিক পদ্ধতি হলো সবুজ শাক-সবজিসহ আঁশজাতীয় সবজি খাওয়া। যারা উচ্চ রক্তচাপে ভোগেন তারা ফল-মূল ও শাক-সবজি বেশি করে খেলে উপকার পাবেন। ডায়েটারি অ্যাপ্রোচেস টু স্টপ হাইপারটেশন বা ডিএএসএইচ পরিকল্পনার আওতায় যখন রক্তচাপ কমানোর চেষ্টা করা হয় তখন উদারভাবে ফল-মূল ও শাক-সবজি খাওয়ার কথা বলা হয়। এবার প্রশ্ন উঠতে পারে, সুফল পেতে হলে একজন মানুষের দৈনিক কী পরিমাণ শাক-সবজি ও ফল-মূল খাওয়া উচিত? ভারতের ন্যাশনাল হেলথ অ্যান্ড মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল বা এনএইচএমআরসি'র সুপারিশ অনুযায়ী, একজন পূর্ণ বয়সী মানুষের দৈনিক পাঁচ রকমের শাক-সবজি এবং দুই রকমের ফল খাওয়া উচিত। তবে আলুকে এ হিসেবের মধ্যে ধরা হয়নি

 

নো টাইট জিন্স:
আঁট-সাট, টাইট জিন্স প্যান্টগুলোকে এবার
আলমিরা থেকে সরিয়ে ফেলার সময় এসেছে।
একদল
মার্কিন বিশেষজ্ঞ টাইট জিন্স প্যান্ট পরার
ব্যাপারে সাবধান করে দিয়ে বলেছেন, টাইট জিন্স
প্যান্ট পায়ের বিভিন্ন পেশীকে ক্ষতিগ্রস্ত
করে।
এবিসি নিউজের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী,
মার্কিন
যুক্তরাষ্ট্রে ‘ম্যারালজিয়া প্যারিসথেটিকা’ নামক
এক রোগে আক্রান্ত কিছু রোগী সনাক্ত
করা হয়েছে। এ রোগের লক্ষণ হিসেবে পায়ের
ওপরের
অংশে টান টান ভাব,
অশারতা ইত্যাদি ধরা পড়েছে। যার কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞ দলটি ফ্যাশনের
অন্যতম অনুষজ্ঞ টাইট জিন্স
প্যান্টকে দায়ী করেছেন।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত বাল্টিমোর
মেডিক্যাল সেন্টারের ডাক্তার ক্যারেন
বোয়েল বলেন, এটি একটি ব্যাধি যার কারণে পায়ের
ওপরের
অংশের পেশীগুলো ক্রমশ ক্ষতিগ্রস্ত
হতে থাকে।
তিনি আরও বলেন, টাইট জিন্স প্যান্টের
সাথে উঁচু জুতা এ সমস্যাকে আরও তীব্রতর করে। কারণ উঁচু
জুতাও পায়ের পেশীতে চাপ সৃষ্টি করে।
তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, জিন্স প্যান্ট
পড়লে যদি কারও শরীরে কোনো রকমের চাপ
অনূভুত
হয় তবে তা অগ্রাহ্য করা মোটেও উচিৎ নয়। কারণ
এতে স্থায়ী বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার
সৃষ্টি হতে পারে।

সুত্র ইন্টারনেট

Photo: নো টাইট জিন্স:<br />
আঁট-সাট, টাইট জিন্স প্যান্টগুলোকে এবার<br />
আলমিরা থেকে সরিয়ে ফেলার সময় এসেছে।<br />
একদল<br />
মার্কিন বিশেষজ্ঞ টাইট জিন্স প্যান্ট পরার<br />
ব্যাপারে সাবধান করে দিয়ে বলেছেন, টাইট জিন্স<br />
প্যান্ট পায়ের বিভিন্ন পেশীকে ক্ষতিগ্রস্ত<br />
করে।<br />
এবিসি নিউজের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী,<br />
মার্কিন<br />
যুক্তরাষ্ট্রে ‘ম্যারালজিয়া প্যারিসথেটিকা’ নামক<br />
এক রোগে আক্রান্ত কিছু রোগী সনাক্ত<br />
করা হয়েছে। এ রোগের লক্ষণ হিসেবে পায়ের<br />
ওপরের<br />
অংশে টান টান ভাব,<br />
অশারতা ইত্যাদি ধরা পড়েছে। যার কারণ হিসেবে বিশেষজ্ঞ দলটি ফ্যাশনের<br />
অন্যতম অনুষজ্ঞ টাইট জিন্স<br />
প্যান্টকে দায়ী করেছেন।<br />
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত বাল্টিমোর<br />
মেডিক্যাল সেন্টারের ডাক্তার ক্যারেন<br />
বোয়েল বলেন, এটি একটি ব্যাধি যার কারণে পায়ের<br />
ওপরের<br />
অংশের পেশীগুলো ক্রমশ ক্ষতিগ্রস্ত<br />
হতে থাকে।<br />
তিনি আরও বলেন, টাইট জিন্স প্যান্টের<br />
সাথে উঁচু জুতা এ সমস্যাকে আরও তীব্রতর করে। কারণ উঁচু<br />
জুতাও পায়ের পেশীতে চাপ সৃষ্টি করে।<br />
তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, জিন্স প্যান্ট<br />
পড়লে যদি কারও শরীরে কোনো রকমের চাপ<br />
অনূভুত<br />
হয় তবে তা অগ্রাহ্য করা মোটেও উচিৎ নয়। কারণ<br />
এতে স্থায়ী বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার<br />
সৃষ্টি হতে পারে। 
<p>সুত্র ইন্টারনেট

 

ইঁদুরের বিষ্ঠায়
তৈরি হচ্ছে সিগারেট!

আপনি টাকা দিয়ে যে সিগারেট খাচ্ছেন তাতে কী আছে জানেন? নিশ্চয়ই জানেন, তামাক পাতা সুন্দর করে কেটে পরিশোধন করার পর তার সঙ্গে আনুষঙ্গিক কয়েকটি উপাদান মিশিয়ে কাগজে মোড়ানো সিলিন্ডারের ভেতর পুড়ে সিগারেট তৈরি করা হয়। কিন্তু না অনেক সিগারেটের ভেতরে থাকে ইঁদুরের বিষ্ঠা! এমনটিই জানিয়েছে একটি গবেষণা প্রাতিষ্ঠান। যেসব সিগারেট বাজারে সস্তায় পাওয়া যায় সেগুলোর ভেতরের উপাদান পরীক্ষা করে দেখা গেছে এর মধ্যে রয়েছে ইঁদুরের বিষ্ঠা। আবার ইউনিভার্সিটি অব সিডনির প্রফেসর সিমন চ্যাপম্যান দিয়েছেন আরো ভয়ঙ্কর তথ্য। তিনি বলেছেন, সিগারেটের ফিল্টারে ব্যবহার করা হয় শূকরের রক্ত। নেদারল্যান্ডসের এক গবেষণাকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, ওই গবেষণায় দেখা গেছে- ১৮৫টি সিগারেট উৎপাদনকারী কারখানায় ব্যবহার করা হয় শূকরের রক্ত। কারণ সিগারেটের ফিল্টারে রক্তের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিমোগ্লোবিন ব্যবহার করা হয়। সিমন চ্যাপম্যান আরো বলেছেন, সিগারেট উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো কি কি উপাদান ব্যবহার করছে তা গোপন রাখায় এ বক্তব্যের বিষয়টি নিয়ে বেশি জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। তারা বলে, এটা তাদের ব্যবসা এবং তারা ব্যবসার গোমর ফাঁস করবে না। তিনি বলেছেন, নেদারল্যান্ডসের ওই গবেষণায় বলা হয়েছে- শূকরের রক্ত থেকে হিমোগ্লোবিন নিয়ে তা সিগারেটের ফিল্টারে ব্যবহার করা হয়। গ্রিসের একটি সিগারেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান শূকরের হিমোগ্লোবিন ব্যবহারের বিষয়টি স্বীকারও করেছে। তারও আগে জানা গিয়েছিল, সস্তা সিগারেটের মধ্যে অ্যাসবেস্টস এবং মৃত মাছিও থাকে। এখন নিজেই ভেবে দেখুন টাকা দিয়ে মনের সুখে কী টানছেন।

Source: সময়ের কন্ঠস্বর

Photo: ইঁদুরের বিষ্ঠায়<br />
তৈরি হচ্ছে সিগারেট!
<p>আপনি টাকা দিয়ে যে সিগারেট খাচ্ছেন তাতে কী আছে জানেন? নিশ্চয়ই জানেন, তামাক পাতা সুন্দর করে কেটে পরিশোধন করার পর তার সঙ্গে আনুষঙ্গিক কয়েকটি উপাদান মিশিয়ে কাগজে মোড়ানো সিলিন্ডারের ভেতর পুড়ে সিগারেট তৈরি করা হয়। কিন্তু না অনেক সিগারেটের ভেতরে থাকে ইঁদুরের বিষ্ঠা! এমনটিই জানিয়েছে একটি গবেষণা প্রাতিষ্ঠান। যেসব সিগারেট বাজারে সস্তায় পাওয়া যায় সেগুলোর ভেতরের উপাদান পরীক্ষা করে দেখা গেছে এর মধ্যে রয়েছে ইঁদুরের বিষ্ঠা। আবার ইউনিভার্সিটি অব সিডনির প্রফেসর সিমন চ্যাপম্যান দিয়েছেন আরো ভয়ঙ্কর তথ্য। তিনি বলেছেন, সিগারেটের ফিল্টারে ব্যবহার করা হয় শূকরের রক্ত। নেদারল্যান্ডসের এক গবেষণাকে উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, ওই গবেষণায় দেখা গেছে- ১৮৫টি সিগারেট উৎপাদনকারী কারখানায় ব্যবহার করা হয় শূকরের রক্ত। কারণ সিগারেটের ফিল্টারে রক্তের গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিমোগ্লোবিন ব্যবহার করা হয়। সিমন চ্যাপম্যান আরো বলেছেন, সিগারেট উৎপাদনকারী কোম্পানিগুলো কি কি উপাদান ব্যবহার করছে তা গোপন রাখায় এ বক্তব্যের বিষয়টি নিয়ে বেশি জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে। তারা বলে, এটা তাদের ব্যবসা এবং তারা ব্যবসার গোমর ফাঁস করবে না। তিনি বলেছেন, নেদারল্যান্ডসের ওই গবেষণায় বলা হয়েছে- শূকরের রক্ত থেকে হিমোগ্লোবিন নিয়ে তা সিগারেটের ফিল্টারে ব্যবহার করা হয়। গ্রিসের একটি সিগারেট উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান শূকরের হিমোগ্লোবিন ব্যবহারের বিষয়টি স্বীকারও করেছে। তারও আগে জানা গিয়েছিল, সস্তা সিগারেটের মধ্যে অ্যাসবেস্টস এবং মৃত মাছিও থাকে। এখন নিজেই ভেবে দেখুন টাকা দিয়ে মনের সুখে কী টানছেন।</p>
<p>Source: সময়ের কন্ঠস্বর

 

পেয়ারার স্বাস্থ্য উপকারিতা


ছোট থেকে বড় সকলের কাছেই পেয়ারা খুবই প্রিয় একটি ফল৷ পেয়ারায় বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, আর এই কারণেই এটি ‘সুপার ফ্রুট’ নামে পরিচিত৷ আপনিও জেনে নিন এই ‘সুপার ফ্রুট’এর গুণাগুণ৷

• শরীরের অতিরিক্ত শর্করা শুষে নিতে পারে পেয়ারা৷ এছাড়াও এতে যে ফাইবার রয়েছে তা বেশ উপকারি৷ এই বিশেষ ফলটি টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সক্ষম৷

• পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি ও লাইকোপিন রয়েছে৷ এর ফলে রক্ত পরিষ্কার হয় ও ত্বক অনেক বেশি উজ্জ্বল হয়৷ এছাড়াও লাইকোপিনের সাহায্যে গালে গোলাপী আভা ফুটে ওঠে৷

• পেয়ারায় অবস্থিত ভিটামিন সি বিভিন্ন ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারে৷ এছাড়াও এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সক্ষম৷

• পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ বর্তমান৷ এই জাতীয় ভিটামিন দৃষ্টি শক্তি বাড়াতে সক্ষম৷

• যেকোনো ব্যকটেরিয়া সংক্রমণ বা পেটের গোলযোগে সবচেয়ে কার্যকরী হল পেয়ারা৷ এই ফলটিতে অ্যাস্ট্রিজেন্ট ও অ্যান্টি-মাইক্রোবাল উপাদান থাকে ফলে এটি পাকস্থলীর স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে৷

• পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে৷ এটি শরীরের অতিরিক্ত রক্তপাচ কমাতে সাহায্য করে ও রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখে৷

• যারা ওবেসিটির শিকার বা যাদের ওজন অতিরিক্ত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে তারা পেয়ারা খেতে পারেন৷ পেয়ারা খেলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন খুব সহজেই ঝড়ানো যেতে পারে৷

সূত্র – ওয়েবসাইট।

Photo: পেয়ারার স্বাস্থ্য উপকারিতা</p />
<p>ছোট থেকে বড় সকলের কাছেই পেয়ারা খুবই প্রিয় একটি ফল৷ পেয়ারায় বিভিন্ন স্বাস্থ্য উপকারিতা রয়েছে, আর এই কারণেই এটি ‘সুপার ফ্রুট’ নামে পরিচিত৷ আপনিও জেনে নিন এই ‘সুপার ফ্রুট’এর গুণাগুণ৷</p>
<p>•    শরীরের অতিরিক্ত শর্করা শুষে নিতে পারে পেয়ারা৷ এছাড়াও এতে যে ফাইবার রয়েছে তা বেশ উপকারি৷ এই বিশেষ ফলটি টাইপ ২ ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সক্ষম৷</p>
<p>•    পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি ও লাইকোপিন রয়েছে৷ এর ফলে রক্ত পরিষ্কার হয় ও ত্বক অনেক বেশি উজ্জ্বল হয়৷ এছাড়াও লাইকোপিনের সাহায্যে গালে গোলাপী আভা ফুটে ওঠে৷</p>
<p>•    পেয়ারায় অবস্থিত ভিটামিন সি বিভিন্ন ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারে৷ এছাড়াও এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সক্ষম৷</p>
<p>•    পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ বর্তমান৷ এই জাতীয় ভিটামিন দৃষ্টি শক্তি বাড়াতে সক্ষম৷</p>
<p>•    যেকোনো ব্যকটেরিয়া সংক্রমণ বা পেটের গোলযোগে সবচেয়ে কার্যকরী হল পেয়ারা৷ এই ফলটিতে অ্যাস্ট্রিজেন্ট ও অ্যান্টি-মাইক্রোবাল উপাদান থাকে ফলে এটি পাকস্থলীর স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে৷</p>
<p>•    পেয়ারাতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে৷ এটি শরীরের অতিরিক্ত রক্তপাচ কমাতে সাহায্য করে ও রক্তচাপকে স্বাভাবিক রাখে৷</p>
<p>•    যারা ওবেসিটির শিকার বা যাদের ওজন অতিরিক্ত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে তারা পেয়ারা খেতে পারেন৷ পেয়ারা খেলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন খুব সহজেই ঝড়ানো যেতে পারে৷</p>
<p>সূত্র – ওয়েবসাইট।

 

রান্নাঘরের যে মশলাগুলো আপনাকে রাখবে সুস্থ ও নীরোগ

রান্নাবান্নায় অনেকেই বেশি মশলা দেয়া পছন্দ করেন, আবার অনেকে করেন না। মুখের স্বাদ, এলাকা এবং রান্নার ধরন ভেদে একেক বাসায় একেক ধরনের ও স্বাদের খাবার তৈরি করা হয়। দেখা যায় খাবারের উপকরণ একই কিন্তু শুধুমাত্র মশলা দেয়ার পরিমাণ আলাদা বলে স্বাদেও ভিন্ন।
কিন্তু কিছু মশলা রয়েছে যা রান্নাঘরে অবশ্যই রাখা উচিৎ। এবং অবশ্যই রান্নাবান্নায় ব্যবহার করা উচিৎ। যারা মশলা জাতীয় খাবার একেবারেই পছন্দ করেন না তাদের জন্যও এই কয়টি মশলা খাওয়া জরুরি। চলুন তবে জরুরির তালিকায় থাকা এই মশলাগুলোকে দেখে নেয়া যাক।
ধনিয়া
ধনিয়া গুঁড়ো রান্নায় বেশ ভালো একটি স্বাদ এনে দেয়। ধনিয়ার রয়েছে বেশ ভালো স্বাস্থ্যগুণ। হজম সমস্যা, নিঃশ্বাসের সমস্যা, মুত্রথলীর সমস্যা এবং ত্বকের কিছু সমস্যার সমাধান করে ধনিয়া। তাই এটি আপনার রান্নাঘরে থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।
আদা
কিছু কিছু রান্নায় সামান্য আদা বাটা দিলে রান্নার স্বাদ পুরোপুরি পরিবর্তিত হয়ে যায়। স্বাদে ভিন্নতা আনতে এবং নতুন ফ্লেভার যোগ করতে আদার তুলনা নেই। আদা ছোটখাটো ঠাণ্ডার সমস্যা, নিঃশ্বাসের সমস্যা দূর করে দেয় নিমেষেই। এছাড়াও মানসিক চাপ দূর করতে আদা চায়ের তুলনা নেই।
জিরা
রান্নায় ভিন্ন স্বাদ আনার জন্য জিরা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এটি রান্নায় স্বাদ আনার পাশাপাশি হজমের সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে। এর অ্যান্টিসেপ্টিক উপাদান লিভার ও অগ্ন্যাশয়ের কর্মক্ষমতা বাড়ায় এবং দেহকে ক্ষতিকর টক্সিন মুক্ত করতে সহায়তা করে।
মেথি
মেথির মধ্যে রয়েছে রোগ নিরাময়ের অসাধারণ ক্ষমতা। এটি হজমের সমস্যা, শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা, আমাদের নার্ভের কোনো সমস্যা, মেয়েদের মাসিকের সমস্যা, ত্বকের সমস্যা দূর করে। এটি অবশ্যই আপনার রান্নাঘরে থাকা উচিৎ। সারারাত পানিতে মেথি ভিজিয়ে রেখে পানি পান করলে রক্তের সুগারের মাত্রা কমিয়ে দেয় নিমেষে।
হলুদ
হলুদ সবার রান্নাঘরেই কমবেশি থাকে। কারণ হলুদ ছাড়া রান্না একেবারেই হয় না। হলুদ শুধুমাত্র স্বাদের জন্যই জনপ্রিয় নয়। হলুদের স্বাস্থ্যগুণ অনেক বেশি। হলুদের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টিসেপ্টিক উপাদান আমাদের দেহকে নানা ধরণের রোগমুক্ত রাখতে সহায়তা করে।

Photo: রান্নাঘরের যে মশলাগুলো আপনাকে রাখবে সুস্থ ও নীরোগ</p />
<p>রান্নাবান্নায় অনেকেই বেশি মশলা দেয়া পছন্দ করেন, আবার অনেকে করেন না। মুখের স্বাদ, এলাকা এবং রান্নার ধরন ভেদে একেক বাসায় একেক ধরনের ও স্বাদের খাবার তৈরি করা হয়। দেখা যায় খাবারের উপকরণ একই কিন্তু শুধুমাত্র মশলা দেয়ার পরিমাণ আলাদা বলে স্বাদেও ভিন্ন।<br />
কিন্তু কিছু মশলা রয়েছে যা রান্নাঘরে অবশ্যই রাখা উচিৎ। এবং অবশ্যই রান্নাবান্নায় ব্যবহার করা উচিৎ। যারা মশলা জাতীয় খাবার একেবারেই পছন্দ করেন না তাদের জন্যও এই কয়টি মশলা খাওয়া জরুরি। চলুন তবে জরুরির তালিকায় থাকা এই মশলাগুলোকে দেখে নেয়া যাক।<br />
ধনিয়া<br />
ধনিয়া গুঁড়ো রান্নায় বেশ ভালো একটি স্বাদ এনে দেয়। ধনিয়ার রয়েছে বেশ ভালো স্বাস্থ্যগুণ। হজম সমস্যা, নিঃশ্বাসের সমস্যা, মুত্রথলীর সমস্যা এবং ত্বকের কিছু সমস্যার সমাধান করে ধনিয়া। তাই এটি আপনার রান্নাঘরে থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।<br />
আদা<br />
কিছু কিছু রান্নায় সামান্য আদা বাটা দিলে রান্নার স্বাদ পুরোপুরি পরিবর্তিত হয়ে যায়। স্বাদে ভিন্নতা আনতে এবং নতুন ফ্লেভার যোগ করতে আদার তুলনা নেই। আদা ছোটখাটো ঠাণ্ডার সমস্যা, নিঃশ্বাসের সমস্যা দূর করে দেয় নিমেষেই। এছাড়াও মানসিক চাপ দূর করতে আদা চায়ের তুলনা নেই।<br />
জিরা<br />
রান্নায় ভিন্ন স্বাদ আনার জন্য জিরা ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এটি রান্নায় স্বাদ আনার পাশাপাশি হজমের সমস্যা দূর করতে সহায়তা করে। এর অ্যান্টিসেপ্টিক উপাদান লিভার ও অগ্ন্যাশয়ের কর্মক্ষমতা বাড়ায় এবং দেহকে ক্ষতিকর টক্সিন মুক্ত করতে সহায়তা করে।<br />
মেথি<br />
মেথির মধ্যে রয়েছে রোগ নিরাময়ের অসাধারণ ক্ষমতা। এটি হজমের সমস্যা, শ্বাসপ্রশ্বাসের সমস্যা, আমাদের নার্ভের কোনো সমস্যা, মেয়েদের মাসিকের সমস্যা, ত্বকের সমস্যা দূর করে। এটি অবশ্যই আপনার রান্নাঘরে থাকা উচিৎ। সারারাত পানিতে মেথি ভিজিয়ে রেখে পানি পান করলে রক্তের সুগারের মাত্রা কমিয়ে দেয় নিমেষে।<br />
হলুদ<br />
হলুদ সবার রান্নাঘরেই কমবেশি থাকে। কারণ হলুদ ছাড়া রান্না একেবারেই হয় না। হলুদ শুধুমাত্র স্বাদের জন্যই জনপ্রিয় নয়। হলুদের স্বাস্থ্যগুণ অনেক বেশি। হলুদের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টিসেপ্টিক উপাদান আমাদের দেহকে নানা ধরণের রোগমুক্ত রাখতে সহায়তা করে।

 

জন্ডিসের ভ্যাকসিন কেন দেবেন

হেপাটাইটিস এ এবং হেপাটাইটিস বি দু’টি সংক্রামক রোগ। হেপাটাইটিস এ এবং হেপাটাইটিস বি দু’টি সংক্রামক রোগ। হেপাটাইটিস এ বা সাধারণ জন্ডিস সাধারনতঃ খাবার পানি বাইরের খোলা ও জীবানুযুক্ত খাবার আহার করলে এবং আক্রা- ব্যক্তির সংস্পর্শে আসলে অথবা আক্রা- ব্যক্তির ব্যবহার্য জিনিসপত্র ব্যবহার করলে হেপাটাইটিস এ বা সাধারণ জন্ডিস সংক্রমিত হতে পারে। সাধারনতঃ বিশ্রাম ও কিছু নিয়ম-নীতি মেনে চললে হেপাটাইটিস এ ভালো হয়। হেপাটাইটিস এ জন্ডিসের বিরুদ্ধে কার্যকর ভ্যাকসিন। দু’টি ভ্যাকসিন দিয়ে হেপাটাইটিস এ রোধ করা যায়। আর এক ধরনের জন্ডিস হচ্ছে হেপাটাইটিস বি। হেপাটাইটিস বি ভাইরাস থেকে এই রোগ সংক্রমিত হয়। জীবানুযুক্ত ইনজেকশনের সূই ব্যবহার জীবানুযুক্ত রক্ত সঞ্চালন, আক্রা- ব্যক্তির সঙ্গে শারীরিক সম্পকê এই রোগ সংক্রমনের প্রধান কারণ। এই রোগের বিরুদ্ধে কার্যকর ভ্যাকসিন রয়েছে। ৪টি ভ্যাকসিন দিয়ে হেপাটাইটিস বি প্রতিরোধ করা যায়। তবে ভ্যাকসিন দেয়ার ক্ষেত্রে সবচাইতে উন্নতমানের কার্যকর ভ্যাকসিন দিতে হবে, কমদামের অননুমোদিত ভ্যাকসিন দিবেন না। জেনে নেবেন ভ্যাকসিন ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদিত কিনা। সব সময় মনে রাখবেন অনেক অসাধু ব্যবসায়ী মুনাফা লাভের আশায় অকার্যকর কমদামী ভ্যাকসিন বাজারজাত করছে। এসব ভ্যাকসিন শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরী হয় না।

*************************
দৈনিক ইত্তেফাক, ২০ ফেবুয়ারি ২০১০।

Photo: জন্ডিসের ভ্যাকসিন কেন দেবেন</p />
<p>হেপাটাইটিস এ এবং হেপাটাইটিস বি দু’টি সংক্রামক রোগ। হেপাটাইটিস এ এবং হেপাটাইটিস বি দু’টি সংক্রামক রোগ। হেপাটাইটিস এ বা সাধারণ জন্ডিস সাধারনতঃ খাবার পানি বাইরের খোলা ও জীবানুযুক্ত খাবার আহার করলে এবং আক্রা- ব্যক্তির সংস্পর্শে আসলে অথবা আক্রা- ব্যক্তির ব্যবহার্য জিনিসপত্র ব্যবহার করলে হেপাটাইটিস এ বা সাধারণ জন্ডিস সংক্রমিত হতে পারে। সাধারনতঃ বিশ্রাম ও কিছু নিয়ম-নীতি মেনে চললে হেপাটাইটিস এ ভালো হয়। হেপাটাইটিস এ জন্ডিসের বিরুদ্ধে কার্যকর ভ্যাকসিন। দু’টি ভ্যাকসিন দিয়ে হেপাটাইটিস এ রোধ করা যায়। আর এক ধরনের জন্ডিস হচ্ছে হেপাটাইটিস বি। হেপাটাইটিস বি ভাইরাস থেকে এই রোগ সংক্রমিত হয়। জীবানুযুক্ত ইনজেকশনের সূই ব্যবহার জীবানুযুক্ত রক্ত সঞ্চালন, আক্রা- ব্যক্তির সঙ্গে শারীরিক সম্পকê এই রোগ সংক্রমনের প্রধান কারণ। এই রোগের বিরুদ্ধে কার্যকর ভ্যাকসিন রয়েছে। ৪টি ভ্যাকসিন দিয়ে হেপাটাইটিস বি প্রতিরোধ করা যায়। তবে ভ্যাকসিন দেয়ার ক্ষেত্রে সবচাইতে উন্নতমানের কার্যকর ভ্যাকসিন দিতে হবে, কমদামের অননুমোদিত ভ্যাকসিন দিবেন না। জেনে নেবেন ভ্যাকসিন ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদিত কিনা। সব সময় মনে রাখবেন অনেক অসাধু ব্যবসায়ী মুনাফা লাভের আশায় অকার্যকর কমদামী ভ্যাকসিন বাজারজাত করছে। এসব ভ্যাকসিন শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরী হয় না। </p>
<p>*************************<br />
দৈনিক ইত্তেফাক, ২০ ফেবুয়ারি ২০১০।

 

সপ্তাহ শেষে চুলের যত্নে

কর্মব্যস্ত সপ্তাহ শেষে ছুটির দিনেও অবসর কাটানো মুশকিল হয়ে পড়ে। নিজের অনেক কাজ গুছিয়ে নিতে হয়, প্রস্তুতি নিতে হয় আরেকটি ব্যস্ততামুখর সপ্তাহের জন্য। ব্যস্ততার কারণে অনেকেই ঠিকমতো নিজের যত্ন নিতে পারে না। তাই ছুটির দিনের ব্যস্ততা থেকে কিছু সময় বের করে করতে পারেন নিজের সাপ্তাহিক পরিচর্যা। বিশেষ করে চুলের যত্ন নেয়াটা তো অবশ্য কর্তব্য। সারা সপ্তাহ কত ধকলই না পোহাতে হয় চুলগুলোকে, তাই না? ঘরে বসেই সেরে নিন চুলের চর্চা। এতে যেমন সময় ব্যয় হবে কম, তেমনই অর্থ বাঁচবে আর নিজেকে লাগবে ফ্রেশ।
জেনে নিন কী করবেন
-চুলে ময়লা জমে মাথার ত্বকে খুশকি, ফুসকুড়ি ইত্যাদি সৃষ্টি হয়। নখ দিয়ে চুলকালে ক্ষত তৈরি হয়ে যেতে পারে। যাদের চুল অতিমাত্রায় রুক্ষ তারা অলিভ অয়েল কুসুম গরম করে চুলের গোড়ায় ঘষে ঘষে লাগান। বাকি চুলে ঠান্ডা অলিভ অয়েল লাগান।
-যাদের চুল সাধারণ বা তৈলাক্ত তারা অলিভ অয়েলের সাথে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ঘষুন। বাকি চুলে সাধারণ অলিভ অয়েল লাগান।
-এরপর গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে সেটা চুলে জড়ান। পাঁচ-ছয় মিনিট পর খুলে ফেলুন। এভাবে অন্তত পাঁচ বার করুন।
-এরপর চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং ভালো মানের কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।
-অনেকের ত্বকের মতো চুলও মিশ্র প্রকৃতির হয়ে থাকে। চুলের গোড়া থাকে তৈলাক্ত এবং ডগা থাকে শুষ্ক। এক্ষেত্রে মুলতানি মাটি ও পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট শুধু চুলের গোড়ায় এবং মাথার ত্বকে লাগান। বিশ মিনিট পর চুল খুব ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন তবে শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না। পরদিন শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং ভালো মানের কন্ডিশনার লাগান।
-সময় নিয়ে বসে ভালো করে চুল শুকিয়ে ফেলুন বাতাসে।
-রাতে শোবার সময় অনেকটা সময় নিয়ে চুল আঁচড়ান।
-চুলে লাগাতে পারেন দই ও ডিমের তৈরি প্যাক। এতে প্রোটিন ট্রিটমেনট হিসাবে কাজ করবে। কেবল টক দই ও ডিম একত্রে মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন।
-চুল কন্ডিশন করতে ব্যবহার করতে পারেন ঘন চায়ের লিকার। শ্যাম্পু শেষে চুলে মাখিয়ে রাখুন। তারপর ১৫ মিনিট পর অল্প পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
-খুশকির সমস্যা থাকলে মেথি সারারাত ভিজিয়ে রেখে পরের দিন বেটে নিন। পরিমাণ মত সরিষার তেল গরম করে এতে মেহেদী পাতা ফেলে দিন। ঠাণ্ডা হলে এই তেলে মেথি বাটা দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি চুলের গোঁড়ায় মাথার ত্বকে লাগান। ২ ঘণ্টা পরে চুল ধুয়ে ফেলুন। খুশকি মুক্ত হবে চুল খুব দ্রুত।

সূত্র- ওয়েবসাইট

Photo: সপ্তাহ শেষে চুলের যত্নে</p />
<p>কর্মব্যস্ত সপ্তাহ শেষে ছুটির দিনেও অবসর কাটানো মুশকিল হয়ে পড়ে। নিজের অনেক কাজ গুছিয়ে নিতে হয়, প্রস্তুতি নিতে হয় আরেকটি ব্যস্ততামুখর সপ্তাহের জন্য। ব্যস্ততার কারণে অনেকেই ঠিকমতো নিজের যত্ন নিতে পারে না। তাই ছুটির দিনের ব্যস্ততা থেকে কিছু সময় বের করে করতে পারেন নিজের সাপ্তাহিক পরিচর্যা। বিশেষ করে চুলের যত্ন নেয়াটা তো অবশ্য কর্তব্য। সারা সপ্তাহ কত ধকলই না পোহাতে হয় চুলগুলোকে, তাই না? ঘরে বসেই সেরে নিন চুলের চর্চা। এতে যেমন সময় ব্যয় হবে কম, তেমনই অর্থ বাঁচবে আর নিজেকে লাগবে ফ্রেশ।<br />
জেনে নিন কী করবেন<br />
 -চুলে ময়লা জমে মাথার ত্বকে খুশকি, ফুসকুড়ি ইত্যাদি সৃষ্টি হয়। নখ দিয়ে চুলকালে ক্ষত তৈরি হয়ে যেতে পারে। যাদের চুল অতিমাত্রায় রুক্ষ তারা অলিভ অয়েল কুসুম গরম করে চুলের গোড়ায় ঘষে ঘষে লাগান। বাকি চুলে ঠান্ডা অলিভ অয়েল লাগান।<br />
 -যাদের চুল সাধারণ বা তৈলাক্ত তারা অলিভ অয়েলের সাথে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে চুলের গোড়ায় ঘষুন। বাকি চুলে সাধারণ অলিভ অয়েল লাগান।<br />
 -এরপর গরম পানিতে তোয়ালে ভিজিয়ে সেটা চুলে জড়ান। পাঁচ-ছয় মিনিট পর খুলে ফেলুন। এভাবে অন্তত পাঁচ বার করুন।<br />
 -এরপর চুল শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং ভালো মানের কন্ডিশনার ব্যবহার করুন।<br />
 -অনেকের ত্বকের মতো চুলও মিশ্র প্রকৃতির হয়ে থাকে। চুলের গোড়া থাকে তৈলাক্ত এবং ডগা থাকে শুষ্ক। এক্ষেত্রে মুলতানি মাটি ও পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এই পেস্ট শুধু চুলের গোড়ায় এবং মাথার ত্বকে লাগান। বিশ মিনিট পর চুল খুব ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন তবে শ্যাম্পু ব্যবহার করবেন না। পরদিন শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং ভালো মানের কন্ডিশনার লাগান।<br />
 -সময় নিয়ে বসে ভালো করে চুল শুকিয়ে ফেলুন বাতাসে।<br />
 -রাতে শোবার সময় অনেকটা সময় নিয়ে চুল আঁচড়ান।<br />
 -চুলে লাগাতে পারেন দই ও ডিমের তৈরি প্যাক। এতে প্রোটিন ট্রিটমেনট হিসাবে কাজ করবে। কেবল টক দই ও ডিম একত্রে মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে রাখুন। এক ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে ফেলুন।<br />
 -চুল কন্ডিশন করতে ব্যবহার করতে পারেন ঘন চায়ের লিকার। শ্যাম্পু শেষে চুলে মাখিয়ে রাখুন। তারপর ১৫ মিনিট পর অল্প পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।<br />
 -খুশকির সমস্যা থাকলে মেথি সারারাত ভিজিয়ে রেখে পরের দিন বেটে নিন। পরিমাণ মত সরিষার তেল গরম করে এতে মেহেদী পাতা ফেলে দিন। ঠাণ্ডা হলে এই তেলে মেথি বাটা দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি চুলের গোঁড়ায় মাথার ত্বকে লাগান। ২ ঘণ্টা পরে চুল ধুয়ে ফেলুন। খুশকি মুক্ত হবে চুল খুব দ্রুত।</p>
<p>সূত্র- ওয়েবসাইট

 

হার্ট সুস্থ রাখতে জেনে
নিন ৩০ কৌশল

শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের মধ্যে মস্তিষ্ক এবং হৃৎপিণ্ড বা হার্টকে নিয়েই ভাবনা থাকে বেশি। এর যেকোনো একটি বিকল হলে মহাবিপর্যয় নেমে আসে। রোগ বিবেচনায় অবশ্য হার্টকে নিয়েই বেশি ভয়। তাই হার্ট সুস্থ ও স্বাভাবিক রাখতে চলছে নানা ধরনের গবেষণা। শত শত বছর ধরে চলা এসব গবেষণা উপায়ও বাতলে দিয়েছে অনেক। এর মধ্যে ৩০টি উপায় জানিয়েছে মেনস হেলথ ডটকম।

১. সপ্তাহে দুইবার শারীরিক সম্পর্ক: গবেষণায় দেখা গেছে, স্ত্রীর সঙ্গে যারা মাসে একবার শারীরিক সম্পর্ক করে থাকেন তাদের তুলনায় যারা সপ্তাহে দুই বা তার বেশিবার করেন তাদের হার্ট বেশি সুস্থ থাকে। আমেরিকান জার্নাল অব কার্ডিওলজির মতে, শারীরিক সম্পর্ক হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াকে নিরাপদ করে তোলে, যেভাবে পোশাক তাপমাত্রার হাত থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

২. প্রতিদিন এক কাপ আখরোট: প্রতিদিন এক কাপ পরিমাণ আখরোট-জাতীয় ফল খেলে শরীরের রক্ত সঞ্চালনপ্রক্রিয়া কার্যকর হয়ে ওঠে। কেননা আখরোট-জাতীয় ফলে থাকে ওমেগা-৩ নামের চর্বি, যা বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের বিরুদ্ধে শক্তিশালী অবস্থান নেয় এবং এর ফলে দূষিত রক্ত নিয়মিত পরিসঞ্চালিত হয়ে হার্টের গতি স্বাভাবিক রাখে।

৩. নাড়ির গতি লিপিবদ্ধ রাখুন: ঘুম থেকে ওঠার পর অন্য কিছু খোঁজার আগে আপনার প্রয়োজন নিজের নাড়ি মেপে রাখা। কারণ এ সময় শরীর আবারো পুরোমাত্রায় কার্যক্ষম হয়ে ওঠার প্রস্তুতি শুরু করে। তাই হার্টও হয়ে ওঠে সচল। স্বাভাবিকভাবে পূর্ণবয়স্ক একজন মানুষের এ সময় নাড়ির গতি হবে মিনিটে ৭০ বার বা তার চেয়ে কম। ডাক্তাররা জানিয়েছেন, যদি সপ্তাহ ধরে এর ব্যত্যয় ঘটে, তবে দ্রুত যোগাযোগ করতে হবে স্থানীয় হাসপাতালে।

৪. এড়িয়ে চলুন দূষিত বায়ু: সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বে দূষিত বায়ুর পরিমাণ বেড়েছে। আবহাওয়াবিদদের ভাষ্য মতে, শীতকালে সকালের দিকে বাতাসে দূষিত পদার্থের পরিমাণ বেশি থাকে। সাধারণত বাতাসে থাকা অতিরিক্ত ধাতব পদার্থ নিঃশ্বাসের সঙ্গে শরীরে প্রবেশ করে স্কন্ধদেশের ধমনিপ্রাচীরকে আরো পুরু করে তোলে, যে কারণে রক্ত সঞ্চালন বাধাগ্রস্ত হয়।

৫. বেশি খান শিম, বরবটি: আলু কিংবা কলাই-জাতীয় খাবারের চেয়েও গুটিযুক্ত ফলধারী লতা, যেমন- শিম, বরবটি রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় এগুলো রাখতে পারেন ওষুধ বিবেচনায়ও।

৬. করুন মুঠোর ব্যায়াম: টানা চার সপ্তাহের মুঠো সঞ্চালন-প্রসারণ ব্যায়ামও আপনার রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করবে। হাইপারটেনশন জার্নাল জানিয়েছে, এর মাধ্যমে আপনি রক্তের ঊর্ধ্বচাপ কমিয়ে আনতে পারেন প্রায় ১০ শতাংশ হারে।

৭. ডিমও সঙ্গী হবে: যারা বলছেন, বেশি বেশি ডিম খেলে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ে তাদের জন্য দুঃসংবাদ। কেননা ব্রাজিলীয় গবেষকরা জানিয়েছেন, ডিমের কুসুমে থাকা ভিটামিন ই, বি-১২ এবং ফলেট করোনারি আর্টারিকে পরিষ্কার রাখে। তবে কেউ যদি দিনে চারটি করে ডিম খেতে থাকেন, তবে তাকে এসব গবেষণার কথা ভুলে যেতে হবে।

৮. দৌড়ান নিয়মিত: এটা একটা সাধারণ তরিকা। তবে হার্ট ভালো রাখতে হলে প্রতিদিন কমপক্ষে তিন কিলোমিটার করে দৌড়ানোর উপদেশ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এ ক্ষেত্রে দৌড় শুরুর আগে এবং শেষে হার্ট রেটের সংখ্যা লিপিবদ্ধ করারও অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

৯. শ্বাসের গতি নিয়ন্ত্রণ করুন: না, নিজের ইচ্ছামতো গতিতে শ্বাস নিতে কিংবা ছাড়তে বলা হচ্ছে না। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিদিন শ্বাসের ব্যায়াম করুন। উদাহরণ হিসেবে প্রথমে ৩০ সেকেন্ডে ছয়টি পূর্ণাঙ্গ শ্বাস-প্রশ্বাস সম্পন্ন করুন। এরপর সময়ের পরিমাণ কমাতে থাকুন। এ ব্যায়াম আপনার হৃদ সংকোচনসংক্রান্ত চাপ কমাতে ধন্বন্তরি ভূমিকা রাখবে।

১০. দূরে থাক অবসাদ: কোনোভাবেই কাজের ক্লান্তিকে আপনার ওপর চেপে বসতে দেবেন না। এ জন্য মাঝেমধ্যেই অবসাদ দূর করতে আপনার পছন্দকে গুরুত্ব দিন। সুইজারল্যান্ডের এক গবেষণা জানিয়েছে, অবসাদ দূর করার তৎপরতা হৃদযন্ত্রের সংকট কাটায় ৫৭ শতাংশের কাছাকাছি।

১১. বিদায় জানান ফ্লু-কে: জার্নাল হার্টের প্রতিবেদন জানিয়েছে, যেসব ওষুধ ফ্লু জাতীয় ভাইরাস দূর করতে ব্যবহার করা হয় তা হার্টের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা সারাতেও কার্যকর ভূমিকা রাখে। উদাহরণ হিসেবে তারা ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকার কথা বলেছেন। এই টিকা একই সঙ্গে ধমনির প্রদাহ দূর করতেও শক্তিশালী ভূমিকা রাখে।

১২. বালিশে মাথা রাখুন সময়মতো: যাদের অনিদ্রা নামক রাজরোগ আছে, তারা অন্যদের চেয়ে ৪৫ শতাংশ বেশি হার্ট এটাকের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন। তাই প্রয়োজন অনুযায়ী ঘুমের জন্য প্রতিদিন বেশি বেশি শারীরিক পরিশ্রম করার আহ্বান জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

১৩. নাস্তি অধিক ঘুমেও: এমনকি যারা বেশি বেশি ঘুমকাতুরে তাদেরও সাবধান করে দিয়েছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, দিনে ১০ ঘণ্টা কিংবা তার বেশি সময় যাদের ঘুমে কাটে তাদের স্থূলতার পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে থাকে, কমতে থাকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও। সুতরাং অধিক ঘুমে নাস্তি।

১৪. খাদ্য তালিকায় কমাতে থাকুন চর্বির পরিমাণ: খাবারে থাকা চর্বি হৃৎপিণ্ডকে অকার্যকর করে তুলতে ভূমিকা রাখে। সুতরাং খাদ্য তালিকা থেকে নিয়মিতভাবে চর্বির পরিমাণ কমাতে থাকুন, তবে অবশ্যই পুষ্টি তালিকার নিুক্রম ছাড়িয়ে যাবেন না।

১৫. যোগ করুন পটাশিয়ামযুক্ত খাদ্য: প্রতি দিনের খাদ্য তালিকায় ক্রমাগতভাবে যুক্ত করতে থাকুন পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের পরিমাণ। এ ক্ষেত্রে কলা এবং মিষ্টি আলুকে অগ্রাধিকার দেয়ার কথা বলেছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা।

১৬. ত্বকে দিন সূর্যের আলো: প্রতিদিন ২০ মিনিট করে সূর্যের আলোর সংস্পর্শে এলে শরীরে নাইট্রিক অক্সাইডের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ে, যা রক্তচাপকে কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে।

১৭. নীরবতাকে প্রাধান্য দিন: হার্টের সমস্যার সঙ্গে উচ্চ ডেসিবেলের শব্দেরও বেশ যোগ রয়েছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বাড়ি থেকে দূরে প্রতি ১০ ডেসিবেল শব্দের মাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনার হার্ট এটাকের পরিমাণও বাড়তে থাকে ১২ শতাংশ হারে।

১৮. সময় দিন গৃহপালিত প্রাণীদের: নিজেকে নীরোগ রাখতে বাড়ির গৃহপালিত কুকুর-বিড়াল বা পাখিদের প্রতিও মনোযোগী হোন। অন্য প্রাণীদের প্রতি উদারতা আপনার হার্টের সমস্যা কমাতে সাহায্য করবে।

১৯. সবার সঙ্গে অংশ নিন সকালের নাশতায়: হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, যারা সকালের পারিবারিক নাশতার টেবিল মিস করে তাদের হৃদযন্ত্রকালীন সংকটের পরিমাণ অন্যদের থেকে ২৭ শতাংশ বেশি থাকে।

২০. ছুড়ে ফেলুন এনার্জি ড্রিংকস: শক্তিবর্ধক এসব পানীয়কে ‘শত্রু’ হিসেবে গণ্য করুন। কেননা এসব পানীয় কোনোভাবেই আপনার কোনো ধরনের উপকারে আসবে না, উল্টো রক্তচাপ বাড়িয়ে মুহূর্তেই আপনাকে ধসিয়ে দেবে।

২১. পান করুন গরুর দুধ: গরুর দুধে থাকা লো ফ্যাট হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াবিরোধী কম ঘনত্বসম্পন্ন লিপ্রোপ্রোটিনের হার কমাতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দুধে থাকা ক্যালসিয়াম শরীরে জমে থাকা পুরু চর্বির স্তর কাটতে ভূমিকা রাখে।

২২. ব্যায়ামে কমান উপুড় হওয়ার প্রবণতা: সাধারণত উবু হওয়া ব্যায়ামের মাধ্যমে শরীরের পেশিগুলো আরো কার্যকর হয়ে ওঠে। কিন্তু এই ধরনের ব্যায়াম একই সঙ্গে হৃৎপিণ্ডকে নিঃশেষ করতেও ভূমিকা রাখে। তাই উপুড় ব্যায়াম সংকোচন শুরু করুন।

২৩. গান গান ইচ্ছামতো: হৃৎপিণ্ড ভালো রাখতে গলা ছেড়ে গান গাইতেও উৎসাহিত করেছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, দলবদ্ধ সংগীত কিংবা কারাওকে হাসিখুশি রাখে হৃদযন্ত্রকেও।

২৪. মসলা হলে দারুচিনি: খাদ্য তালিকায় মসলা ব্যবহারে আপত্তি থাকলেও দারুচিনির ব্যবহার হৃৎপিণ্ডকে সতেজ করে তুলতে অনন্য ভূমিকা রাখে। প্রতিবেলা খাবারে দুই চা চামচ দারুচিনি রক্তে শর্করার পরিমাণ কমিয়ে আনে, এমনকি মাংস খাবার পরের মুহূর্তেও।

২৫. বাড়ান সামাজিক যোগাযোগ: একা বাস করতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা অন্যদের তুলনায় বেশি হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিতে থাকে। তাই অন্যদের সঙ্গে কথা বলুন, হাত মেলান, জড়িয়ে ধরুন এবং আরো বেশি সামাজিক হতে চেষ্টা করুন; নিজের স্বার্থেই।

২৬. সালাদকে ভোলার কারণ নেই: খাবারে যদি সবুজ সালাদ থাকে তাহলে আপনার রসনা তৃপ্তির পাশাপাশি হার্টও খুশি থাকবে। তাই বেশি বেশি যুক্ত থাকুন ভিনেগার, জলপাইয়ের তেল কিংবা লেবুর শরবতের সঙ্গে।

২৭. হয়ে উঠুন শাকাহারী: বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, যাদের খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন অন্তত দু-একটি শাকপাতা থাকে, তাদের হৃৎপিণ্ড অন্যদের তুলনায় ১২ শতাংশ বেশি সবল থাকে। তাই শাকাহারী হয়ে উঠতে উৎসাহ জুগিয়েছেন গবেষকরা।

২৮. থাকুন হাসিখুশি: হাসিখুশি আর প্রাণবন্ত মুখাবয়ব শুধু স্টাইল বা ফ্যাশন আইকনই আপনাকে করে তুলবে না, বাড়িয়ে দেবে আপনার নীরোগ থাকার প্রবণতাও। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, প্রাণবন্ত উপস্থিতি আপনার অবসাদ ও অভ্যন্তরীণ প্রদাহকে ছুটি দিয়ে দেবে এবং অলিন্দ ও নিলয়ের প্রকোষ্ঠকে সুঠাম রাখবে।

২৯. সবজি খান রঙ দেখে: রঙিন সবজি বা তরিতরকারির প্রতি আগ্রহ বাড়ান। কেননা কমলা বা সবুজ রঙের প্রতিটি সবজি আপনার রক্তচাপকে অনিয়মিত প্রবাহের হাত থেকে সুরক্ষা দেবে, যা হৃদযন্ত্রের কার্যকারিতার জন্যও বেশ উপকারী।

৩০. আরোহণ করুন সাইকেলে: ঘরে কিংবা বাইরে সাইকেলে আরোহণ চর্চা বাড়িয়ে দিন। প্রতিদিনের বাহন হিসেবে সাইকেলকে যদি গ্রহণ করে থাকেন তাহলে তো কথাই নেই, কিন্তু যদি তা না হয় তাহলে ঘরের ব্যায়ামে প্রাধান্য দিন সাইক্লিংকে। প্রতিদিন অন্তত ১০ মিনিট সাইক্লিং হৃদযন্ত্রের প্রবাহকে স্বাভাবিক রাখবে।

সূত্র: ওয়েবসাইট

Photo: হার্ট সুস্থ রাখতে জেনে<br />
নিন ৩০ কৌশল 
<p>শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের মধ্যে মস্তিষ্ক এবং হৃৎপিণ্ড বা হার্টকে নিয়েই ভাবনা থাকে বেশি। এর যেকোনো একটি বিকল হলে মহাবিপর্যয় নেমে আসে। রোগ বিবেচনায় অবশ্য হার্টকে নিয়েই বেশি ভয়। তাই হার্ট সুস্থ ও স্বাভাবিক রাখতে চলছে নানা ধরনের গবেষণা। শত শত বছর ধরে চলা এসব গবেষণা উপায়ও বাতলে দিয়েছে অনেক। এর মধ্যে ৩০টি উপায় জানিয়েছে মেনস হেলথ ডটকম।</p>
<p>১. সপ্তাহে দুইবার শারীরিক সম্পর্ক: গবেষণায় দেখা গেছে, স্ত্রীর সঙ্গে যারা মাসে একবার শারীরিক সম্পর্ক করে থাকেন তাদের তুলনায় যারা সপ্তাহে দুই বা তার বেশিবার করেন তাদের হার্ট বেশি সুস্থ থাকে। আমেরিকান জার্নাল অব কার্ডিওলজির মতে, শারীরিক সম্পর্ক হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াকে নিরাপদ করে তোলে, যেভাবে পোশাক তাপমাত্রার হাত থেকে শরীরকে রক্ষা করে।</p>
<p>২. প্রতিদিন এক কাপ আখরোট: প্রতিদিন এক কাপ পরিমাণ আখরোট-জাতীয় ফল খেলে শরীরের রক্ত সঞ্চালনপ্রক্রিয়া কার্যকর হয়ে ওঠে। কেননা আখরোট-জাতীয় ফলে থাকে ওমেগা-৩ নামের চর্বি, যা বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের বিরুদ্ধে শক্তিশালী অবস্থান নেয় এবং এর ফলে দূষিত রক্ত নিয়মিত পরিসঞ্চালিত হয়ে হার্টের গতি স্বাভাবিক রাখে।</p>
<p>৩. নাড়ির গতি লিপিবদ্ধ রাখুন: ঘুম থেকে ওঠার পর অন্য কিছু খোঁজার আগে আপনার প্রয়োজন নিজের নাড়ি মেপে রাখা। কারণ এ সময় শরীর আবারো পুরোমাত্রায় কার্যক্ষম হয়ে ওঠার প্রস্তুতি শুরু করে। তাই হার্টও হয়ে ওঠে সচল। স্বাভাবিকভাবে পূর্ণবয়স্ক একজন মানুষের এ সময় নাড়ির গতি হবে মিনিটে ৭০ বার বা তার চেয়ে কম। ডাক্তাররা জানিয়েছেন, যদি সপ্তাহ ধরে এর ব্যত্যয় ঘটে, তবে দ্রুত যোগাযোগ করতে হবে স্থানীয় হাসপাতালে।</p>
<p>৪. এড়িয়ে চলুন দূষিত বায়ু: সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বে দূষিত বায়ুর পরিমাণ বেড়েছে। আবহাওয়াবিদদের ভাষ্য মতে, শীতকালে সকালের দিকে বাতাসে দূষিত পদার্থের পরিমাণ বেশি থাকে। সাধারণত বাতাসে থাকা অতিরিক্ত ধাতব পদার্থ নিঃশ্বাসের সঙ্গে শরীরে প্রবেশ করে স্কন্ধদেশের ধমনিপ্রাচীরকে আরো পুরু করে তোলে, যে কারণে রক্ত সঞ্চালন বাধাগ্রস্ত হয়।</p>
<p>৫. বেশি খান শিম, বরবটি: আলু কিংবা কলাই-জাতীয় খাবারের চেয়েও গুটিযুক্ত ফলধারী লতা, যেমন- শিম, বরবটি রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। তাই প্রতিদিনের খাবারের তালিকায় এগুলো রাখতে পারেন ওষুধ বিবেচনায়ও।</p>
<p>৬. করুন মুঠোর ব্যায়াম: টানা চার সপ্তাহের মুঠো সঞ্চালন-প্রসারণ ব্যায়ামও আপনার রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করবে। হাইপারটেনশন জার্নাল জানিয়েছে, এর মাধ্যমে আপনি রক্তের ঊর্ধ্বচাপ কমিয়ে আনতে পারেন প্রায় ১০ শতাংশ হারে।</p>
<p>৭. ডিমও সঙ্গী হবে: যারা বলছেন, বেশি বেশি ডিম খেলে কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়ে তাদের জন্য দুঃসংবাদ। কেননা ব্রাজিলীয় গবেষকরা জানিয়েছেন, ডিমের কুসুমে থাকা ভিটামিন ই, বি-১২ এবং ফলেট করোনারি আর্টারিকে পরিষ্কার রাখে। তবে কেউ যদি দিনে চারটি করে ডিম খেতে থাকেন, তবে তাকে এসব গবেষণার কথা ভুলে যেতে হবে।</p>
<p>৮. দৌড়ান নিয়মিত: এটা একটা সাধারণ তরিকা। তবে হার্ট ভালো রাখতে হলে প্রতিদিন কমপক্ষে তিন কিলোমিটার করে দৌড়ানোর উপদেশ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। এ ক্ষেত্রে দৌড় শুরুর আগে এবং শেষে হার্ট রেটের সংখ্যা লিপিবদ্ধ করারও অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।</p>
<p>৯. শ্বাসের গতি নিয়ন্ত্রণ করুন: না, নিজের ইচ্ছামতো গতিতে শ্বাস নিতে কিংবা ছাড়তে বলা হচ্ছে না। চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী প্রতিদিন শ্বাসের ব্যায়াম করুন। উদাহরণ হিসেবে প্রথমে ৩০ সেকেন্ডে ছয়টি পূর্ণাঙ্গ শ্বাস-প্রশ্বাস সম্পন্ন করুন। এরপর সময়ের পরিমাণ কমাতে থাকুন। এ ব্যায়াম আপনার হৃদ সংকোচনসংক্রান্ত চাপ কমাতে ধন্বন্তরি ভূমিকা রাখবে।</p>
<p>১০. দূরে থাক অবসাদ: কোনোভাবেই কাজের ক্লান্তিকে আপনার ওপর চেপে বসতে দেবেন না। এ জন্য মাঝেমধ্যেই অবসাদ দূর করতে আপনার পছন্দকে গুরুত্ব দিন। সুইজারল্যান্ডের এক গবেষণা জানিয়েছে, অবসাদ দূর করার তৎপরতা হৃদযন্ত্রের সংকট কাটায় ৫৭ শতাংশের কাছাকাছি।</p>
<p>১১. বিদায় জানান ফ্লু-কে: জার্নাল হার্টের প্রতিবেদন জানিয়েছে, যেসব ওষুধ ফ্লু জাতীয় ভাইরাস দূর করতে ব্যবহার করা হয় তা হার্টের বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতা সারাতেও কার্যকর ভূমিকা রাখে। উদাহরণ হিসেবে তারা ইনফ্লুয়েঞ্জার টিকার কথা বলেছেন। এই টিকা একই সঙ্গে ধমনির প্রদাহ দূর করতেও শক্তিশালী ভূমিকা রাখে।</p>
<p>১২. বালিশে মাথা রাখুন সময়মতো: যাদের অনিদ্রা নামক রাজরোগ আছে, তারা অন্যদের চেয়ে ৪৫ শতাংশ বেশি হার্ট এটাকের ঝুঁকি নিয়ে বসবাস করছেন। তাই প্রয়োজন অনুযায়ী ঘুমের জন্য প্রতিদিন বেশি বেশি শারীরিক পরিশ্রম করার আহ্বান জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।</p>
<p>১৩. নাস্তি অধিক ঘুমেও: এমনকি যারা বেশি বেশি ঘুমকাতুরে তাদেরও সাবধান করে দিয়েছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, দিনে ১০ ঘণ্টা কিংবা তার বেশি সময় যাদের ঘুমে কাটে তাদের স্থূলতার পরিমাণ আশঙ্কাজনক হারে বাড়তে থাকে, কমতে থাকে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও। সুতরাং অধিক ঘুমে নাস্তি।</p>
<p>১৪. খাদ্য তালিকায় কমাতে থাকুন চর্বির পরিমাণ: খাবারে থাকা চর্বি হৃৎপিণ্ডকে অকার্যকর করে তুলতে ভূমিকা রাখে। সুতরাং খাদ্য তালিকা থেকে নিয়মিতভাবে চর্বির পরিমাণ কমাতে থাকুন, তবে অবশ্যই পুষ্টি তালিকার নিুক্রম ছাড়িয়ে যাবেন না।</p>
<p>১৫. যোগ করুন পটাশিয়ামযুক্ত খাদ্য: প্রতি দিনের খাদ্য তালিকায় ক্রমাগতভাবে যুক্ত করতে থাকুন পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাবারের পরিমাণ। এ ক্ষেত্রে কলা এবং মিষ্টি আলুকে অগ্রাধিকার দেয়ার কথা বলেছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা।</p>
<p>১৬. ত্বকে দিন সূর্যের আলো: প্রতিদিন ২০ মিনিট করে সূর্যের আলোর সংস্পর্শে এলে শরীরে নাইট্রিক অক্সাইডের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ে, যা রক্তচাপকে কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে।</p>
<p>১৭. নীরবতাকে প্রাধান্য দিন: হার্টের সমস্যার সঙ্গে উচ্চ ডেসিবেলের শব্দেরও বেশ যোগ রয়েছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, বাড়ি থেকে দূরে প্রতি ১০ ডেসিবেল শব্দের মাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনার হার্ট এটাকের পরিমাণও বাড়তে থাকে ১২ শতাংশ হারে।</p>
<p>১৮. সময় দিন গৃহপালিত প্রাণীদের: নিজেকে নীরোগ রাখতে বাড়ির গৃহপালিত কুকুর-বিড়াল বা পাখিদের প্রতিও মনোযোগী হোন। অন্য প্রাণীদের প্রতি উদারতা আপনার হার্টের সমস্যা কমাতে সাহায্য করবে।</p>
<p>১৯. সবার সঙ্গে অংশ নিন সকালের নাশতায়: হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, যারা সকালের পারিবারিক নাশতার টেবিল মিস করে তাদের হৃদযন্ত্রকালীন সংকটের পরিমাণ অন্যদের থেকে ২৭ শতাংশ বেশি থাকে।</p>
<p>২০. ছুড়ে ফেলুন এনার্জি ড্রিংকস: শক্তিবর্ধক এসব পানীয়কে ‘শত্রু’ হিসেবে গণ্য করুন। কেননা এসব পানীয় কোনোভাবেই আপনার কোনো ধরনের উপকারে আসবে না, উল্টো রক্তচাপ বাড়িয়ে মুহূর্তেই আপনাকে ধসিয়ে দেবে।</p>
<p>২১. পান করুন গরুর দুধ: গরুর দুধে থাকা লো ফ্যাট হৃদযন্ত্রের ক্রিয়াবিরোধী কম ঘনত্বসম্পন্ন লিপ্রোপ্রোটিনের হার কমাতে সাহায্য করে। পাশাপাশি দুধে থাকা ক্যালসিয়াম শরীরে জমে থাকা পুরু চর্বির স্তর কাটতে ভূমিকা রাখে।</p>
<p>২২. ব্যায়ামে কমান উপুড় হওয়ার প্রবণতা: সাধারণত উবু হওয়া ব্যায়ামের মাধ্যমে শরীরের পেশিগুলো আরো কার্যকর হয়ে ওঠে। কিন্তু এই ধরনের ব্যায়াম একই সঙ্গে হৃৎপিণ্ডকে নিঃশেষ করতেও ভূমিকা রাখে। তাই উপুড় ব্যায়াম সংকোচন শুরু করুন।</p>
<p>২৩. গান গান ইচ্ছামতো: হৃৎপিণ্ড ভালো রাখতে গলা ছেড়ে গান গাইতেও উৎসাহিত করেছেন চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা। তাদের মতে, দলবদ্ধ সংগীত কিংবা কারাওকে হাসিখুশি রাখে হৃদযন্ত্রকেও।</p>
<p>২৪. মসলা হলে দারুচিনি: খাদ্য তালিকায় মসলা ব্যবহারে আপত্তি থাকলেও দারুচিনির ব্যবহার হৃৎপিণ্ডকে সতেজ করে তুলতে অনন্য ভূমিকা রাখে। প্রতিবেলা খাবারে দুই চা চামচ দারুচিনি রক্তে শর্করার পরিমাণ কমিয়ে আনে, এমনকি মাংস খাবার পরের মুহূর্তেও।</p>
<p>২৫. বাড়ান সামাজিক যোগাযোগ: একা বাস করতে ইচ্ছুক ব্যক্তিরা অন্যদের তুলনায় বেশি হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিতে থাকে। তাই অন্যদের সঙ্গে কথা বলুন, হাত মেলান, জড়িয়ে ধরুন এবং আরো বেশি সামাজিক হতে চেষ্টা করুন; নিজের স্বার্থেই।</p>
<p>২৬. সালাদকে ভোলার কারণ নেই: খাবারে যদি সবুজ সালাদ থাকে তাহলে আপনার রসনা তৃপ্তির পাশাপাশি হার্টও খুশি থাকবে। তাই বেশি বেশি যুক্ত থাকুন ভিনেগার, জলপাইয়ের তেল কিংবা লেবুর শরবতের সঙ্গে।</p>
<p>২৭. হয়ে উঠুন শাকাহারী: বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, যাদের খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন অন্তত দু-একটি শাকপাতা থাকে, তাদের হৃৎপিণ্ড অন্যদের তুলনায় ১২ শতাংশ বেশি সবল থাকে। তাই শাকাহারী হয়ে উঠতে উৎসাহ জুগিয়েছেন গবেষকরা।</p>
<p>২৮. থাকুন হাসিখুশি: হাসিখুশি আর প্রাণবন্ত মুখাবয়ব শুধু স্টাইল বা ফ্যাশন আইকনই আপনাকে করে তুলবে না, বাড়িয়ে দেবে আপনার নীরোগ থাকার প্রবণতাও। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, প্রাণবন্ত উপস্থিতি আপনার অবসাদ ও অভ্যন্তরীণ প্রদাহকে ছুটি দিয়ে দেবে এবং অলিন্দ ও নিলয়ের প্রকোষ্ঠকে সুঠাম রাখবে।</p>
<p>২৯. সবজি খান রঙ দেখে: রঙিন সবজি বা তরিতরকারির প্রতি আগ্রহ বাড়ান। কেননা কমলা বা সবুজ রঙের প্রতিটি সবজি আপনার রক্তচাপকে অনিয়মিত প্রবাহের হাত থেকে সুরক্ষা দেবে, যা হৃদযন্ত্রের কার্যকারিতার জন্যও বেশ উপকারী।</p>
<p>৩০. আরোহণ করুন সাইকেলে: ঘরে কিংবা বাইরে সাইকেলে আরোহণ চর্চা বাড়িয়ে দিন। প্রতিদিনের বাহন হিসেবে সাইকেলকে যদি গ্রহণ করে থাকেন তাহলে তো কথাই নেই, কিন্তু যদি তা না হয় তাহলে ঘরের ব্যায়ামে প্রাধান্য দিন সাইক্লিংকে। প্রতিদিন অন্তত ১০ মিনিট সাইক্লিং হৃদযন্ত্রের প্রবাহকে স্বাভাবিক রাখবে। </p>
<p>সূত্র: ওয়েবসাইট

 

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে যে ৬ টি মারাত্মক ভুল করে থাকেন বেশিরভাগ মানুষ

শরীরে বাড়তি ওজন থাকা মানেই ঝামেলা। একটুতেই হাঁপিয়ে উঠা, পছন্দের পোশাক পরতে না পারা, নানা রোগ ব্যাধি শরীরে বাসা বাঁধা সহ অনেক সমস্যা দেখা যায় ওজন বেড়ে গেলে। আর তাই অনেক কষ্ট করেও সকলে চান সঠিক ওজনটা ধরে রাখতে। ওজন কমানোর জন্য অনেকেই সাহায্য নিয়ে থাকেন ডায়েট এবং ব্যায়ামের। আবার বেশিরভাগ মানুষই ব্যায়ামের জন্য সময় বের করতে পারেন না। তাহলে শুধু অবশিষ্ট থাকে ডায়েট কন্ট্রোল।
কিন্তু এই ওজন কমানোর জন্য যে অভ্যাসগুলো আমরা গড়ে তুলি তা কি আসলেই সঠিক? কেউ কেউ ডাক্তারের পরামর্শে সঠিক ডায়েট কন্ট্রোল প্ল্যান তৈরি করে মেনে চলেন। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষই নিজের মনগড়া কাজ করেন ওজন কমানোর জন্য। আর এতেই হয় ভুল। এবং মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। চলুন আজকে দেখে নেয়া যাক ওজন কমানোর সময় যে ৬ টি ভুল বেশিরভাগ মানুষ করে থাকেন।

ক্রাশ ডায়েটিং
অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া নিয়ন্ত্রণ করার নামই ক্রাশ ডায়েটিং। আপনি যদি ওজন কমানোর নামে অনেক কম খাওয়া শুরু করেন তবে ক্ষতি আপনারই। এতে ওজন তো কমবেই না বরং আপনার পুষ্টিকর খাওয়া বাদ যাবে। এতে করে আপনি শারীরিক ভাবে দুর্বল ও অসুস্থ হয়ে পড়বেন।
পানীয়ের প্রতি বেশি নজর দেয়া
সলিড খাবারের পরিবর্তে লিক্যুইড অর্থাৎ তরল খাবার খেলে ওজন কমবে এই কথাটি অনেক বড় ভুল একটি ধারণা। মাত্র ১ গ্লাস ফলের জুসে থাকতে পারে ১৫০-৩০০ ক্যালোরি যদি আপনি এতে যোগ করেন চিনি বা মধু। যদি ওজন কমাতেই চান তবে ফল খান, ফলের জুস নয়। ফলের একেবারে খাঁটি রস খেতে পারলে অবশ্য এই ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবেন।
কার্বোহাইড্রেট মানেই ওজন বৃদ্ধি
অনেকেই মনে করেন কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার খেলেই ওজন বাড়ে। তখন নিজের খাবার তালিকা থেকে সব ধরনের কার্বোহাইড্রেট বাদ দিয়ে দেন। কিন্তু এতে করে আপনি নিজেকে একেবারেই এনার্জি শূন্য করে ফেলছেন। কিছুটা কার্বোহাইড্রেট অবশ্যই দেহের জন্য জরুরী। যদি বাদ দিতেই হয় তবে বাদ দিন চিনি এবং অতিরিক্ত ক্যালোরি সমৃদ্ধ খাবার।
একবেলা খাবার বাদ দেয়া
অনেকেই ভেবে থাকেন একবেলা খাবার বাদ দিলে কম খাওয়া হবে, এতে করে ওজন কমবে। এটি সম্পূর্ণ ভুল একটি তথ্য। খাবার বাদ দেয়া উল্টো ওজন বাড়ায়। কারণ একবেলা খাবার না খেয়ে পরের বেলা আপনি খাবার বেশি খেয়ে ফেলবেন স্বাভাবিক ভাবেই। আর একবারে খাবার বেশি খেলেই ওজন বাড়ে। তাই পরিমিত খান কিন্তু কোনো বেলাই খাবার বাদ দেবেন না।

দ্রুত ওজন কমে যাওয়া ভালো
দ্রুত ওজন কমতে শুরু করলে অনেকেই ভাবেন ফ্যাট দ্রুত কমে যাচ্ছে। কিন্তু আসলে তা হয় না। দ্রুত ওজন কমে যাওয়ার অর্থ আপনার মাংসপেশি এবং দেহে পানির পরিমাণ কমে যাচ্ছে ফ্যাট নয়। তাই নজর রাখুন খাদ্যতালিকার দিকে। খুব দ্রুত ওজন কমে যাওয়া মোটেই ভালো লক্ষণ নয়।
কোনো ধরণের প্ল্যান না করা
খাবার তালিকা, ব্যায়াম ইত্যাদির জন্য যদি আপনি প্ল্যান ছাড়াই কাজ করতে থাকেন তবে আসলেই কোনো লাভ নেই। একটি ভালো প্ল্যান তৈরি করুন। খাদ্যতালিকায় কী কী থাকা প্রয়োজন এবং কতোটুকু ব্যায়াম করা উচিৎ সব কিছু প্ল্যানে রাখুন এবং নিয়ম করে পালন করতে থাকুন।

সূত্র- ওয়েবসাইট।

Photo: ওজন কমানোর ক্ষেত্রে যে ৬ টি মারাত্মক ভুল করে থাকেন বেশিরভাগ মানুষ</p />
<p>শরীরে বাড়তি ওজন থাকা মানেই ঝামেলা। একটুতেই হাঁপিয়ে উঠা, পছন্দের পোশাক পরতে না পারা, নানা রোগ ব্যাধি শরীরে বাসা বাঁধা সহ অনেক সমস্যা দেখা যায় ওজন বেড়ে গেলে। আর তাই অনেক কষ্ট করেও সকলে চান সঠিক ওজনটা ধরে রাখতে। ওজন কমানোর জন্য অনেকেই সাহায্য নিয়ে থাকেন ডায়েট এবং ব্যায়ামের। আবার বেশিরভাগ মানুষই ব্যায়ামের জন্য সময় বের করতে পারেন না। তাহলে শুধু অবশিষ্ট থাকে ডায়েট কন্ট্রোল।<br />
কিন্তু এই ওজন কমানোর জন্য যে অভ্যাসগুলো আমরা গড়ে তুলি তা কি আসলেই সঠিক? কেউ কেউ ডাক্তারের পরামর্শে সঠিক ডায়েট কন্ট্রোল প্ল্যান তৈরি করে মেনে চলেন। কিন্তু বেশিরভাগ মানুষই নিজের মনগড়া কাজ করেন ওজন কমানোর জন্য। আর এতেই হয় ভুল। এবং মারাত্মক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। চলুন আজকে দেখে নেয়া যাক ওজন কমানোর সময় যে ৬ টি ভুল বেশিরভাগ মানুষ করে থাকেন।</p>
<p>ক্রাশ ডায়েটিং<br />
অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া নিয়ন্ত্রণ করার নামই ক্রাশ ডায়েটিং। আপনি যদি ওজন কমানোর নামে অনেক কম খাওয়া শুরু করেন তবে ক্ষতি আপনারই। এতে ওজন তো কমবেই না বরং আপনার পুষ্টিকর খাওয়া বাদ যাবে। এতে করে আপনি শারীরিক ভাবে দুর্বল ও অসুস্থ হয়ে পড়বেন।<br />
পানীয়ের প্রতি বেশি নজর দেয়া<br />
সলিড খাবারের পরিবর্তে লিক্যুইড অর্থাৎ তরল খাবার খেলে ওজন কমবে এই কথাটি অনেক বড় ভুল একটি ধারণা। মাত্র ১ গ্লাস ফলের জুসে থাকতে পারে ১৫০-৩০০ ক্যালোরি যদি আপনি এতে যোগ করেন চিনি বা মধু। যদি ওজন কমাতেই চান তবে ফল খান, ফলের জুস নয়। ফলের একেবারে খাঁটি রস খেতে পারলে অবশ্য এই ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবেন।<br />
কার্বোহাইড্রেট মানেই ওজন বৃদ্ধি<br />
অনেকেই মনে করেন কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার খেলেই ওজন বাড়ে। তখন নিজের খাবার তালিকা থেকে সব ধরনের কার্বোহাইড্রেট বাদ দিয়ে দেন। কিন্তু এতে করে আপনি নিজেকে একেবারেই এনার্জি শূন্য করে ফেলছেন। কিছুটা কার্বোহাইড্রেট অবশ্যই দেহের জন্য জরুরী। যদি বাদ দিতেই হয় তবে বাদ দিন চিনি এবং অতিরিক্ত ক্যালোরি সমৃদ্ধ খাবার।<br />
একবেলা খাবার বাদ দেয়া<br />
অনেকেই ভেবে থাকেন একবেলা খাবার বাদ দিলে কম খাওয়া হবে, এতে করে ওজন কমবে। এটি সম্পূর্ণ ভুল একটি তথ্য। খাবার বাদ দেয়া উল্টো ওজন বাড়ায়। কারণ একবেলা খাবার না খেয়ে পরের বেলা আপনি খাবার বেশি খেয়ে ফেলবেন স্বাভাবিক ভাবেই। আর একবারে খাবার বেশি খেলেই ওজন বাড়ে। তাই পরিমিত খান কিন্তু কোনো বেলাই খাবার বাদ দেবেন না।</p>
<p>দ্রুত ওজন কমে যাওয়া ভালো<br />
দ্রুত ওজন কমতে শুরু করলে অনেকেই ভাবেন ফ্যাট দ্রুত কমে যাচ্ছে। কিন্তু আসলে তা হয় না। দ্রুত ওজন কমে যাওয়ার অর্থ আপনার মাংসপেশি এবং দেহে পানির পরিমাণ কমে যাচ্ছে ফ্যাট নয়। তাই নজর রাখুন খাদ্যতালিকার দিকে। খুব দ্রুত ওজন কমে যাওয়া মোটেই ভালো লক্ষণ নয়।<br />
কোনো ধরণের প্ল্যান না করা<br />
খাবার তালিকা, ব্যায়াম ইত্যাদির জন্য যদি আপনি প্ল্যান ছাড়াই কাজ করতে থাকেন তবে আসলেই কোনো লাভ নেই। একটি ভালো প্ল্যান তৈরি করুন। খাদ্যতালিকায় কী কী থাকা প্রয়োজন এবং কতোটুকু ব্যায়াম করা উচিৎ সব কিছু প্ল্যানে রাখুন এবং নিয়ম করে পালন করতে থাকুন।</p>
<p>সূত্র- ওয়েবসাইট।

 

৫টি রোগ চটজলদি সারাবে তুলসি পাতা, কীভাবে ব্যবহার করবেন?

অনেকের ঘরেই আজকাল তুলসি গাছ চোখে পড়ে থাকে হিন্দু ধর্মের মানুষের কাছে তুলসি গাছের অর্থ ধর্মীয় দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তো বটেই, সাধারণ অর্থেও আর দশটা গাছের তুলনায় তুলসি গাছের গুনাগুন বেশ ভিন্ন। কারণ তুলসি পাতার রয়েছে ঔষধি গুণাগুণ, রোগ নিরাময়ের ক্ষমতা। ছোটোখাটো অনেক রোগের বেশ ভালো ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয় এই তুলসি পাতা। আজকে দেখে নেয়া যাক এমনই ৫ টি রোগের ঔষধ হিসেবে তুলসি পাতার ব্যবহার।
জ্বরঃ
তুলসীপাতা সবথেকে বেশি যে অসুখের হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে তা হল জ্বর। চায়ে তুলসীপাতা সেদ্ধ করে সেই পাণীয় যদি পান করেন, তবে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু প্রভৃতি অসুখ থেকে রক্ষা পেতে পারেন। আপনার পরিবারের কারো জ্বর হলে তাকে তুলসীপাতা এবং দারুচিনি মেশানো ঠান্ডা চা পান করান। জ্বর সেরে যাবে দ্রুত।
গলার ব্যাথাঃ
সামান্য গরম পানিতে তুলসীপাতা দিয়ে সেদ্ধ করে নিয়ে, সেই পানি দিয়ে গার্গল করলে বা পানি পান করলে আপনার গলার ব্যাথা দ্রুত সেরে যাবে।
সর্দি ও কাশিঃ
সর্দি-কাসি প্রায় প্রত্যেকটি মৌসুমের খুব সাধারণ একটি অসুখ যা সবাইকে সমস্যা দেয়। এই সমস্যার হাত থেকে মুক্তি পেতে গেলে তুলসীপাতা ৫ মিনিট চিবিয়ে রসটি গিলে নিন। তাহলে এই সমস্যার হাত থেকে সহজেই সমাধান পেয়ে যাবেন।
ত্বকের সমস্যাঃ
তোকে ব্রণের সমস্যা সমাধানের একটি সহজ ও অন্যতম উপায় হল তুলসীপাতা। এছাড়াও নানান রকম অ্যালার্জি ও র‍্যাশে কার্যকর। তুলসীপাতার পেস্ট তৈরি করে তা ত্বকে লাগালে এই সমস্যাগুলি কমে যায়।
কিডনির সমস্যাঃ
তুলসীপাতা আপনার কিডনীর বেশ কিছু রোগের সমাধান করে দিতে পারে। তুলসীপাতার রস প্রতিদিন একগ্লাস করে পান করলে, কিডনীতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম থাকে। যদি কিডনীতে স্টোন জমে যায় তবে তুলসীপাতার রস টানা ৬ মাস পান করলে সেই স্টোন মূত্রের সঙ্গে বেরিয়ে যায়।

তথ্য সূত্র- ডা. মানিক চন্দ্র সেনের লেখা বই হতে সংগৃহীত

Photo: ৫টি রোগ চটজলদি সারাবে তুলসি পাতা, কীভাবে ব্যবহার করবেন?</p />
<p>অনেকের ঘরেই আজকাল তুলসি গাছ চোখে পড়ে থাকে হিন্দু ধর্মের মানুষের কাছে তুলসি গাছের অর্থ ধর্মীয় দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তো বটেই, সাধারণ অর্থেও আর দশটা গাছের তুলনায় তুলসি গাছের গুনাগুন বেশ ভিন্ন। কারণ তুলসি পাতার রয়েছে ঔষধি গুণাগুণ, রোগ নিরাময়ের ক্ষমতা। ছোটোখাটো অনেক রোগের বেশ ভালো ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয় এই তুলসি পাতা। আজকে দেখে নেয়া যাক এমনই ৫ টি রোগের ঔষধ হিসেবে তুলসি পাতার ব্যবহার।<br />
জ্বরঃ<br />
তুলসীপাতা সবথেকে বেশি যে অসুখের হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে তা হল জ্বর। চায়ে তুলসীপাতা সেদ্ধ করে সেই পাণীয় যদি পান করেন, তবে ম্যালেরিয়া, ডেঙ্গু প্রভৃতি অসুখ থেকে রক্ষা পেতে পারেন। আপনার পরিবারের কারো জ্বর হলে তাকে তুলসীপাতা এবং দারুচিনি মেশানো ঠান্ডা চা পান করান। জ্বর সেরে যাবে দ্রুত।<br />
গলার ব্যাথাঃ<br />
সামান্য গরম পানিতে তুলসীপাতা দিয়ে সেদ্ধ করে নিয়ে, সেই পানি দিয়ে গার্গল করলে বা পানি পান করলে আপনার গলার ব্যাথা দ্রুত সেরে যাবে।<br />
সর্দি ও কাশিঃ<br />
সর্দি-কাসি প্রায় প্রত্যেকটি মৌসুমের খুব সাধারণ একটি অসুখ যা সবাইকে সমস্যা দেয়। এই সমস্যার হাত থেকে মুক্তি পেতে গেলে তুলসীপাতা ৫ মিনিট চিবিয়ে রসটি গিলে নিন। তাহলে এই সমস্যার হাত থেকে সহজেই সমাধান পেয়ে যাবেন।<br />
ত্বকের সমস্যাঃ<br />
তোকে ব্রণের সমস্যা সমাধানের একটি সহজ ও অন্যতম উপায় হল তুলসীপাতা। এছাড়াও নানান রকম অ্যালার্জি ও র‍্যাশে কার্যকর। তুলসীপাতার পেস্ট তৈরি করে তা ত্বকে লাগালে এই সমস্যাগুলি কমে যায়।<br />
কিডনির সমস্যাঃ<br />
তুলসীপাতা আপনার কিডনীর বেশ কিছু রোগের সমাধান করে দিতে পারে। তুলসীপাতার রস প্রতিদিন একগ্লাস করে পান করলে, কিডনীতে স্টোন হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম থাকে। যদি কিডনীতে স্টোন জমে যায় তবে তুলসীপাতার রস টানা ৬ মাস পান করলে সেই স্টোন মূত্রের সঙ্গে বেরিয়ে যায়।</p>
<p>তথ্য সূত্র- ডা. মানিক চন্দ্র সেনের লেখা বই হতে সংগৃহীত


Share with :

Facebook Twitter